অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকি ও সতর্কতা

0
270

শীতকাল যত ঘনাইয়া আসিতেছে ততই অগ্নিকাণ্ডের ঝুঁকি বাড়িতেছে। এই সময়ে বাতাসে আর্দ্রতা কম থাকায় যেকোনো সময় সামান্য কারণেও ঘটিতে পারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা। গত বুধবার যশোরের নওয়াপাড়া জুট মিলস লিমিটেডের একটি গুদামে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সেখানে আগুনের তীব্রতা এতটাই বেশি ছিল যে, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের তাহা নিয়ন্ত্রণে আনিতে হিমশিম খাইতে হয়। নওয়াপাড়া, যশোর ও খুলনাসহ ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি টিম চার ঘণ্টার প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। যে গুদামটিতে আগুন লাগে তাহাতে মওজুত ছিল মিলটির সর্বোত্কৃষ্ট মানের পাট। ধারণা করা হইতেছে, এই অগ্নিকাণ্ডে প্রায় ৩০ কোটি টাকা মূল্যের পাট পুড়িয়া ছাই হইয়া গিয়াছে। কিভাবে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হইল তাহা এখনো জানা যায় নাই। আবার গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী দিনাজপুরের বিরল উপজেলার একটি গ্রামে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৪৫টি বসতঘর সম্পূর্ণরূপে ভস্মীভূত হইয়া গিয়াছে। শুধু যশোর বা দিনাজপুর নহে, সমপ্রতি চট্টগ্রাম রফতানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা (সিইপিজেড), সাতক্ষীরা সার্কিট হাউস, গাজীপুর ও আশুলিয়ার একাধিক শিল্পকারখানায়, বাংলাদেশ ব্যাংক ও হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এয়ার ইণ্ডিয়ার অফিসসহ বিভিন্ন স্থানে অগ্নিকাণ্ড ঘটিতে দেখা যায়।

অগ্নিকাণ্ড নানা কারণেই ঘটিতে পারে। ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক সংযোগ এবং গ্যাস বা বৈদ্যুতিক চুলা হইতে অগ্নিকাণ্ডের সৃষ্টি হইতে পারে। দমকল বাহিনীর এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, দেশে প্রতি বত্সর যত অগ্নিকাণ্ড ঘটে, তাহার ৪০ হইতে ৫০ ভাগই বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট হইতে সৃষ্টি হয়। কারণ মূল সড়ক হইতে শুরু করিয়া বাসাবাড়ি কিংবা আধুনিক শপিংমল বেশিরভাগ স্থানেই বৈদ্যুতিক নিরাপত্তা অনেকটাই নাজুক ও উপেক্ষিত। আর এই কারণেই ঘটিতেছে প্রাণ ও সম্পদহানির ঘটনা। বিশেষত সিলিংয়ের ভিতর দিয়া যখন লাইনগুলি টানা হয়, তখন এইগুলি অনেক সময় দুর্বল হইয়া যায়। আর ইহাতেই অনেক সময় মোবাইল ও চার্জার ব্লাস্ট হয়। আবার দেখা যায়, অনেক সময় পর্দার ভিতর দিয়া ইলেকট্রিক তার নেওয়া হয়। এইগুলি গরম হইয়াও আগুন লাগিয়া যাইতে পারে। পরিসংখ্যান মতে, গত তিন বত্সরে দেশে অগ্নিকাণ্ড ঘটিয়াছে প্রায় ৫২ হাজার। ইহার মধ্যে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট হইতে আগুনের ঘটনা ঘটিয়াছে ১৮ হাজারের বেশি। চিকিত্সকরাও বলিতেছেন, তাহারা যে পরিমাণ দগ্ধ রোগী পান, তাহার বড় অংশই বৈদ্যুতিক আগুনে পোড়া মানুষ। তাই এই ব্যাপারে সবচাইতে বেশি দরকার গণসচেতনতা। কয়েক বত্সর পর পর বৈদ্যুতিক ও গ্যাসের লাইন এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা প্রয়োজন। দরকার যত্রতত্র টানা বৈদ্যুতিক তারের জঞ্জালের অবসানও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here