অচল রাজধানী ঢাকা

0
263

ঢাকা উত্তর দক্ষিণের কোনো ভেদাভেদ নেই। মাত্র ৪৩ মিলিমিটার বৃষ্টিতেই পানির নিচে চলে গেছে ঢাকার দুই অংশের প্রধান প্রধান সড়ক, গলিপথসহ আশপাশের এলাকা। এটাই এখন নাগরিক বাস্তবতা। ফলে নগরবাসীর দুর্ভোগও যেন নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই দুর্ভোগ কেবল জলাবদ্ধতাজনিত নয়, একই সঙ্গে যানজটের। যানজটের কবলে পড়ে মানুষ যেমন ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকে। জলাবদ্ধতার অসহায় শিকার হয়ে নাগরিক জীবন হয়ে পড়ে ওষ্ঠাগত, বিপন্ন। এমন পরিস্থিতিতে ওয়াসার এমডি বলেছেন, জলাবদ্ধতা নেই আছে জলজট। জলাবদ্ধতা স্থায়ী অস্থায়ী দু-ধরনের হতে পারে। আমাদের প্রশ্ন অস্থায়ী জলাবদ্ধতা কি জলাবদ্ধতা নয়? দায়িত্ব এড়ানোর জন্য নানা ধরনের অজুহাত দাঁড় করানো যায়। তাতে জনদুর্ভোগ দূর হয় না। যানজট আর জলজটের কারণে যে রাজধানী অচল এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। গত মঙ্গলবার সকাল থেকে ভারী বর্ষণ আর তীব্র যানজটে থেমেছিল রাজধানীবাসীর পথচলা, এটাই বাস্তব সত্য। যার রেশ গতকালও ছিল।
দুই মাস আগে রাজধানী ঢাকার দুই মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণের দুই বছর শেষ হলো। ২০১৫ সালের ৬ মে ক্ষমতায় এসেই দুজনেই রাজধানীবাসীর কাছে নানা ধরনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। দুজনের নির্বাচনী ইশতেহারেও নগর উন্নয়নের নানা কথা বলা ছিল। কিন্তু বাস্তবে আমরা কী দেখতে পাচ্ছি? স্বপ্নের রাজধানী ঢাকা নানা কারণে দুঃস্বপ্নের দুর্ভোগের জঞ্জালময় নগরীতে পরিণত হয়েছে। ঢাকার ফুটপাত হকারমুক্ত হলেও রাজধানীতে রয়েছে সীমাহীন যানজট। সামান্য কাজে বের হলেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে আটকে থাকতে হয়। ঢাকার অলিগলি খুবই ঘিঞ্জি। ঢাকার যেখানে সেখানে বস্তি গড়ে উঠেছে। ঢাকায় রয়েছে পানি, বিদ্যুৎ, গ্যাস সমস্যা, রয়েছে পরিবহন ও আবাসন সমস্যা। এ ছাড়াও নগরীতে ক্রমেই অপরাধ বাড়ছে। চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, হত্যা, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, এসিড সন্ত্রাস, মাদক ব্যবসা প্রভৃতি আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। একটু বৃষ্টি হলেই রাজধানীর অনেক এলাকা তলিয়ে যায় এবং পথচারীরা প্রচ- ভোগান্তির শিকার হয়। কিছুটা সংস্কার হলেও রাজধানী ঢাকা এখনো অপরিচ্ছন্ন শহর। অনেক জায়গায় নাকে রুমাল দিয়ে চলাচল করতে হয়। এখানকার বায়ু দূষিত। শব্দ দূষণের কারণে কান ঝালাপালা হয়ে যায়। শহরের ভেতরে বাইরে মারাত্মক পরিবেশ দূষণের কারণে ঢাকা শহরের মানুষ প্রতিনিয়ত অ্যাজমা, হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট, ফুসফুসের ক্যান্সারসহ মারাত্মকভাবে অনিরাময়যোগ্য রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। তারপর রয়েছে মশার উপদ্রব। চিকুনগুনিয়া তো এখন মহামারী আকার ধারণ করেছে। প্রতিনিয়ত বিভিন্নভাবে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে, দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। সবচেয়ে ভয়ংকর বিষয় হচ্ছে, ২০টি ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণ শহরের মধ্যে ঢাকার অবস্থান দ্বিতীয়। এর প্রধান কারণ অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও অধিক জনসংখ্যা। ৭ রিখটার স্কেলে ভূমিকম্প হলে ঢাকা শহর মৃত্যুপুরীতে পরিণত হবে। এর জন্য প্রধানত দায়ী অপরিকল্পিত নগরায়ণ আর কিছু লোভী মানুষের খামখেয়ালিপনা। বেকার সমস্যাও ঢাকাতে প্রকট। কারণ সবাই কর্মসংস্থানের জন্য ঢাকায় ছুটে আসে। বলতে গেলে নূ্যনতম নাগরিক সুবিধা ঢাকাতে নেই। ফলে এক সময়ের স্বপ্নের ঢাকা এখন পরিণত হয়েছে দুঃস্বপ্নের নগরীতে। এমন অবস্থায় ঢাকা আবারও উঠে এসেছে এশিয়ার ‘দ্বিতীয় নিকৃষ্ট’ শহরের কাতারে। যা আমাদের জন্য লজ্জাজনক।
ঢাকার অনেক জায়গাতেই সবুজায়ন করা হয়েছে এবং ঢাকাবাসীকে সবুজায়নে উৎসাহিত করা হচ্ছে, এটা একটা ইতিবাচক দিক। এ ছাড়াও ঢাকাকে অবৈধ দখলদার মুক্ত করা হয়েছে। ঢাকাকে তিলোত্তমা নগরীতে পরিণত করার স্বপ্ন অনেক দিনের। ঢাকার বয়স চারশ বছরের বেশি হলেও এই স্বপ্নের সফল বাস্তবায়ন ঘটানো আজও সম্ভব হয়নি। রাজধানী হিসেবে এর সৌকর্য বৃদ্ধি করে জনসাধারণের বাসোপযোগী করতে ঢাকার দুই মেয়রকে আরো নানা রকম উদ্যোগ নিতে হবে।
আয়তনের দিক থেকে ঢাকা এমন কোনো বড় শহর নয় যে পৃথিবীর বড় বড় নগরকে ছাড়িয়ে গেছে। তবে জনসংখ্যার দিক থেকে ঢাকা পৃথিবীর অন্যতম প্রধান নগরী এবং জঞ্জালময় ও অপরিকল্পিত নগরী হিসেবে রাজধানী ঢাকা দীর্ঘদিন থেকেই বেশ আলোচিত সমালোচিত। ঢাকাকে সুপরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলতে হবে, বাড়াতে হবে নাগরিক সুবিধা। সে জন্য নিতে হবে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা। সবার আগে দূর করতে হবে তীব্র যানজট ও জলাবদ্ধতা এবং এর কোনো বিকল্প নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here