অডিট রিপোর্টে অনিয়ম, ঋন খেলাপি ও অর্থ অত্মসাতের অভিযোগ

0
194

মনিরামপুর ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতির পক্ষে ইজারা টেন্ডার দাখিল : প্রকৃত মৎস্যজীবদের বিক্ষোভ প্রদর্শন
বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের মনিরামপুর উপজেলার ঝাঁপা বাওড় আবারও অর্থ ও পেশী শক্তি প্রদর্শন করে দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে স্থানীয় একটি মহল। অভিযোগ উঠেছে স্বয়ং ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতির সাবেক কমিটির সভাপতি কৃষ্ণপদ বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ কুমারসহ গুটি কয়েকজনের একটি গ্রুপ এই দখলের সাথে সরাসরি জড়িত। এ ঘটনার প্রতিবাদে বুধবার ইজারা টেন্ডারের দিন জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেছে ঝাঁপা অঞ্চলের প্রকৃত মৎস্যজীবী সদস্যরা।
সুত্র জানায়, ৬০৫ একরের বিশাল ঝাঁপা বাওড়ের ৬ বছরের ইজারা শেষ হলেও সমিতির সাধারণ সদস্যদের কোন লাভের টাকা দেয়নি সাবেক কমিটির নেতারা। সাবেক কমিটি ২০১১ সালের ২১ নভেম্বর ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতির নামে জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে ৬ বছরের ইজারা নেয়। ৪৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকায় নেয়া সেই ইজারার মেয়াদ শেষ হয়েছে এ বছরের চৈত্র মাসে।
লাখ লাখ টাকা আয়-রোজগার করলেও লোকসানের কথা বলে সদস্যদের কোন হিসেবতো দেয়নি। এমনকি সমিতির নামে ওই বাওড় ইজারা নেয়ার সময় সদস্যরা যে টাকা দিয়েছিলেন তাও ফেরত দেয়া হয়নি। এ অভিযোগ করে সমিতির সদস্য সুধাংশ বিশ্বাস জানান, তিনি ২ লাখ টাকা দিয়েছিলেন, তার মতো আরও প্রায় ১২২ জন মৎসজীবী সদস্য সাধ্যমতো টাকা দিয়েছিলেন। কিন্তু তারা এ টাকার কানা-কড়িও ফেরত পাননি। আবার সরকারের কাছে ৪৫ লাখ ও মাছের আড়তে দেনা আছি আরও প্রায় ১০ লাখ এ বলে সদস্যদেরকে বোঝানোর চেষ্টা করেছে ইজারাদার। এরই প্রতিবাদে ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতির গরিব ও অসহায় ১৭৯ কার্ডধারী সদস্যের মধ্যে ১২২ জন সদস্য মনিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে নালিশ করে পদত্যাগ করে।
এ অবস্থায় বাওড়টির নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে অনেকটা গোপনে আহবায়ক কমিটি গঠন করে সমবায় অফিসারকে ম্যানেজ করে অনুমোদন নিতে তোলজোড় করে দখলদার পক্ষটি। এক পর্যায়ে তারা ওই পদত্যাগকারী সদস্যদেরকে হত্যা ও ভারতে পাঠিয়ে দেবার হুমকি দিতে থাকে। কিন্তু মনিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, থানায় কর্মরত অফিসাররা ও জেলা সমবায় অফিসারের বিচক্ষনতার কারনে তাদের হুমকী কোন কাজে লাগেনি।
এদিকে আগামী মৌসুমে ইজারা পেতে বুধবার ইজারা টেন্ডারে যাতে কেউ অংশ গ্রহন করতে না পারে তার জন্য জেলা প্রশাসকের দপ্তরে বহু সন্ত্রাসী জড়ো করেন কৃষ্ণপদ বিশ্বাস ও সন্তোষ কুমার পক্ষরা। তবে যশোরের সংবাদকর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি দেখে ওই মস্তান-সন্ত্রাসীরা স্থান ত্যাগ করে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি কৃষ্ণপদ বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন, সরকারের কাছে ৪৫ লাখ ও মাছের আড়তে দেনা আছি আরও প্রায় ১০ লাখ। কি কারণে দেনা হলেন এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাছের ভাইরাস লেগেছিল, আবার বন্যায়ও বাওড় ডুবে গিয়েছিল। এক পর্যায়ে তিনি বলেন, বাওড়টি নিয়ন্ত্রন রাখতে যা যা করা দরকার সবই করা হবে।ইতিমধ্যে কমিটি গঠন করতে গিয়ে বাঁধা পেয়ে সাবেক কমিটির সভাপতি কৃষ্ণপদ বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক সন্তোষ কুমার গংরা প্রকৃত কার্ডধারী মৎস্যজীবীদের নামে মাছ লুটের অভিযোগ দিলে, অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়ে সত্যতা পাননি পুলিশের এসআই আনিস।ঝাঁপা বাওড়ের ইজারা টেন্ডার সম্পর্কে যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বলেন, সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী প্রকৃত মৎস্যজীবিদেরকে এই বাওড় লীজ দেয়া হবে। সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতির পক্ষে বুধবার ইজারা টেন্ডার দাখিল করা হয়েছে। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতি ঋন খেলাপি ও বর্তমানে সমবায় সমিতি থেকে কোন প্রত্যয়ন পায়নি। এছাড়া গত ২ মার্চ তারিখে জেলা সমবায় সমিতির পক্ষ থেকে দেয়া অডিট রিপোর্টে ঝাঁপা মৎস্যজীবী সমিতির গত কমিাটর কর্মর্তারা ব্যাপক অনিয়ম ও অর্থ আত্মসাত করেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ জাতীয় কারণে তারা বাওড় ইজারা পাবে না বলে সুত্রটি জানিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here