অতিথি পাখি নিধন বন্ধে চাই সচেতনতা

0
298

শীত এখনো জাঁকাইয়া বসে নাই। কিন্তু ইতোমধ্যেই দেশের খাল-বিলে আসিতে শুরু করিয়াছে নানা ধরনের অতিথি পাখি। উদ্বেগের ব্যাপার হইল—তাহাদের এই আগমনী বার্তায় যথারীতি একটি মহল সক্রিয় হইয়া উঠিয়াছে। আইনত নিষিদ্ধ হইলেও নির্বিচারে চলিতেছে অতিথি পাখি নিধন। প্রতি শীতে প্রায় প্রকাশ্যে এই ধরনের অপতত্পরতা চলিলেও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে এই ব্যাপারে খুব কমই উদ্যোগী হইতে দেখা যায়। তাহাদের এই উদাসীনতার সুযোগে এই সকল পাখি বিক্রিও হইতেছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। এমনকি কেহ কেহ আবার খদ্দেরদের নিকট হইতে অতিথি পাখি সরবরাহের অগ্রিম অর্ডারও নাকি লইতেছেন। অতএব, বিষয়টি আরো ভয়াবহ হইয়া উঠিবার পূর্বেই অতিথি পাখি শিকারিদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করা প্রয়োজন।

শীতে সুদূর সাইবেরিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ হইতে বাংলাদেশে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখি আসে। মূলত একটু উষ্ণ পরিবেশের জন্যই তাহারা হাজার মাইল পথ পাড়ি দেয়। আমাদের অতিথি হয় সীমিত সময়ের জন্য। কিন্তু এই সময়ে কিছু অসচেতন মানুষের লোভের কবলে পড়িয়া তাহাদের অধিকাংশই আর নিজ বাসস্থানে ফিরিয়া যাইতে পারে না। বিভিন্ন ধরনের ফাঁদ পাতিয়া কিংবা বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয় এইসকল পাখিকে। সাম্প্রতিক একটি পরিসংখ্যান হইতে জানা যায়, ৮০-এর দশকে এই দেশে প্রায় তিনশত প্রজাতির পাখি আসিত। কিন্তু বর্তমানে ইহার সংখ্যা ৭০ হইতে ৮০তে নামিয়া আসিয়াছে। এমনকি দেশীয় প্রজাতির পাখিও শঙ্কামুক্ত নহে। অবাধ নিধনের শিকার হইয়া বিগত কয়েক দশকে দেশ হইতে ২০টিরও বেশি প্রজাতির দেশি পাখি বিলুপ্ত হইয়া গিয়াছে। অথচ ২০১২ সালের বন্যপ্রাণি (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন অনুযায়ী, পাখি নিধনের সর্বোচ্চ শাস্তি এক লাখ টাকা জরিমানা ও এক বত্সরের কারাদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হইবার বিধান রহিয়াছে। একই অপরাধ পুনরাবৃত্তি করিলে শাস্তি ও জরিমানা দ্বিগুণ হইবে। কিন্তু হতাশার ব্যাপার হইল— আইনটির কার্যকর প্রয়োগ নাই বলিলেই চলে।

আমরা জানি, প্রাণী-শৃঙ্খল রক্ষায় পৃথিবীতে কোনো প্রাণীই কম গুরুত্বপূর্ণ নহে। বিশেষজ্ঞদের মতে. প্রকৃতিতে যদি পাখি না থাকে, তবে মারাত্মকভাবে কীটপতঙ্গ ও পোকা মাকড়ের বংশ বৃদ্ধি ঘটিতে পারে। অথচ বিশ্বের প্রায় সর্বত্রই গুটিকয়েক মানুষের লালসার শিকার হইয়া পাখি কিংবা বন্যপ্রাণী উভয়েরই অসংখ্য প্রজাতি আজ বিলুপ্তির পথে। আমাদের দেশে অতিথি পাখি নিধন লইয়া সম্প্রতি বেশ কয়েকটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হইয়াছে। আমরা আশা করি, এইসকল সংবাদ সূত্রকে ভিত্তি করিয়া স্থানীয় প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী এই ব্যাপারে আরো সক্রিয় হইবেন। কোথায় অতিথি পাখি ধরা হয় এবং কাহারা ধরে ও বিক্রি করে এইসকল তথ্য তাহাদের অজানা থাকিবার কথা নহে। অতিথি পাখি রক্ষায় তাহাদের যেমন কঠোর হইতে হইবে, তেমনি গড়িয়া তুলিতে হইবে ব্যাপক সামাজিক সচেতনতাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here