অদম্য মেধায় আলোকিত হলেও অন্ধকারে শাহিদার জীবন

0
302

আশানুর রহমান আশা,বেনাপোল : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের কৃতি সন্তান শাহিদা খাতুন। নেই দুটি পা, নেই অতি প্রয়োজনীয় ডান হাতটিও তার। বাম হাতটি পুঁজি করেই করেন চলাচল। অদম্য মেধাকে কাজে লাগিয়ে লেখা পড়া শিখে হয়েছেন আলোকিত মানুষ। ভাল কাজের জন্য জয়িতা সম্মাননা স্মারক পেলেও জীবন থেকে অন্ধকার কাটেনি তার। সমাজের একজন বিশেষ ব্যক্তি হলেও চরম অবহেলা আর কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হয়ে নিদারুণ কষ্টে দিন যাপন করছে শাহিদা খাতুন।

সরেজমিনে তথ্য অনুসন্ধানে জানা যায়, ঝিকরগাছা উপজেলার শিমুলিয়া ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামের চা দোকানি রফি উদ্দিনের কণ্যা শাহিদা খাতুন। জন্ম থেকেই দুই পা ও একটি হাত নেই তার। একটি মাত্র হাত নিয়ে ছুটে চলেন এখানে ওখানে। শারীরিক ভাবে বিশেষ প্রতিবন্ধি হলেও থেমে থাকেনি সে। অদম্য মেধা ও মনোবলে লেখা পড়া শিখে অনার্স মাস্টার্স শেষ করার পরও এক প্রকার মানবেতর জীবনযাপন করছেন শাহিদা খাতুন।
সমাজে বিশেষ এই নারীটি কৃতিত্বের সাথে লেখা পড়া শেষ করার পাশাপাশি শিখেছেন হাতের নানা রকম কাজ। হস্তশিল্প ও কুটিরশিল্পের ট্রেনিং নিয়ে নিজে কাজ করার পাশাপাশি অন্যকেও শেখাই শাহিদা।
দীর্ঘ পাঁচ বছর আগে মাস্টার্স শেষ করে একটি প্রতিবন্ধি স্কুলে স্ব-ইচ্ছায় বিনা পারিশ্রমে পাঠদান করেন বিশেষ এই মানুষটি। লেখা পড়া করার পাশাপাশি সমাজে বিভিন্ন কাজে অবদান রাখায় পেয়েছেন জয়িতা সম্মাননা স্মারক। তবে সরকারি বা বেসরকারি কোন কর্মসংস্থান না হওয়ায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন শাহিদা ও তার পরিবার।
সাহিদা খাতুন জানায়, এত লেখা পড়া শিখে, এতোগুলো কাজ শিখে আজও আমি সমাজ ও পরিবারের জন্য বোঝা হয়ে আছি। সরকারি বা বেসরকারি ভাবে প্রতিবন্ধি কোঠায় আমাকে যদি একটি কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয় এবং একটি প্রতিবন্ধী স্কুল করতে সাহায্য করা হয় তাহলে আমার ও আমার পরিবারে স্বচ্ছলতা ফিরে আসবে।
এদিকে শাহিদা খাতুনের বর্তমান অবস্থা জানতে পেরে গতকাল শাহিদার বাড়িতে ছুটে যান শার্শার কৃতি সন্তান উদ্ভাবক মিজানুর রহমান। সাথে নিয়ে যান একটি হুইলচেয়ার এবং পবিত্র আল কোরআন। এসময় উদ্ভাবক মিজানুর রহমান বলেন, সমাজে এই শাহিদার মতো আরো অনেক শাহিদা আছে। এমন প্রতিভাবান বিশেষ ব্যক্তির পাশে দাঁড়াতে সকল সেবা সংগঠনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। সেই সাথে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আবেদন জানাচ্ছি তিনি যেন সরকারি বা বেসরকারি ভাবে বিশেষ কোটায় শাহিদার জন্য তার যোগ্যতা অনুযায়ী একটি কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেন।

যার হাত পা নেই সেই প্রকৃত গরীব। সুবিধা বঞ্চিত বিশেষ প্রতিবন্ধি এই গর্বিত মেয়েটির পাশে দাঁড়াতে সরকারের একটু দৃষ্টি ভাগ্য বদলে যাবে শাহিদার, এমনটি মনে করেন শাহিদার মা বাবা ও সচেতন মহল।