অধিকাংশ সরকারি দপ্তরে তথ্যপ্রদানকারী কর্মকর্তা নেই’

0
34

যশোরে তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে গোলটেবিল বৈঠক
নিজস্ব প্রতিবেদক: আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষ্যে যশোরে গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকালে প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের আয়োজনে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
স্বাগত বক্তব্যে সুজন জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক তাহমিদ আকাশ বলেন, গোল টেবিল বৈঠকের জন্য যশোরে জেলা পর্যায়ের অন্তত ১০টি শীর্ষ সরকারি প্রতিষ্ঠানে আমন্ত্রণপত্র দিতে গেছি। বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে তাদের তথ্য প্রদানকারী কোন কর্মকর্তা নেই। তারা গোলটেবিল বৈঠকের আমন্ত্রণপত্রটিও গ্রহণ করেননি। তথ্য অধিকার আইন বাস্তবায়নে এটি একটি বড় অন্তরায়। আইনে বলা আছে, প্রত্যেকটি দপ্তর তথ্যপ্রদানকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত করবে। সেটি বাস্তবায়ন হচ্ছে না।’
সুজন যশোর জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট সালেহা বেগমের সভাপতিত্বে গোল টেবিল বৈঠকে বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, বিশেষ অতিথি প্রেসক্লাবের সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ফারাজাী আহমেদ সাঈদ বুলবুল, সিভিল সার্জন অফিসের স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মকর্তা ডা. গিয়াস উদ্দিন। আলোচনা করেন সুজন যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এএসএম আতিকুর রহমান সাঈদ, প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন, দপ্তর সম্পাদক তৌহিদ জামান, নির্বাহী কমিটির সদস্য শিকদার খালিদ, সাংবাদিক ইন্দ্রজিৎ রায় ও স্বপ্না দেবনাথ। সঞ্চালনা করেন সমাজকর্মী শাহজান নান্নু।
বক্তরা বলেন, দেশের সব আইন জনগনের উপর প্রয়োগ হয়। একটি মাত্র আইন জনগণ রাষ্ট্রের উপর প্রয়োগ করতে পারে। সেটি হলো তথ্য অধিকার আইন। জনসচেতনতার অভাবে সেই আইনটি যথাযথভাবে প্রয়োগ হচ্ছে না। তথ্য প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের অজ্ঞতা ও আন্তরিকতার অভাবে আইনটি বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জ হয়ে পড়েছে। এ আইন সম্পর্কে সবাইকে সচেতন ও প্রয়োগে উদ্ধুদ্ধ করতে হবে।
বক্তারা আরও বলেন, তথ্য অধিকার আইন নিয়ে অনেকের মধ্যেই নেতিবাচক ধারণা আছে। এই আইন রাষ্ট্রের সকল নাগরিকের জন্য প্রণীত হয়েছে। তবে এ আইন অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার জন্য সুরক্ষা কবজ হিসেবে ব্যবহার করা যায়। অনুসন্ধানী সাংবাদিকের বড় হাতিয়ার তথ্য অধিকার আইন।