অনাবৃষ্টির কারনে স্বপ্ন ভেঙেছে শার্শার আম চাষিদের

0
480

আরিফুজ্জামান আরিফ বাগআঁচড়া : প্রচন্ড তাপদাহ আার অনাবৃষ্টির কারনে স্বপ্ন ভেঙেছে শার্শার আম চাষিদের। গাছ তলায় বিছিয়ে পড়েছে আম। স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার। লন্ডভন্ড হয়ে গেছে আগামী দিনের সোনালী স্বপ্ন।

অবস্হা দেখলে মনে হবে কালবৈশাখী ঝড়ের তাণ্ডব। কিন্তু না। প্রচণ্ড তাপদাহ আর খরাতাপ আর বৃষ্টির অভাবে গাছ থেকে আমের গুটি ঝরে এ করুন হাল হয়েছে।
ফলে  এতদিন ধরে লাভের আশা নিয়ে আম চাষিরা যে  স্বপ্ন দেখে আসছে তা সব মিথ্যা ও ধুলোর সাথে ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হিরক কুমার সরকার বলছেন, এটা তাপমাত্রাজনিত সমস্যা। জমিতে নিয়মিত পানি সেচ ও স্প্রে করলে ক্ষতির হাত থেকে কিছুটা রক্ষা পাওয়া যেতে পারে।
সরেজমিনে শার্শার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, খরচ কম আর লাভ বেশি হওয়ায় গত ৫ বছরে অনান্য  ফসলের আবাদ  ছেড়ে চাষিদের আগ্রহ বেড়েছে  আম চাষে। ফলনও ভালো হয়েছিল। তবে এ বছরে এ পর্যন্ত বৃষ্টির দেখা  না মেলায় এবং  তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় গাছের ফেটে যাচ্ছে আম, শুকিয়ে ঝরে পড়ছে গাছ তলায়। প্রতিটি আম বাগানে গেলে মনে হবে আমের বিছানা পেতে রাখা হয়েছে।গাছ প্রায় আম শুন্য হয়ে গেছে।ফলে একদিকে মহাজনদের ধার দেনা পরিশোধ ও অন্যদিকে নিজেদের লোকসানের কথা ভেবে চাষিদের মাথায় হাত উঠেছে।বন্দর নগরী  বেনাপোল বাজারের আমের আড়তদার হযরত। এবছর তিনি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়  প্রায় ৩০ বিঘা জমি চাষিদের কাছ থেকে  বর্গা নিয়ে আম গাছের পরিচর্যা করে আসছেন। এ আম নিয়ে তার অনেক স্বপ্ন। ফলনও ভালো হয়েছিল। কিন্তু  দিন দিন রোদের তীব্র তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় তার গাছের অধিকাংশ আম ইতিমধ্যেই ঝরে পড়েছে। এতে তার দেখা লালিত সব স্বপ্ন যেন মিথ্যা হয়ে গেছে।তিনি আরো জানান এবছর তার প্রায় ২৫ লাখ টাকার আম বিক্রির পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু যে অবস্থা তাতে অর্ধেক টাকাও পাওয়া যাবে না। এতে তার বড় আকারের লোকসান হয়ে যাবে।
বড় আঁচড়া গ্রামের আমচাষি  হোসেন মাস্টার জানান, একদিকে সার,বীজ ও-কীটনাশকের দাম উর্দ্ধমুখী। অন্যদিকে দিন দিন রোগ বালায় বাড়তে থাকায়  গত ৫ বছর ধরে তিনি ধান চাষ কমিয়েছেন। কম খরচে লাভ ভালো হওয়ায় ঝুঁকে পড়েছেন আম চাষে। এবছর ৯ বিঘা জমিতে আম চাষ করেছেন। গত বছরও ভালো লাভ হয়েছিল। কিন্তু এবার বৃষ্টির অভাবে তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় গাছ থেকে যেভাবে আম ঝরে পড়ছে তাতে শেষ পর্যন্ত আদৌ আম টিকবে কিনা সন্দেহ।
একই  কথা এলাকার  আমচাষি মেহেরের ছেলে রফিকুলের।তিনি বলেন, ৫ বছরের জন্য ১১ বিঘা জমি বর্গা নিয়ে আমের চাষ করেছি। এবছরে এখন পর্যন্ত বৃষ্টির দেখা নেই। এতে প্রচন্ড খরায় আম ঝরে যে লোকসান হয়েছে তাতে মহাজনের দেনা কিভাবে মেটাবো তা নিয়ে চিন্তায় পড়েছি।
শার্শার কায়বা ইউনিয়নের রাড়িপুকুর গ্রামের ব্যবসায়ী নূর মোহাম্মদ শেখ। ব্যবসায় লোকসানের কারণে বাড়িতে বসা ছিলেন। এক পর্যায়ে সবার দেখা-দেখি তিনিও আম চাষ শুরু করেন। বর্তমানে ২০ বিঘা জমিতে তার বাগান রয়েছে। তীব্র খরায় তিনিও ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার হিরক কুমার সরকার রোববার বলেন, অতিরিক্ত তাপমাত্রার আর অনাবৃষ্টির কারণে আম অধিকহারে ঝরে যাচ্ছে। জমিতে নিয়মিত পানি সেচ ও স্প্রে করলে ক্ষতির হাত থেকে কিছুটা রক্ষা পাওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে ১০ লিটার পানিতে ২০ গ্রাম ইউরিয়া মিশিয়ে স্প্রে অথবা লুট্রাফস ২৪ নামে তরল ওষুধ ব্যবহার করা যেতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here