অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ২০ হাজার হজযাত্রীর সৌদি গমন

0
286

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে হজ করেছেন এমন ব্যক্তিদের ২০১৭ সালে হজ পালন করতে হলে ভিসা আবেদনপত্রের সঙ্গে ২ হাজার সৌদি রিয়াল (বাংলাদেশি ৪৫ হাজার টাকা) জমা দিতে হবে, অন্যথায় ভিসা ইস্যু হবে না। রাজকীয় সৌদি সরকারের এ নিয়মের বেড়াজালে বাংলাদেশি ২০ হাজার ব্যক্তির হজ পালন নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এই নিয়ম চালুর কারণে হজ ভিসা ইস্যু নিয়েও জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে হজফ্লাইট নিয়েও চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছে। হজ এজেন্সিগুলো তাদের আবেদন করা ভিসা না পাওয়ায় ফ্লাইটের টিকিট সংগ্রহ করছেন না। এর ফলে পর্যাপ্ত হজযাত্রী না পাওয়ায় হজফ্লাইট বাতিল করা হচ্ছে। গতকাল সোমবারও একটি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। এ নিয়ে গত তিনদিনে মোট সাতটি হজফ্লাইট বাতিল করা হলো। হজ এজেন্সি মালিকরা জানিয়েছেন, সৌদি সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকার আলাপ-আলোচনা করে দ্রুত সময়ের মধ্যে বিষয়টির সমাধান না করলে পরিস্থিতি ভয়ানক আকার ধারণ করবে। একের পর এক ফ্লাইট বাতিল হলে শেষ মুহূর্তে হজযাত্রী পরিবহন নিয়ে চরম সংকট তৈরি হবে।
হাবের মহাসচিব মো. শাহাদাত হোসেন তছলিম বলেন, ২০১৭ সালের জন্য সরকার যে হজ প্যাকেজ ঘোষণা করেছে, হজযাত্রীরা ওই প্যাকেজ অনুযায়ী এজেন্সি মালিকদের কাছে হজের টাকা জমা দেন। এ বছর হজ ব্যবস্থাপনায় কাজ করছে ৬৩৫টি এজেন্সি। এসব এজেন্সির মালিক হজযাত্রীর সৌদি আরবে বাড়িভাড়া, খাওয়া খরচ ও মুয়াল্লেম ফি বাবদ যে অর্থ লাগবে তা ইন্টারন্যাশনাল ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বরের (আইবিএএন) মাধ্যমে সৌদি আরব পাঠিয়ে দিয়েছে। এর পর এজেন্সি মালিকরা তাদের হজযাত্রীর নামে ভিসার জন্য ই-হজ সিস্টেমে লজমেন্ট করেছে। কিন্তু ভিসা ইস্যুর সময় দেখা যায়, একটি হজ এজেন্সি যত হজযাত্রীর ভিসার জন্য লজমেন্ট করেছে, ততজন হজযাত্রীর নামে ভিসা হয়নি। কারণ যারা ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে হজ করেছেন, তাদের ভিসার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ২ হাজার রিয়াল চায় রাজকীয় সৌদি সরকার। এখন ওই পরিমাণ টাকা তো হজ এজেন্সির আইবিএএনে জমা নেই। ফলে ২০১৫ এবং ২০১৬ সালের হজ পালনকারীদের ২০১৭ সালে হজ ভিসা ইস্যু করা হচ্ছে না। সৌদি সরকার হঠাৎ করে এই নিয়ম চালু করায় বিপাকে পড়েছে এজেন্সি মালিক ও প্রায় ২০ হাজার হজযাত্রী। এজেন্সি মালিকরা তার সব হজযাত্রীর নামে ভিসা না হওয়ায় বিমানের টিকিট সংগ্রহ করছেন না। ফলে ফ্লাইট বাতিল হচ্ছে বারবার।
তিনি আরও বলেন, আমরা সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছে বিষয়টি নিয়ে যেন সৌদি সরকারের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া হয়। সরকারের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়, তা হলে সংশ্লিষ্ট হজযাত্রীরা দুই হাজার রিয়াল করে দিয়ে ভিসা পাবেন। সরকার কোনো বিজ্ঞপ্তি না দিলে হজযাত্রী টাকাও দেবে না।
হজ অফিসের পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, ২০১৭ সালে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ বাংলাদেশি হজ পালনের জন্য সৌদি আরব যাবেন। এর মধ্যে সোমবার সকাল পর্যন্ত ৪১ হাজার ৭১৪ জনের নামে ভিসা ইস্যু করা হয়েছে। ভিসাপ্রাপ্তদের মধ্যে ২৩ হাজার ৫৬৯ জন সৌদি আরব গেছেন। তবে পর্যাপ্ত সংখ্যক হজযাত্রী না পাওয়ায় গতকাল সোমবার সকাল ১০টা ১৫ মিনিটের একটি হজফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে।
এর আগে শনিবার দুইটি ও রবিবার চারটিসহ মোট ছয়টি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। হজফ্লাইট শুরুর এক সপ্তাহ পর টানা তিনদিন ধরে ফ্লাইট বাতিলের কারণে হজফ্লাইটের ক্ষেত্রে হ-য-ব-র-ল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে চলতি বছর ভয়ানক পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে বলে জানান হজ এজেন্সি মালিকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here