বিভিন্ন অভিযোগে জর্জরিত উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা !

0
142

নিজস্ব প্রতিনিধি

যশোরের চৌগাছা উপজেলা প্রানী সম্পদ অফিস দূর্নীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা প্রভাষ চন্দ্র গোস্বামীর বিরুদ্ধে উপজেলার একাধিক ব্যক্তি এমনকি উপজেলা পরিষদের শীর্ষ এক জনপ্রতিনিধি এর চেয়ে অধিক গুরুতর অভিযোগ করেছেন। সরকারি কাজে অদক্ষতা,স্বেচ্ছাচারিতা এবং বিভিন্ন সাহায্য প্রার্থীদের গুরুত্ব না দেওয়া,ঠিকমতো অফিস না করা এমনকি অর্থ বানিজ্যের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকল্পে জামাত বিএনপির বাছাইকৃত লোকজনকে নিয়োগ দেওয়ার মতো অভিযোগও উঠেছে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

চৌগাছা উপজলো পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক দেবাশীষ মিশ্র জয় বলেন, উপজেলাতে প্রানী সম্পদের যে একটি অফিস আছে তাইতো জানানেই। এ অফিসের কোনো হিসাব এমনকি কোনো তথ্যই আমরা জানিনা। সম্পূর্ন নিজের মতো করে কাজ করেন এই কর্মকর্তা। দীর্ঘদিন একই উপজেলাতে কর্মরত এই কর্মকর্তা কাউকেই তেমন গুরুত্বদেননা। ওই অফিসে জাহাঙ্গীর নামে জামাতের এক ছেলে আছে। সেই মূলত প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা এবং সেই ওই প্রভাষ কুমার গোস্বামীকে পরিচালনা করে। এ পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্পসহ ওই অফিসের বিভিন্ন পর্যায়ে যেসমস্ত নিয়োগ হয়েছে সেসকল পদে ওই জাহাঙ্গীরের মাধ্যমে অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে তিনি নিয়োগ দিয়েছেন। ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে করোনাকালিন বিভিন্ন প্রনোদনার নয়ছয়ের অভিযোগে তুলে জয় বলেন তিনি মোটেও ভাল কর্মকর্তা না।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হুমায়ুন কবির সোহেল বলেন,একজন অদক্ষ কর্মকর্তা এই প্রভাষ চন্দ্র গোস্বামী।

খোদ উপজেলা চেয়ারম্যান ড.মোস্তানিছুর রহমানের কার্যালয়ে বসেই ফারুক নামে চৌগাছা পৌরএলাকায় একজন বাসিন্দা জানালেন, ওই অফিসে ঠিকমতো সাহায্য পাওয়া যায়না। প্রায় সময় তো তিনি অফিসেই থাকেননা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলার একজন সরকারি কর্মকর্তা বলেন তাকে ঠিকমতো অফিসে পাওয়া যায়না বিষয়টি সত্য।

এ সকল অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাওয়া মাত্রই রুক্ষ মেজাজে কথা বলতে শুরু করেন চৌগাছা উপজেলা প্রানী সম্পাদ কর্মকর্তা প্রভাষ চন্দ্র গোস্বামী। তিনি জানতে চান “আমার বিরুদ্ধে কে অভিযোগ করেছে?” বিভিন্ন ভ’ক্তভোগীসহ উপজেলা পরিষদের শীর্ষ এক জনপ্রতিনিধির কথা বলতেই রাগে গজ গজ করতে করতে তিনি বলেন সব মিথ্যা। আর পায়ে পাড়া দিয়ে ঝগড়ার চেষ্টা করবেন না বলেও এই প্রতিনিধিকে সাবধান করে উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা প্রভাষ চন্দ্র গোস্বামী বলেন আপনি আমার অফিসে আসেন সেখানে কথা বলবো।
এসকল অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইরুফা সুলতানার দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে তিনি বলেন এসকল অভিযোগের বিষয়ে কেউ আমাকে মৌখিক বা লিখিত অভিযোগ করেননি।

উল্লেখ্য করোনাকালিন সরকারি বিভিন্ন প্রনোদনা প্রদানে অর্থ বানিজ্যের অভিযোগে এই কর্মকর্তা সংবাদের শিরনাম হয়েছিলেন।