অন্ধকূপে পরিণত হয়েছে রাষ্ট্রীয় ব্যাংক

0
251

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাণিজ্যিক ও সরকারি নানা ধরনের সেবা দেওয়ার উদ্দেশ্যে ব্যাংক পরিচালনা করছে সরকার। আয় বাড়ানোর উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠিত ব্যাংক সরকারের শুধু ব্যয়ই বাড়াচ্ছে। কার্যক্রমে যতটুকু আয় করছে তার তুলনায় ব্যয়ের পরিমাণ অনেক বেশি। এক হিসাবে দেখা যায়, ১০০ টাকা আয় করতে সরকারি ব্যাংকগুলোর ব্যয় হচ্ছে ১২৫ টাকা। লোকসান মেটাতে প্রতিবছরই করের টাকা থেকে অর্থের জোগান দিচ্ছে সরকার। কিন্তু অন্ধকূপে পরিণত হওয়া সরকারি ব্যাংকগুলো জোগানের টাকাও খেয়ে ফেলছে।

ব্যাংকগুলোর আয়-ব্যয় অনুপাত (ইআই) করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে দেখা যায়, দেশের সমগ্র ব্যাংকিং খাতে ২০১১ সালে ১০০ টাকা আয় করতে ৬৮ টাকা ৬০ পয়সা ব্যয় করতে হয়েছে। নিত্য খরচ মিটিয়ে ব্যাংক খাতে ৩১ টাকা ৪০ পয়সা লাভ করে। অথচ ২০১৬ সালে ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৯ টাকা ৮০ পয়সায়। এ ব্যয় বাড়ার কারণ সরকারি খাতের ব্যাংকগুলো।

ওই প্রতিবেদনে দেখা যায়, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ৮ ব্যাংকের (বাণিজ্যিক ও বিশেষায়িত) ২০১১ সালে ১০০ টাকা আয় করতে ব্যয় করে ৭৫ টাকা ৬৫ পয়সা। ওই সময় রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলো শতকরা ২৪ টাকা ৩৫ পয়সা মুনাফা করে। কিন্তু ২০১৬ সালে এ ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১৫ টাকা ৭০ পয়সা। প্রতি শতকে এ খাতের ব্যাংকগুলোর লোকসান ১৫ টাকা ৭০ পয়সা।

পরিচালনায় সবচেয়ে বেশি লোকসান করছে সরকারি মালিকানাধীন বিশেষায়িত দুই ব্যাংক বাংলাদেশ কৃষি ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক। ব্যাংক দুটি ২০১১ সালে শতকরা ১১ টাকা ৪০ পয়সা মুনাফা করলেও ২০১৬ সালে প্রতি শতকে ৩২ টাকা ২০ পয়সা লোকসান করছে। ব্যাংক দুটির ব্যয়-আয়ের অনুপাত ৮৮ দশমিক ৬ শতাংশ থেকে বেড়ে ১৩২ দশমিক ২ শতাংশ হয়েছে। রাষ্ট্রীয় ৬ বাণিজ্যিক ব্যাংকের (সোনালী, অগ্রণী, জনতা, রূপালী, বিডিবিএল ও বেসিক) ২০১১ সালে ১০০ টাকা করতে ৬২ টাকা ৭০ পয়সা ব্যয় করে। ওই সময় শতকরা লাভ দাঁড়ায় ৩৭ টাকা ৩০ পয়সা। কিন্তু ২০১৬ সালে প্রতি শতকে ব্যয় হয়েছে ৯৯ টাকা ২০ পয়সা। ওই প্রতিবেদনে দেখা যায়, বেসরকারি খাতের এ ব্যয় ক্রমশ কমেছে। পাঁচ বছর আগে ১০০ টাকা আয় করতে ৭৩ টাকা ৫০ পয়সা ব্যয় হলেও গত বছরে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৭১ টাকা ৭০ পয়সায়। অন্যদিকে সর্বনি¤œ ব্যয় থাকা বিদেশি খাতের ব্যাংকগুলোর এ ব্যয় আরও কমেছে। আগে যেখানে প্রতি ১০০ টাকা আয় করতে ৪৭ টাকা ৩০ পয়সা ব্যয় হতো গত বছরে তা কমে হয়েছে ৪৫ টাকা।

ওই প্রতিবেদনে বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, সরকারি ব্যাংকগুলোর ব্যবস্থাপনা ব্যয় এবং পরিচালন ব্যয় অনেক বেশি। যে কারণে এ খাতের ব্যাংকগুলোর আয়ের তুলনায় ব্যয় অনেক বেশি।

সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ওবায়েদ উল্লাহ আল মাসুদ বলেন, আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি বলে আমাদের লোকসানে পড়তে হয়। আয় কম হওয়ার অন্যতম কারণ খেলাপি ঋণ ও নতুন ঋণ বিতরণ করতে না পারা। আমাদের ১ লাখ কোটি টাকা আমানত রয়েছে। কিন্তু ঋণ বিতরণ করেছি মাত্র ৩৮ হাজার কোটি টাকা। ঋণ আমানতের হার (এডিআর) মাত্র ৩৮ শতাংশ। লাভ করতে হলে কমপক্ষে ৪০ শতাংশ হতে হবে। কর্মকর্তা ঋণ দিতে ভয় পাচ্ছেন। ভয়ের কোনো কারণ নেই। নিয়ম মেনে ঋণ দিলে কেউ বিপদে পড়বে না। ব্যাংক থেকে অবশ্যই ঋণ করতে হবে এতে ভয়ের কিছু নেই।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান ও জাতীয় বাজেট পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত পাঁচ বছরে লোকসানে মূলধন খোয়ানো সরকারি ব্যাংকগুলোর জন্য ১৫ হাজার কোটি টাকা জনগণের কাছ থেকে সংগৃহীত কর থেকে জোগান দিয়েছে সরকার। এর মধ্যে গত অর্থবছরে ১ হাজার ৮০০ কোটি, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৫ হাজার ৬৮ কোটি, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৫ হাজার কোটি ও ২০১২-১৩ অর্থবছরে ৫৪১ কোটি টাকা জোগান দিয়েছে সরকার। চলতি অর্থবছরের বাজেটে মূলধনের জোগান দিতে বাজেটে ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ইতোমধ্যে কয়েকটি ব্যাংক মূলধন চেয়ে সরকারের কাছে আবেদন করেছে। বছর শেষে ৫ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি রয়েছে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা।

এদিকে গত বছরে পরিচালনায় নিট লোকসানে পড়েছে ৪টি ব্যাংক। বিপুল পরিমাণ ঋণখেলাপি হয়ে যাওয়ায় আয় আটকে গেছে রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোর। আর্থিক অবস্থার উন্নতিতে আবার মূলধন জোগানের প্রয়োজন হবে।

রূপালী ব্যাংকের এমডি মো. আতাউর রহমান প্রধান বলেন, একদিকে বেতন বাড়ানো হয়েছে। অন্যদিকে ঋণের সুদ হার কমছে। আবার খেলাপি ঋণ বাড়ছে। সবমিলিয়ে আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here