অন্যত্রে বিয়ে করার পরও তথ্য গোপন করে সাবেক স্বামির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা

0
235

নারী নির্যাতনের মামলা ফেলে এবার পুরুষকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে এক মহিলার বিরুদ্ধে..

রাসেল মাহমুদ, রূপদিয়া: মোবাইল ফোনে অন্যত্রে কথা বলার প্রতিবাদ করায় স্বামির সাথে দ্বন্দের সৃষ্টি। সংসারে চরম অশান্তি শেষমেশ ডিভোর্স ও সর্বশেষ স্বামির নামে আদালতে মামলা দায়ে করেছে বৌ। স্বামিকে যৌতুক ও নারী নির্যাতন মামলায় ফাঁসিয়ে যশোর সদর উপজেলার কচুয়া ইউনিয়নের নিমতলি গ্রামের মৃত- দাউদ মোড়লের ছেলে প্রেমিক বাবুল মোড়লের সাথে ঘর বেঁধেছে মক্ষিরানী সেলিনা খাতুন (৩৭)। দুইটি সন্তান রেখে প্রেম করে গোপনে বিয়ে করার পরও হয়রানি করতেই সাতক্ষীরা জেলার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মিথ্যা তথ্য প্রদান করে সাবেক স্বামির নামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০( সংশোধনী)/০৩ এর ১১(গ) /৩০ ধারা মোতাবেক যৌতুক আইনে মামলা দায়ের করে হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার কাউরিয়া গ্রামের মো. নুরুল ইসলামের মেয়ে মোছা. সেলিনা খাতুন (৩৭) এর বিরুদ্ধে। এবিষয়ে ভুক্তভুগী একই এলাকার আব্দুল মোল্লার ছেলে হারুন অর রশিদ বলেন- সংসার জীবনে রেহমনী খাতুন (১৭) ও রনি ইসলাম (৮) নামের দুইটি সন্তান রয়েছে। কিন্তু দুইটি সন্তান থাকা শর্তেও দিন-রাত মোবাইল ফোনে কথা বলতে থাকতো এই ঘটনা একদিন যানাযানি হলে সংসাওে অশান্তি সৃষ্টি হয়। দুই সন্তানের ভবিষৎ এর কথা চিন্তা করে অনেক চেষ্টা করেও কোনো পরিবর্তন না হওয়ায় অশান্তি তব্র আকারের হয়ে যায়। এক পর্যায়ে এই বয়সে তালাক দিতে বাধ্য হই। কিন্তু সেলিনা আগে থেকে মোবাইলে সম্পর্ক ছিলো যশোর সদর উপজেলার কচুয়া ইউনিয়নের নিমতলি গ্রামের মৃত- দাউদ মোড়লের ছেলে প্রেমিক বাবুল মোড়লের সাথে। আমার বাড়ি থেকে নগদ টাকা, মুল্যবান জিনিষপত্র নিয়ে সেই প্রেমিকে সাথে ঘর বেঁধেছে সেলিনা। বাবুলের সাথে বিয়ে করে সংসার করার পরও আমাকে সহ আমার পরিবারের ৪/৫ সদস্যকে আসামী করে বিজ্ঞ জুডিমিয়াল ম্যাজি: সাতক্ষীরা আদালতে ২/১১/২০১৪ তারিখে একটি মামলা দায়ের করে যার নং সি আরপি ২৫০/১৪ ও জিআর-৩০৮/১৪ পরবর্তিতে ১৯/১২/২০১৪ ইং তারিখে কলারোয়া থানায় আরো একটি মামলা দায়ের করে সেলিনা খাতুন যার নং ২৩। নিজের বিয়ের তথ্য গোপন করে আমাকে ফাঁসানোর জন্যই এই মামলা দায়ের করেছে সেলিনা। এদিকে সেলিনা খাতুনের দ্বায়েরকৃত মামলার এজাহারে উল্লেখ করেছেন তার স্বামি হারুন অর রশিদের সাথে ১৮ বছর পূর্বে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। সংসার জীবনে তাদের দুইটি সন্তান জন্ম গ্রহণ করে। স্বামি হারুন অর রশিদ একজন রাজমিস্ত্রি। সে সুবাদে গদখালী গ্রামের জনৈক প্রবাসীর ঘর নির্মান করতে গিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে সম্পর্ক করে গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করে এখানে সেখানে লুকিয়ে রাখতে থাকে। সেলিনা খাতুন জানতে পেরে এর প্রতিবাদ জানায়। তখন স্বামী হারন অর রশিদ ৮০ হাজার টাকা যৌতুক দাবি করে। তার চাহিদা পূরণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় বিভিন্ন সময় নিপিড়ন নির্যাতন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। তখন সে নিরুপায় হয়ে যৌতুক আইনে সাতক্ষীরা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের শরানপন্ন হই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here