অপরাধদমনের নানান দিক

0
384

হঠাত্ করিয়া রাজধানীতে ছিনতাইকারীদের তত্পরতা বৃদ্ধি পাইয়াছে। অর্থ হাতাইয়া লওয়া, মোবাইল ফোন ছিনতাই, সিএনজি অটোরিকশার ছাদ কর্তন ইত্যাদিসহ নানান অপরাধের সহিত যুক্ত ছিনতাইকারীরা। তাহারা বাস টার্মিনাল, রেল স্টেশন ও লঞ্চঘাট এলাকায় যাত্রীদের টার্গেট করিয়া তাহাদের নিকট হইতে মূল্যবান জিনিস ছিনাইয়া লইয়া যায়। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, কারওয়ান বাজার, সোনারগাঁও মোড়, বাংলামটর হইল ছিনতাইপ্রবণ এলাকা। ছিনতাইপ্রবণতা বৃদ্ধির প্রতিবেদন নানান সংবাদপত্র ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশিত হইবার পরিপ্রেক্ষিতে বিগত মঙ্গলবার রাতে ওই সকল এলাকায় অভিযান চালাইয়া ছিনতাইয়ের অভিযোগে ৫৬ জনকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। বিভিন্ন বাস টার্মিনাল হইতেও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মামলা করা হইয়াছে। অন্যদিকে ছিনতাই ব্যতীত অন্যান্য ধরনের অপরাধও হ্রাস না পাইয়া বৃদ্ধিই পাইতেছে। গত ১২ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের কর্ণফুলি এলাকায় এক ডাকাতির ঘটনায় চারজন অপরাধীকে গ্রেফতার করিয়াছে পুলিশ। ডাকাতরা কেবল ডাকাতিই করে নাই, একইসঙ্গে চার নারীকে ধর্ষণের ঘটনাও ঘটাইয়াছে। ধর্ষণের শিকার নারীবৃন্দ থানায় মামলা করিতে গেলে পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে স্থানীয় অধিবাসীদের দাবির মুখে ও ভূমি প্রতিমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে পুলিশ মামলা নিতে বাধ্য হয়।
এই দুই ঘটনার দুইটি দিকমাত্রা রহিয়াছে। দ্বিতীয় ঘটনায় অপরাধ দমনে পুলিশের অনীহা প্রকাশ পাইয়াছে। প্রথম ঘটনায় পুলিশের আন্তরিকতায় অপরাধীদের প্রায় পুরা চক্রকে ধরিয়া ফেলা সম্ভব হইয়াছে। সর্বকালে অপরাধীর অস্তিত্ব ছিল, চ্যালেঞ্জ হইল আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কতটুকু আন্তরিকতা ও দক্ষতার সহিত অপরাধীদের দমনে সচেষ্ট থাকিতেছে এবং দৃষ্টান্তমূলক বিচারিক প্রক্রিয়ায় তাহাদের যুক্ত করিবার মধ্য দিয়া বৃহত্তর জনমনে প্রশান্তি আনিয়া দিতেছে। অপরাধীদের সংখ্যা অল্পই হইয়া থাকে, কিন্তু তাহারা সংখ্যাগরিষ্ঠ সাধারণ মানুষের জন্য বিপদ-উপদ্রব-ভীতির কারণ হইয়া থাকে। পুলিশের কাজই হইল-আন্তরিকতা ও দক্ষতার সহিত এইসকল অপরাধী বিরুদ্ধে সদাসক্রিয় থাকা। ছিনতাই-ডাকাতি-ধর্ষণ ব্যতীত অপরাধের আরো ধরন রহিয়াছে। সব ধরনের অপরাধই দমন হওয়া প্রয়োজন।
আবার অপরাধকে কেবল ঘটনাকেন্দ্রিক বিবেচনায় নিলে হইবে না। দারিদ্র্য-বেকারত্ব ও সামাজিক বৈষম্য সাধারণ যুবকদের ক্রমশ অপরাধীতে পরিণত করে। গ্রেফতার, গণপিটুনি, হাজতবাস ইহাদের ভাগ্যেই জোটে। অথচ ইহাদের পোষণকারীরা ধরাছোঁয়ার বাহিরে থাকিয়া যায়। ছিনতাইকারীদের হাত হইতে সাধারণ নাগরিকদের যেমন নিরাপত্তা বিধান করিবার প্রয়োজন রহিয়াছে, সেইক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন অনেকক্ষেত্রে সম্ভবও; পাশাপাশি সাধারণ যুবকদের ছিনতাইকারী কিংবা অনুরূপ অপরাধীতে রূপান্তরিত হইবার সামাজিক ব্যাধিটিও সারাইতে হইবে। অপেক্ষাকৃত উত্তম পারিবারিক-সামাজিক-অর্থনৈতিক পরিবেশ পাইলে, উত্তম পেশায় যুক্ত হইবার সুযোগ পাইলে অপরাধে যুক্ত যুবকদের কেহই অপরাধী হইতে আগ্রহী হইত না। এই বিষয়টিতে সাফল্য আনয়ন অপেক্ষাকৃত কঠিন কিন্তু একেবারে অসম্ভব নহে। বিশেষত এইক্ষেত্রে চট করিয়া সাফল্য পাইবার সম্ভাবনাটি কম। কারণ যুগ যুগ ধরিয়া সমাজে বিদ্যমান সামাজিক বৈষম্য ও দারিদ্র্য এবং ইহার রেশ ধরিয়া জমিয়া উঠা বেকারত্ব-হতাশা-মাদকাসক্তি দূর করিতে হইলে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা লইতে হইবে। ঢাকা কেন্দ্রিক একতরফা মনোযোগকে হটাইয়া বিকেন্দ্রিকরণের মাধ্যমে প্রান্তিক পর্যায়ে সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি ও কর্মক্ষেত্র সৃষ্টি করিতে হইবে। পরিবার ও বিদ্যালয় হইতে নৈতিকতার শিক্ষাও জোরদার করিতে হইবে। এই দায়িত্ব সরকারের; স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, সচেতন নাগরিক সমাজ প্রমুখের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here