অপরিকল্পিত ভাবে মাছের ঘের তৈরী করাই সামান্য বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে রাজগঞ্জ মোবারকপুর মহিলা আলিম মাদ্রাসার মাঠটি

0
608

নিজস্ব প্রতিবেদক: অপরিকল্পিত ভাবে মাছের ঘের তৈরী হচ্ছে যেখানে সেখানে। পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। যার কারনে সামান্য বৃষ্টিতে পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মণিরামপুরের রাজগঞ্জ মোবারকপুর মহিলা আলিম মাদ্রাসা অন্যতম। অল্পস্বল্প বৃষ্টি হতে না হতেই তলিয়ে যায় মাদ্রাসার মাঠটি। ক্লাস রুমের ভীতরে প্রবেশ করে পানি । দেখা গেছে বিগত দু-বছর এই মাদ্রাসার ক্লাস রুমে হাটু পানি ঢুকাই অনেক দিন যাবৎ মাদ্রাসাটি বন্ধ ছিল। এ বছর সামান্য বৃষ্টিতে মাদ্রাসার মাঠে হাটু পানি বেঁধে গেছে। ইটের রাস্তা থেকে মাদ্রাসায় ঢুকার একমাত্র পথটি পানিতে ডুবে গেছে। ফলে ছাত্রীরা কোন রকম ভিজে পুড়ে ক্লাস রুমে বসলেও কাঁদায় প্যাচ প্যাচ করছে সবখানে। অপরদিকে শিক্ষকরা তাদের যানবাহন মটরসাইকেল ও বাইসাইকেল ইটের রাস্তার উপর রেখে হাটু পানি টপকিয়ে পাজামা ভিজিয়ে অফিস রুমে আসছে। গতকাল শনিবার সকাল নয়টার দিকে এলাকার মুরুব্বি আবুল খায়ের মাদ্রাসার সামনে ইটের রাস্তায় দাড়িয়ে এ সকল দৃশ্যপঠটি দেখেছেন বলে প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন। তিনি প্রতিনিধিকে আরো জানান, মাদ্রাসার উত্তর পাশের নীচু জায়গা দিয়ে এই এলাকার পানি বের হয়ে মোনাহরপুর খাল বেয়ে ঝাঁপার বাওড়ে পড়তো। অথচ ঐ নীচু জায়গায় অনেক গুলি মাছের ঘের তৈরী করাই সুষ্ট ভাবে এলাকার পানি নিস্কাশন হতে পারছে না। যার কারনে অতি সহজে মাদ্রাসা সহ আশপাশের নীচু এলাকার অনেক বাড়িঘর পানিতে থইথই করছে। প্রতি বছর বৃষ্টির পানি মাদ্রাসার ক্লাস রুমে উঠাই আমাদের ক্লাস করার বিঘœ ঘটে ফলে লেখা পড়ার অনেক ক্ষতি হয় বলে জানালেন নবম শ্রেনীর ছাত্রী সুমাইয়া খাতুন শান্তা। ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম জানান, পানি নিস্কাশনের পথটি মাছের ঘের করে বন্ধ করাই আমাদের এই দূর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। তাছাড়া মাদ্রাসার মাঠটি নীচু হওয়ায় বেশি বেশি দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাই আমি স্থানীয় এমপি মহোদয়সহ সকল জনপ্রতিনিধির হস্তক্ষেপ কামনা করছি যেন আগামী বছর আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি এমন দূর্ভোগে না পড়ে। গর্ভানিং বডির সভাপতি ইমরান খান পান্না জানাই, যদি সরকারী ভাবে পানি নিস্কাশনের পথটির ব্যবস্থা করা হতো তাহলে প্রতি বছর মাদ্রাসাটি পানিতে হাবুডুবু খেতো না। প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও সামান্য বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে মাদ্রাসার মাঠটি। তাই আমি আসা করছি অচিরে মাদ্রাসা সহ আশপাশের এলাকার পানি যেন সুষ্ট ভাবে নিস্কাশনসহ মাদ্রাসার নীচু মাঠটি মাটি ভরাট করে উচু করার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আকরাম হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি প্রতিনিধিকে বলেন, মাদ্রাসায় পানি উঠার বিষয়ে এখনও আমাকে কেউ জানাইনি। তবে পরবর্তিতে পানি ওঠার ছবিসহ আমাকে লিখিত ভাবে জানালে আমি উপরিমহলকে জানিয়ে দিব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here