অপেক্ষা করো, সিদ্ধান্ত আসছে!

0
676

সুন্দরবনের করমজল এলাকা পর্যটকদের বিশেষভাবে আকর্ষণ করে। মংলা থেকে স্বল্প সময়েই সেখানে নৌপথে পেঁৗছানো যায়। করমজলে রয়েছে কুমির ও হরিণের প্রজনন কেন্দ্র। এ জন্য বন বিভাগের অর্থ বরাদ্দ রয়েছে। জানা যায়, এ প্রজনন কেন্দ্র লাভজনক। হরিণ ও কুমিরের বিভিন্ন বয়সের বাচ্চা বিক্রি করে অর্থ উপার্জনেরও সুযোগ রয়েছে। এখানের পশু চিকিৎসা কেন্দ্রটিও মানসম্পন্ন। বনের বানর ও হরিণ কোনো কারণে আহত বা অসুস্থ হয়ে পড়লে স্বেচ্ছায় সেখানে হাজির হয়- এমন অভিমত বনকর্মীদের। শুক্রবার সমকালে করমজলের হরিণ নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে উদ্বেগের খবর। সেখানে এখন রয়েছে বিভিন্ন বয়সের ৪১টি হরিণ। তীব্র তাপদাহে এসব হরিণের খুব কষ্ট হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ চাইছে ১০টি হরিণ রেখে বাকিগুলো সুন্দরবনে ছেড়ে দিতে। এ জন্য অনুমতি চেয়ে ওপরে লিখিত আবেদন গেছে। দ্রুত হরিণগুলোকে বনে পাঠানো না গেলে তাদের মৃত্যুর আশঙ্কাও করা হচ্ছে। এ প্রশ্ন সঙ্গত যে, করমজলের কর্তৃপক্ষ যদি মনে করে যে, হরিণগুলোকে তাদের হেফাজতে রেখে বাঁচানো যাবে না- তাহলে নিজেরাই কেন সেগুলো বনে ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না? হরিণগুলোর মৃত্যু হলে তার দায় কে নেবে? এ ক্ষেত্রে অবিশ্বাস কাজ করতে পারে বৈকি! দেখা গেল, বনে ছাড়ার নামে হরিণ পাচার হয়ে গেছে অন্য কোথাও। এর আগে করমজল থেকে একাধিকবার কুমিরের ছানা ‘চুরি’ হওয়ার ঘটনা থেকেই সম্ভবত এমন কড়াকড়ি। বলতে দ্বিধা নেই যে, যোগ্য ব্যক্তিদের হাতে সুন্দরবনের এমন গুরুত্বপূর্ণ প্রজনন কেন্দ্রের দায়িত্ব অর্পিত রয়েছে কি-না তা নিয়েই সংশয়। একই সঙ্গে আরও একটি বিষয় আমাদের ভাবায়- সরকারি কাজে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে না পারা এবং দায় অপরের ওপর চাপিয়ে দেওয়ার প্রবণতা। হরিণ গরমে মরে যাওয়ার শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে, অথচ স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিতে পারছে বনে ছেড়ে দেওয়ার। তারা ওপর থেকে অনুমোদন চাইছে। কিন্তু সেখানেও ত্বরিত পদক্ষেপ গ্রহণের মতো ব্যক্তি যে নেই!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here