অবসান হউক কেশবপুরের জলাবদ্ধতার

0
297

যশোরের কেশবপুরে জলাবদ্ধতা স্থায়ী আকার ধারণ করিয়াছে। ইহাতে পানিবন্দি হইয়া পড়িয়াছে ৮০টি গ্রামের প্রায় লক্ষাধিক মানুষ। জানা যায়, হরিহর ও বুড়িভদ্রা নদীর নাব্য না থাকা ও অপরিকল্পিত মত্স্য ঘেরের কারণে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা ব্যাহত হওয়ায় এই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হইয়াছে। পাশাপাশি নদীর উজানের পানি এবং বৃষ্টির পানি এই সমস্যাকে ক্রমশ আরো প্রকট করিয়া তুলিতেছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এইবারের বন্যায় ইতোমধ্যেই প্রায় তিনশত কোটি টাকার ক্ষতি সাধিত হইয়াছে। তাহা ছাড়া পানিবন্দি হইয়া ১৭টি আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায় চার হাজার পরিবার আশ্রয় লইয়াছে। বিশুদ্ধ পানির সংকট ও পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটায় আশ্রয়কেন্দ্রের অধিবাসীরা মানবেতর জীবন যাপন করিতেছে বলিয়াও ইতোমধ্যে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হইয়াছে। প্রায় অর্ধশতাধিক বিদ্যালয় প্লাবিত হইয়া যাওয়ায় স্থানীয় শিক্ষার্থীদের লেখাপড়াও ব্যাহত হইতেছে চরমভাবে। অবশিষ্ট বিদ্যালয়গুলি পরিণত হইয়াছে আশ্রয় কেন্দ্রে।

জানা যায়, কেশবপুর শহরের পানি হরিহর, বুড়িভদ্রা ও অপারভদ্রা নদী দিয়া নিষ্কাশন হইয়া থাকে; কিন্তু দীর্ঘদিন ধরিয়া নদীগুলি খনন না হইবার কারণে গত বত্সরের আগস্ট মাস হইতে ঐ অঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করিয়াছে। মনিরামপুর ও অভয়নগরের অবস্থাও তথৈবচ। অথচ গত তিন বত্সরে নদীগুলির ভরাট হওয়া অংশ খনন বাবদ সরকারিভাবে আড়াই কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হইয়াছে। অভিযোগ আছে, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অপরিকল্পিত সিদ্ধান্ত ও ঠিকাদারদের দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে এই বরাদ্দ কার্যত কোনো কাজেই আসে নাই। বিশেষজ্ঞদের মতে, হরিহর নদীর উজানে ক্রসড্র্যাম বিকল হইয়া যাওয়া, নদী খননের নামে শত ফুট চওড়া নদীর প্রশস্ততাকে প্রায় অর্ধেক করিয়া ফেলা ও ড্রেজিং করা মাটি নদীর তীরসংলগ্ন স্থানে ফেলিয়া রাখা, যত্রতত্র মাছের ঘের গড়িয়া তোলা এবং ক্ষুদ্র জলাশয়গুলিকে ভরাট করিয়া ফেলিবার কারণেই মূলত এই অঞ্চলে জলাবদ্ধতার সমস্যা ক্রমশ প্রকট হইতেছে।

বর্ষায় সাময়িক জলাবদ্ধতা অস্বাভাবিক নহে; কিন্তু কোনো অজুহাতেই জলাবদ্ধতার এই স্থায়ী রূপ প্রত্যাশিত হইতে পারে না। সমস্যা সমাধানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকাই মুখ্য হওয়া উচিত। আমাদের বিশ্বাস, তাহারা যথাযথ ভূমিকা পালন করিলে কেশবপুরের জলাবদ্ধতা এত দীর্ঘস্থায়ী হইতে পারিত না। অত্র এলাকায় অপরিকল্পিতভাবে গড়িয়া তোলা মাছের ঘেরগুলি যদি জলাবদ্ধতার জন্য আংশিকভাবেও দায়ী হইয়া থাকে তাহা হইলে অবশ্যই এই ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। উপরন্তু হরিহর নদীর উজানে দীর্ঘদিন যাবত্ বিকল হইয়া পড়িয়া থাকা ক্রসড্র্যাম সচল করাও জরুরি বলিয়া অনেকে মনে করেন। আমরা চাই, নদীগুলির নাব্যতা ফিরিয়া আসুক। অবসান হউক কেশবপুরের দীর্ঘস্থায়ী জলাবদ্ধতার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here