অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে ইসির সংলাপ

0
350

ড. মাহবুবা নাসরিন : নির্বাচন কমিশনের আমন্ত্রণে ‘বিশিষ্টজনের’ সংলাপে ৩১ জুলাই অংশগ্রহণের সুযোগ আমার ঘটেছিল। বিশিষ্টজন হিসেবে আমন্ত্রিতদের অভিহিত করা হয়েছে এবং এটা অবশ্যই সম্মানের। তবে আরও অনেক বিশিষ্টজন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, আইনের অঙ্গনে, সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে রয়েছেন- যারা দেশের জন্য নিবেদিত। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার আরও উন্নয়ন নিয়ে তারা ভাবেন, বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ যেন গর্বের আসনে অধিষ্ঠিত হতে পারে সে লক্ষ্য অর্জনে তারা নিরলস কাজ করেন।

সংলাপে সব দলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠান প্রাধান্য পায়। এ জন্য একটি অপরিহার্য শর্ত হিসেবে চিহ্নিত হয়- নির্বাচন কমিশনকে জনগণের এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীদের আস্থা অর্জনের বিষয়টি।

নির্বাচন কমিশন আলোচনার শুরুতেই আমন্ত্রিতদের অনুরোধ করেছিল- তারা যে রূপরেখা বা রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে তার ওপর যেন মতামত দেওয়া হয়। এর বাইরেও বিভিন্ন বিষয়ে মতামত আহ্বান করা হয়। রূপরেখায় ছিল সংলাপ, সংসদীয় আসনের সীমানা পুনর্নির্ধারণ, ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা, নতুন দল নিবন্ধন ইত্যাদি। পূর্ববর্তী নির্বাচন কমিশন যেসব সংলাপ আয়োজন করেছে, তাতে সাংবাদিকরা বৈঠকস্থলে আমন্ত্রিত ছিলেন। এবারে তার ব্যত্যয় ঘটেছে। সঙ্গত কারণেই সংলাপের পর গণমাধ্যমে যেসব বক্তব্য এসেছে তাতে ভেতরে যা আলোচনা হয়েছে তার থেকে কিছু ভিন্ন চিত্রও মিলেছে। তবে কমিশন থেকে বলা হয়েছে, সংলাপ শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করা হবে। এ কারণেই তাদের বৈঠকে ডাকা হয়নি।

আমন্ত্রিত ৫৯ জনের মধ্যে কেন অর্ধেকের কিছু বেশি- ৩৪ জন উপস্থিত- এ নিয়ে সংবাদপত্র ও টক শোতে আলোচনা হচ্ছে। আমার ধারণা, নির্বাচন কমিশন তালিকা প্রণয়নের পর সবাইকে উপস্থিত করানোর জন্য যেসব করণীয় ছিল তার প্রতি তেমন গুরুত্ব দেয়নি। হয়তো ধারণা ছিল- এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ সংলাপে আমন্ত্রণ পেলে বিশিষ্টজন অবশ্যই আসবেন। কমিশন আরও সংলাপ আয়োজন করবে। রাজনৈতিক দল, গণমাধ্যম, নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থা ও নারী সমাজের প্রতিনিধি এবং নির্বাচন পরিচালনা কর্মকাণ্ডে অভিজ্ঞদের সঙ্গে মতবিনিময় হবে। আশা করব, এসব ক্ষেত্রে আমন্ত্রিতদের তালিকা প্রণয়ন ও পরবর্তী প্রক্রিয়া যেন যথাযথভাবে অনুসরণ করা হয়।

সংলাপ কক্ষে প্রবেশের আগে আমন্ত্রিত হননি, এমন কেউ এসেছেন কি-না সেটা যাচাইয়ের ব্যবস্থা ছিল না। এ কারণেই একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটতে পেরেছে। সংলাপের শুরুতেই আমার আসনের প্রায় কাছাকাছি বসা একজন নারী মাইক নিয়ে অনুমতি গ্রহণ ব্যতিরেকেই বক্তব্য প্রদান শুরু করেন। তিনি বলেন, তার লক্ষ্য একটি রাজনৈতিক দল গঠন। এ জন্য তার কথা শুনতে হবে। তাকে আমরা কেউই চিনতে পারিনি। দ্রুতই জানা গেল যে তিনি আমন্ত্রিত নন। তবে পরিস্থিতি অল্প সময়ের মধ্যেই স্বাভাবিক করা সম্ভব হয়। এর কারণ বুঝতেও অসুবিধা হয় না- সংলাপে অংশগ্রহণকারী সবাই চেয়েছেন ফলপ্রসূ আলোচনা। শুরুতেই বলে দেওয়া হয়েছিল, বক্তব্যের যেন পুনরাবৃত্তি না হয়। কমবেশি সবাই সেটা অনুসরণ করেছেন। ওই দিনের টিভি ও বেতারের সংবাদ এবং পরের দিনের সংবাদপত্রে এসেছে- আলোচনায় নির্বাচনে ‘সেনা মোতায়েন’ ও ‘না’ ভোট প্রাধান্য পেয়েছে। বাস্তবে তেমনটি ঘটেনি। কয়েকজন এ বিষয়টি উল্লেখ করেছেন। কিন্তু যারা এ প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখেননি, তারা এটা বলেননি যে ওই সব প্রস্তাবের প্রতি তাদের সমর্থন রয়েছে। একজন বলেছেন, সেনা মোতায়েনের দাবি যারা করছেন, তাদের মানুষের ওপর বিশ্বাস নেই। ‘না’ ভোট প্রদানের বিধান রাখার প্রশ্নে একজন বলেন, যারা ভোট দিতে আসেন না, তাদের অনেকে নির্দিষ্ট আসনের প্রার্থীদের কাউকেই পছন্দ করেন না বলেই সেটা করেন। ‘না’ ভোটের বিধান রাখা তাই অর্থহীন। তাছাড়া যেসব দেশে এ বিধান রয়েছে, সেখানে এমন মত খুব একটা ব্যক্ত করতেও দেখা যায় না। যদি এমন হতো যে, সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটার অনেক দেশের অনেক আসনে ‘না’ ভোট দিচ্ছে, তাহলে অবশ্যই বিষয়টি বিবেচনা করার অবকাশ থাকে। অন্যথায় তা কেবলই প্রতীকী অধিকার হিসেবে গণ্য হবে।

সংলাপে সবচেয়ে যে বিষয়টি ভালো লেগেছে তা হলো, সবার ইতিবাচক মনোভাব। কেউ আক্রমণাত্মক বক্তব্য রাখেননি। বরং গঠনমূলক পরামর্শ দিয়েছেন। সংলাপের পরে সাংবাদিকদের কাছে বক্তব্য রেখেছেন, এমন দু-একজন ভেতরে যেভাবে বলেছেন- বাইরে তেমনটা হয়তো বলেননি। কেউ কেউ হয়তো প্রসঙ্গান্তরেও চলে গেছেন।

ভোটার তালিকা হালনাগাদসহ কয়েকটি বিষয়ে আমি কথা বলেছি। নির্বাচন কমিশন যে সময়ে তালিকা শেষ করতে চাইছে, তখনও বর্ষা মৌসুম থাকার কথা। আমাদের অভিজ্ঞতা বলে, এ মৌসুমে দেশের অনেক এলাকা পানিতে তলিয়ে থাকে। বিশেষ করে চরাঞ্চলে সমস্যা প্রকট হয়। বন্যার প্রকোপ বেশি হলে, নদ-নদী ভাঙতে থাকলে সমস্যা বেড়ে যায়। এ সময়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার পদক্ষেপ নেওয়া হলে অনেককে নিজ নিজ ঠিকানায় পাওয়া যাবে না। কমিশনকে অবশ্যই ‘দুর্যোগপ্রবণ’ সময়ের কথা বিবেচনায় রাখতে হবে। প্রয়োজনবোধে বিশেষ কমিটি গঠন করে এসব এলাকায় দৈবচয়িত নমুনার মাধ্যমে ভোটার তালিকা চূড়ান্ত করতে হবে।

প্রবাসে বসবাসকারী বাংলাদেশিদের ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার প্রসঙ্গও আলোচনায় আসে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ বিষয়ে বক্তব্য রাখার আহ্বান জানান। বাংলাদেশে লোকগণনায় নির্দিষ্ট সময়ে দেশের কোনো স্থানে যারা অবস্থান করেন, কেবল তাদেরকেই অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ভোটার তালিকায় প্রবাসে কর্মরত বা অন্য কোনো কারণে স্থায়ীভাবে অবস্থানকারীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করার দাবি দীর্ঘদিনের। বিষয়টি আদালত পর্যন্তও গড়িয়েছে। কিন্তু এখনও সমাধান-সূত্র মেলেনি।

প্রতিবন্ধীদের ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা, ভোটদান কেন্দ্র এমন স্থানে স্থাপন যাতে প্রতিবন্ধীদের যেতে কোনো সমস্যা না হয়, সংসদ নির্বাচনে প্রাপ্ত ভোটের আনুপাতিক হারে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে আসন বণ্টন- এ ধরনের অনেক প্রস্তাব করা হয় সংলাপে। ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের বিষয়টিও আলোচনায় আসে। অতীতের একাধিক নির্বাচনের আগে ও পরে তারা নিগৃহীত-লাঞ্ছিত হয়েছেন, হামলার শিকার হয়েছেন- এটা সবার জানা। নারীদের জন্য সংসদে ১০০ আসন সংরক্ষণ এবং এসব আসনে প্রত্যক্ষ ভোটের প্রস্তাব করা হয়।

নির্বাচন কমিশন সংলাপে উপস্থিত সবার বক্তব্য শুনেছে। এর বাইরেও কারও বক্তব্য থাকলে সেটা লিখিতভাবে প্রদানের জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। আশা করা যায় যে, আগামী বছরের শেষ দিকে নির্ধারিত জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে কমিশন আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক অনেক আলোচনা-সেমিনার-সমাবেশ থেকে গঠনমূলক অভিমত পাবে। এগুলো বিশ্লেষণ, মূল্যায়ন থেকে সুগম হবে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পথ।

পরিচালক ও অধ্যাপক, ইনস্টিটিউট অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here