অভ্যন্তরীন কোন্দলে যশোরে দিন দুপুরে যুবলীগ নেতা খুন

0
488

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যশোর শহরতলীর উপশহরে স্থানীয় যুবলীগ কর্মী কাজল (৩৫) খুন হয়েছে। কাজল উপশহর এলাকার মৃত আশরাফ আলী আশার ছেলে। রোববার দুপুরে উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে। হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে উপশহর যুবলীগ শহরে লাশ নিয়ে মিছিল করে।


প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহত কাজলের ভাই বাবুল জানান, দুপুরে উপশহর ডি ব্লক গালর্স স্কুলের সামনে থেকে মোটর সাইকেলে কাজল এ ব্লকের বাড়ি ফিরছিল। তার সাথে ছিল ট্রাক স্ট্যান্ড বস্তির আওয়ালের ছেলে কসাই ইকবাল ও বিল্লাল নামে এক যুবক। ইকবাল মোটর সাইকেল চালাচ্ছিল বিল্লাল ও কাজল মোটরসাইকেলের পিছনে বসে ছিল। ডি ব্লক গালর্স স্কুলের সামনে থেকে মোটর সাইকেলে তিনজন একসাথে উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে আসার পর অপর একটি লাল রঙের মোটর সাইকেলে প্রতিপক্ষ সশস্ত্র তিন সন্ত্রাসী কাজলসহ তিনজনকে সামনে থেকে ব্যরিকেড দেয়। এরপর তর্কবিতর্কের একপর্যায়ে কোনকিছু বোঝার আগেই কাজলকে সন্ত্রাসীরা উর্পযুপুরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এসময় দুইসহযোগি ইকবাল ও বিল্লাল, কাজলকে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা কাজলকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ডাক্তার আব্দুর রশিদ জানান, কাজলকে হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। হত্যাকান্ডের কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে ভাই বাবুল বলেন, আমার ভাই কাজল ঠিকাদারি কাজ করতো। কারো সাথে তার কোন বিরোধ ছিল না। সে যুবলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল। আগে সে চাকলাদার গ্রুপ করতো। বর্তমানে এমপি কাজি নাবিল আহম্মেদের গ্রুপ করায় তাকে চাকলাদার গ্রুপের সন্ত্রাসী হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি ডি ব্লকের মুনিরের ছেলে টমাস, বি ব্লকের রনি ও বিরামপুর সফিউল্লাহর মোড়ের মামুন কাজলকে ছুরিকাঘাতে খুন করে। নিহত কাজলের সহযোগি ইকবাল, বিল্লাল ও একই কথা বলেন। তারা বলেন, টমাস, রনি ও মামুন একটি লাল রঙের ডিসকভার মোটরসাইকেলে এসে কাজলকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। এসময় উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের চৌকিদার বাদল, জাভেদসহ দফাদাররা দাড়িয়ে দাড়িয়ে হত্যাকান্ডটি প্রত্যক্ষ করলেও প্রতিরোধের জন্য কেউ এগিয়ে যায়নি বলে প্রত্যক্ষদর্শিরা জানান। কাজলের মা ইয়সমিন বেগম দাবি করেছেন, উপশহরের সন্ত্রাসী মুনসুর, চীমা ও লিটু চেয়ারম্যানের নির্দেশে কাজলকে হত্যা করা হয়। জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক ফারুক আহমেদ কচি কাজলকে যুবলীগ কর্মী দাবি করে বলেছেন, হত্যাকান্ডের সাথে যেই জড়িত থাকুক না কেন আইনের আওতায় এনে তার বিচার করা হোক।
হত্যাকান্ডের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ আবু সরোয়ার জনান, পূর্ব শত্রতার জের ধরে কাজল নামে একযুবক খুন হয়েছে বলে তিনি জানতে পেরেছেন। তবে হত্যাকান্ডের সাথে কারা জড়িত তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই আব্দুর রহিম জানান, হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত কাউকে এখনো পর্যন্ত আটক করা হয়নি। তবে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here