অভয়নগরের বোরো ধান রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষকরা, ছাড়িয়ে যাবে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা

0
22

রাজয় রাব্বি, অভয়নগর (যশোর) : কৃষকরা। তাদের দাবি এ বছর ছাড়িয়ে যাবে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা। সাধারণত চাকরিজীবীদের সাপ্তাহিক মাসিক বাৎসরিক ছুটি থাকলেও কৃষকদের কোন ছুটি থাকেনা। দেশের খাদ্যচাহিদা পুরণে প্রতিনিয়ত ফসলের ক্ষেতে ঘাম ঝরান তারা। একটার পর একটা কৃষি কাজ লেগেই থাকে তাদের। আমন ধান কাটার পর শুরু হয় শাক সবজি গম, সরিষা ও ভূট্টাসহ নানা ধরনের চাষাবাদ শেষ হতেনা হতেই আবার শুরু হয়ে যায় বোরো ধান রোপনের উপযোগী সময়। তাইতো এখন বোরো ধান রোপনের কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন অভয়নগরের ধান চাষীরা। ঘন কুয়াশা ও তীব্র শীত উপেক্ষা করে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বোরোর জমি তৈরি ও ধানের চারা রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। কেউবা জমিতে হালচাষ দিচ্ছেন, কেউবা ধানের চারা রোপন করছেন আবার যারা আগাম চারা রোপন করেছেন তারা সেই জমিতে সেচ দিচ্ছেন।
অভয়নগর উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, ১৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হচ্ছে, যা গত বছরের তুলনায় ২ হাজার ২০০ হেক্টর বেশি। এবছর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৯৯ হাজার ৯০০ মেট্রিকটন। ধানের মুল্য বেশি ও ভবদহ জলাবদ্ধতা না থাকায় উৎপাদন লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। সূত্র জানায়, গত বোরো মৌসুমের শেষ সময়ে দফায় দফায় প্রাকৃতিক দূর্যোগে ব্যাপক ক্ষতি হয় ফসলের। সেই সাথে বাজারে ধানের ভালো দাম না পাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ হয় চাষীরা। তবে এবার সকল হতাশা কাটিয়ে আবারও বুকভরা আশা নিয়ে মাঠে নেমেছেন এ অঞ্চলের কৃষকরা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার চলিশিয়া, সুন্দলী, বাঘুটিয়া, শ্রীধরপুর, পায়রা ইউনিয়নসহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে বোরো ধান রোপন করছেন কৃষকরা। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবার বাম্পার ফলন হবে বলে আশা কৃষি সংশ্লিষ্টদের।
উপজেলার কোটা গ্রামের কৃষক আমিনুর রহমান, রেজোয়ান হোসেন, তরিকুল ইসলাম জানান, আমন ঘরে তোলার পর তীব্র শীত উপেক্ষা করে নতুন স্বপ্ন নিয়ে মাঠে নেমেছেন তারা, ইরি বোরো ধান চাষের গুরুত্বপুর্ন সময় পৌষ মাঘ। এ দু মাসে বোরো জমিতে ধানের চারা রোপন করতে হয়। চারা রোপনের সময় শৈতপ্রবাহ ও কুয়াশা তাদের দমাতে পারেনা। তিনি এবার ৩ একর জমি চাষাবাদ করবেন এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে ফসলের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। এক্তারপুর গ্রামতলা গ্রামের শাহ আলম, এবার ৪ বিঘা নিজস্ব ও ১ বিঘা জমি বর্গা নিয়ে বোরো ধান রোপন করেছেন। ফলন ভালো হলে লাভবান হবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গোলাম ছামদানী বলেন, এ বছর আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে বোরো ধানের বাম্পার ফলন হবে। তাছাড়া কৃষি অফিস থেকে নিয়মিত কৃষকদের পরামর্শ প্রদান অব্যাহত রয়েছে।