অভয়নগরে এনজিও কর্মকর্তা অপহরণ ও চাঁদা দাবির ঘটনায় দুইজনের স্বীকারোক্তি

0
143

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর আল-আরাফাহ সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির ফিল্ড অফিসার ইকবাল জাহিদ অপহরণ ও চাঁদা দাবির ঘটনায় আটক রবিউল ইসলাম ও আব্দুল মালেক আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তারা দুইজনসহ আটক অপর আসামিরা অপহরণ ও মুক্তিপণ দাবির ঘটনায় জড়িত আছে। একই সাথে রবিউলের স্বীকারোক্তিতে অপহৃত জাহিদকে পুলিশ উদ্ধার করেছে বলে তারা জবানবন্দিতে জানিয়েছে। মঙ্গলবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালতে বিচারক শম্পা বসু ওই দুইজনের জবানবন্দি গ্রহণ ও আটক ৬ জনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। আটক রবিউল বুইকরার মুজিবর হাওলাদার ও মালেক পাঁচকবর এলাকার মৃত আব্দুল গণি সরদারের ছেলে।

রবিউল ও মালেক জানিয়েছে, ১ নভেম্বর যশোর ফলপট্টিতে রুবেল হাসান বাবুর সাথে দেখা হয়। এ সময় রুবেল তাকে নিয়ে বিআরএসি এনজিও অফিসে যায়। অফিসের এক কর্মকর্তা তাকে জানায়, তাদের এক ফিল্ড অফিসারকে টাকার জন্য আটকে রেখেছে। রুবেল হাসানকে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা দেন ওই কর্মকর্তা। এরপর রুবেল, শাকিল আকাশ, ইব্রাহিম ও আমরা দুইজন মাইক্রোবাসে ঘটনাস্থলে যেয়ে টাকা দিয়ে এনজিও কর্মকর্তাকে ছাড়িয়ে আনি। এর মধ্যে মাইক্রোবাসের মধ্যে রুবেল এনজিও কর্মকর্তা জাহিদের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে তাকে ছাড়ানো হয়েছে বলে জানায়। জাহিদ টাকা দিতে অস্বীকার করে। তাকে মারপিট করা হয়। পরে তার স্ত্রীকে ফোন দিয়ে টাকা আনতে বলা হয়। রুবেল ও তার লোকজনকে টাকা না দেয়ায় জাহিদকে আরও মারপিট ও শাকিলের বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখা হয়। গভীর রাতে শাকিল ফোন দিয়ে রবিউলকে হাসপাতাল মোড়ে পুলিশ আছে কিনা দেখতে বলে। হাসপাতাল মোড়ে গেলে পুলিশ রবিউলকে আটক ও তার স্বীকারোক্তিতে জাহিদকে উদ্ধার করে। এরপর তাদের স্বীকারোক্তি বাকি চারজনকে আটক করা হয়। এ ঘটনার সাথে জড়িত আটক ৬জনসহ আরও কয়েকজন জড়িত বলে জানিয়েছে তারা।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, আল-আরাফাহ সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতির ফিল্ড অফিসার ইকবাল জাহিদ অভয়নগরের দায়িত্বে আছেন। অভয়নগরের ইছামতির ১০ সদস্যের ৭৬ হাজার টাকা নিয়ে বিবাদ হয়। ১ নভেম্বর ওই বিবাদ মীমাংসার জন্য ইছামতি গ্রামের কনার বাড়িতে যায়। এসময় কনা ও তার ভাই স্থানীয় লোকজন দিয়ে তাকে আটকে রেখে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা দাবি করে। বিষয়টি ক্যাশিয়ারকে জানানো হয়। সন্ধ্যায় আসামিরা এসে তাকে একটি মাইক্রোগাড়িতে তুলে নেয়। তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি আকাশ ও মালেক চালিয়ে আসে। পথিমধ্যে আসামিরা তার কাছে মুক্তিপণ দাবি করে মারপিট ও হত্যার হুমকি দেয়। বিষয়টি জাহিদ তার স্ত্রীকে জানায়। এরপর অভয়নগর থানা পুলিশকে জানালে আসামিদের আটক এবং জাহিদকে উদ্ধার করা হয়। এব্যাপারে জাহিদ ৯ জনের নাম উল্লেখসহ অপরিচিত ২/৩ জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আটক ৬ জনকে মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করেন। এদের মধ্যে রবিউল ইসলাম ও আব্দুল মালেক আদালতে ওই স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দিয়েছে।