অভয়নগরে দেড়মাসে ৮৪ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত : সতর্কতা জারি

0
55

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগরে গত দেড়মাসে ৮৪ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে এবং কর্তৃপক্ষ সতর্কতা জারি করেছে। দিন গেলেই ডেঙ্গুর ভয়াবহ বিস্তার ঘটে চলেছে। প্রতিনিয়ত কেউ না কেউ এডিস মশার দ্বারা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হচ্ছে। যা থেকে খোদ স্বাস্থ্য কর্মীরাও নিস্তার পাচ্ছেনা। অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তথ্য মতে গত ৪৫ দিনে এ উপজেলায় ৮৪ জন ডেঙ্গু রোগী সনাক্ত হয়েছে। যার মধ্যে আগস্ট মাসে সনাক্ত হয় ৩৯ জন। এবং সেপ্টেম্বর মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত ১৩ দিনে সনাক্ত হয়েছে ৪৫ জন। বর্তমানে হাসপাতালটিতে ১৭ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এর মধ্যে একজন স্বাস্থ্য কর্মীও রয়েছেন। ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির এ হার স্বাস্থ্য বিভাগকে রীতিমত দুঃশ্চিন্তায় ফেলেছে। তোলপাড় শুরু হয়েছে যশোর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে। অভয়নগরে ডেঙ্গুর প্রকোপ ভয়াবহ হওয়ার পেছনের কারন খতিয়ে দেখছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এ নিয়ে চলছে দফায় দফায় মিটিং।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার চলিশিয়া, গাজীপুর, সমশপুর, গুয়াখোলা ও বুইকারা এলাকায় সর্বাধিক ডেঙ্গু রোগী সনাক্ত হয়েছে।
স্বাস্থ্য বিভাগের একটি সূত্র জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের অসতর্কতা ও অবহেলার কারনে ডেঙ্গুর এ ভয়াবহতা দেখা দিয়েছে। বছরের একটি নির্দিষ্ট সময়ে এডিস মশার লাভা বিস্তার করতে শুরু করে। শুরুর এ সময়টাতে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহন করে এডিশ মশার লাভা ধ্বংসে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সহায়তায় কাজ করে। ফলে লাভা বিস্তার ঘটাতে পারেনা। কিন্তু অভয়নগরে যথা সময়ে এডিশ মশার লাভা ধ্বংসে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহন করেনি স্বাস্থ্য বিভাগ। যখন থেকে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহন শুরু করা হয়েছে ততক্ষনে লাভার ভয়াবহ বিস্তার ঘটে গেছে।
এব্যাপারে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে প্রতিনিয়তই অভয়নগরের ডেঙ্গুর বিষয়ে খোঁজ খবর নিচ্ছেন। ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের যথাযথ চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এবং বিনামূল্যে ডেঙ্গু পরীক্ষা করা হচ্ছে। সম্প্রতি কিটের সংকট থাকলেও বর্তমানে কোন সংকট নেই।