অভয়নগরে ধর্ষণ ও পর্ণগ্রাফী মামলায় কথিত সাংবাদিকসহ আটক ২

0
43

অভয়নগর(যশোর)প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগরে ধর্ষণ ও পর্ণগ্রাফী মামলায় কথিত সাংবাদিক মাহবুবুর রহমান ও তার সহযোগি অনিক বাঘাকে আটক করেছে পুলিশ । ধর্ষণের শিকার স্কুল শিক্ষার্থীর মা বাদি হয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকালে অভয়নগর থানায় মামলা দায়ের করেন।যার মামলা নং -৭ । মামলা দায়েরের এক ঘন্টার মধ্যে অভয়নগর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে উপজেলার চলিশিয়া গ্রামের বাশার মোড়লের ছেলে মাহবুবুর রহমান(৪০) ও গুয়াখোলা গ্রামের নাসির বাঘার ছেলে অনিক বাঘা(২৬)কে আটক করে।
মামলার বিবরনে জানাযায়,অভয়নগর উপজেলার গুয়াখোলা গ্রামের দশম শ্রেণীর ছাত্রীকে সাংবাদিক বানানোর প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারক মাহাবুব ঐ ছাত্রীর কাছ থেকে চেয়ে নেয় জম্মনিবন্ধন ও ছবি। কিছুদিন পর ঐ শিক্ষার্থীকে বলে তোমার সাংবাদিক কার্ড হয়ে গেছে তুমি আমার মৎস্য ঘেরে এসে কার্ডটি নিয়ে যাও। সে মৎস্য ঘেরে যেতে দ্বিমত পোষণ করলে মাহবুব তাকে সাফ জানিয়ে দেয় তোমার সাংবাদিকতা করতে হবে না। পরে মাহবুবের প্ররোচণায় গত ২১ আগষ্ট সকাল সাড়ে ১১টায় চলিশিয়া গ্রামের তার মৎস্য ঘেরের পাড়ে গেলে তাকে একটি নির্জন ঘরে আটকিয়ে রাখে।পরে তাকে উপর্যোপরি ধর্ষণ করে। এবং আসামী তার নিজ মোবাইল দিয়ে ধর্ষণের ভিডিও ধারন করে। এসময় ঐ শিক্ষার্থী কান্নাকাটি করলে ধর্ষক মাহাবুবুর রহমান বলে তুই এই ঘটনা কাউকে জানালে এই ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। এ ঘটনার পর থেকে প্রায়ই ঐ শিক্ষার্থীকে ফোন দিয়ে নির্জন স্থানে দেখা করতে বলতো মাহবুব। দেখা না করলে ঐ ধর্ষণের ভিডিও ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখাত।এসব কাজে সহযোগিতা করতো অনিক বাঘা । এবং ঐ অশ্লীল ভিডিওটি ডিলেট করার কথা বলে মাহবুব ও অনিক বাঘা ৫০ হাজার টাকা দাবি করে।টাকা না পেয়ে ঐ অশ্লীল ভিডিও ভিকটিমের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনের মোবাইলে দিয়ে দেয়। পরে তার পরিবার নিরুপায় হয়ে থানায় মাহবুবুর রহমান ও অনিক বাঘাকে আসামী করে মামলা দায়ের করে ঐ শিক্ষার্থীর মা।
এব্যাপারে অভয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)এ কেএম শামীম হাসান জানান,অভিযোগের সত্যতা প্রাথমিকভাবে প্রমানিত হওয়ায় মাহবুবুর রহমান ও অনিক বাঘাকে আটক করি।তাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পর্ণগ্রাফী আইনে মামলা রুজু হয়েছে। উল্লেখ্য উক্ত মাহবুবুর রহমান সহ একটি চক্র অভয়নগর বানীসহ বেশ কয়েকটি ফেক আইডি খুলে দীর্ঘদিন থেকে সাংবাদিকতার নাম ভাঙ্গিয়ে অপকর্ম করে আসছে।