অভয়নগরে প্রতিনিয়ত বাড়ছে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা

0
26

রাজয় রাব্বি : যশোরের অভয়নগর উপজেলায় প্রতিনিয়ত ডেঙ্গুর ভয়াবহতা বেড়েই চলেছে। প্রতিদিনই কেউ না কেউ মশাবাহিত এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এছাড়া অনেকে যশোর ও খুলনায় চিকিৎসা গ্রহন করেছেন। কেউ কেউ বাড়িতেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। নওয়াপাড়া পৌরসভার প্রায় সকল ওয়ার্ডেই বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতার শিকার হয়। এছাড়া দূর্বল ড্রেনেজ ব্যবস্থা এবং ড্রেন গুলো যথাযথভাবে পরিস্কার না করায় জলাবদ্ধতা বেড়েই চলেছে। ফলে এসকল জলাবদ্ধ অঞ্চলে জন্ম নিচ্ছে ডেঙ্গু রোগের বাহক ভয়ংকর এডিশ মশা। তাছাড়া শিল্প-বাণিজ্য ও বন্দর নগর নওয়াপাড়ার পৌর এলাকায় জীবন যাত্রার মান বৃদ্ধির সাথে সাথে অধিকাংশ বাসা বাড়ির সদস্যরা ছাদ বাগান ও ইনডোর প্লান্টের দিকে ঝুঁকে পড়েছে। কিন্তু সচেতনতার অভাবে এসকল গাছের টব গুলো দিনের পর দিন পরিস্কার না রাখায় এবং পানি পরিবর্তন না করায় এসকল টবে এডিশ মশা বংশ বিস্তারের সুযোগ পেয়েছে। ফলে দিন গেলেই এ উপজেলায় ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে।
অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দেয়া তথ্যমতে, প্রতিনিয়ত ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা গ্রহন করেছেন। ডেঙ্গু রোগীদের মধ্যে পুরুষ রোগী ১৭ জন ও মহিলা ৯ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। মহিলাদের তলনায় পুরুষ বেশি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। তারা হলেন, উপজেলার পুড়াখালী এলাকার সালমা বেগম (৩৪), ছায়রা বেগম (৩৬), তিসা আক্তার (৩), লক্ষীপুর এলাকার কবির হোসেন (২২), রিপা খাতুন(২৮), সুন্দলী গ্রামের অধরা মন্ডল (১১), বাঘুটিয়া গ্রামের আক্কেল শেখ (৬৫), সজল হোসেন, (২৩), লিটন রহমান (৪০), লেবুগাতী গ্রামের সেলিম হোসেন (২৪)শেখ সাদি (২০), আকলিমা বেগম (২৪), বাগদা এলাকার লতিফা বেগম, (৩৫), দেয়াপাড়া এলাকার সেলিনা বেগম(২৩) সজিব হোসেন (১৮), চলিশিয়া গ্রামের হাজেরা আক্তার (২৯), সুমাইয়া খাতুন (১৩), মধ্যেপুর গ্রামের দাউদ আলী (৩৫) জব্বার খান (৬৫), হুমায়ুন কবির (১৮), মফিজুল ইসলাম (৩৫), মনোয়ারপুর এলাকার অনিক (২০), মেহেদী হাসান রনি (২৭),পাচাঁখড়ি গ্রামের শহিদুল ইসলাম (৩৪) রিমন হোসেন (১২), নওয়াপাড়া গ্রামের মিলন হোসেন (২৬)। এছাড়াও ১০ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়িতে চলে গেছেন। মাহতাব হোসেন নামের এক ডেঙ্গু রোগী উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। ডেঙ্গু রোগী সালমা বেগম, ছায়রা বেগম বলেন, ডেঙ্গু পজেটিভ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী।
কর্তব্যরত চিকিৎসক মোঃ সবুজ বলেন, কোনোভাবেই কমছে না ডেঙ্গুর প্রকোপ। প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। শিশু-কিশোর, বৃদ্ধসহ সব বয়সের মানুষ এ রোগের উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে আসছেন। ডেঙ্গু উপসর্গ দেখা দিলে ভয় আর আতঙ্ক নয় তাৎক্ষণিক হাসপাতালে এসে চিকিৎসকের পরামর্শ ও চিকিৎসা নিতে হবে। এ ছাড়াও বাসাবাড়িতে এডিস মশার লার্ভা যাতে না হয়। সে ব্যপারেও সতর্ক থাকার পাশাপাশি ঘুমানোর সময় মশারির ব্যবহার করার কথা জানান ওই চিকিৎসক।
এ ব্যাপারে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মাহামুদুর রহমান রিজভী বলেন, এ উপজেলায় সম্প্রতি ডেঙ্গু রোগী উদ্বেগজনক অবস্থায় রয়েছে। ২৬ জন ডেঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি হলেও এর বাইরে অসংখ্য ডেঙ্গু রোগী রয়েছেন বলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেন। অনেকে ডেঙ্গু জ্বরকে সাধারণ জ্বর মনে করে বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সকলকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ডেঙ্গু ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পেতে স্বাস্থ্য বিভাগের পাশাপাশি পৌর কর্তৃপক্ষ ও উপজেলা প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিদের যৌথভাবে কাজ করতে হবে। সেই সাথে বাসা বাড়ির ফ্রিজ, এসি, গাছের টবসহ তৈজসপত্রাদীতে জমে থাকা পানির ব্যপারে সচেতন থাকতে হবে। এ সকল পানিতে বেশি পরিমাণ এডিশ মশার জন্ম হয়। পাশাপাশি মশক নিধন কার্যক্রম, জনসচেতনতা বৃদ্ধিসহ জলাব্ধতা নিরসনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সজাগ থাকার অনুরোধ করেন। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এবার থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। এ বছর ডেঙ্গু আক্রান্তরা শক সিন্ড্রোমে মারা যাচ্ছেন বেশি। কারণ তারা দেরিতে হাসপাতালে যাচ্ছেন। মেডিক্যালের পরিভাষায়, শরীরের ভেতরে রক্তক্ষরণকে শক সিন্ড্রোম বলা হয়।
নওয়াপাড়া পৌরসভার মেয়র সুশান্ত কুমার দাস বলেন, পৌর এলাকার প্রতিদিন ৪টি ওর্য়াডে মশক নিধন মেশিন দিয়ে ¯েপ্র করে থাকি। এ ব্যাপারে অভয়নগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ ফরিদ জাহাঙ্গীর বলেন, আমাদের উপজেলায় সব থেকে বেশি রোগী দেখা দিয়েছে। ডেঙ্গুর ভয়াবহতা সম্পর্কে ইতো মধ্যে আমরা জেনেছি। প্রথম দিকে এ উপজেলায় প্রতিরোধে তেমন কোন ব্যব্স্থা গ্রহণ করা হয়নি। এখন সচেতনতাসহ সব ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে ।