অসংখ্য তরুণীর ‘পর্নো’ ভিডিওতে সয়লাব রাজের ফোন

0
41

মহানগর ডেস্ক : চিত্রনায়িকা পরীমনি ও মডেল পিয়াসার অন্যতম সহযোগী রাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্নধার চলচ্চিত্র প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজের বনানীর বাসায় অভিযানের পর তাকে আটক করে র‍্যাব। রাজের বনানীর বাসা থেকে প্রচুর পরিমাণে মাদকের পাশাপাশি বিকৃত যৌনাচারের নানা সরঞ্জাম উদ্ধার করে র‍্যাব। এছাড়া রাজের মোবাইল ফোনে মিলেছে অসংখ্য তরুণীর পর্নোগ্রাফিক ভিডিও। ব্ল্যাকমেইলিংয়ে পটু রাজ এসব ভিডিও ব্যবহার করে তার কাজ আদায় করতেন।

র‌্যাবের ভাষ্যমতে, সিনেমায় নাম লেখানোর আগে রাজের কাছে ছিলেন পরীমনি। বিভিন্ন রাজনৈতিক পরিচয় কপটতার সঙ্গে ব্যবহার করে নানাবিধ কুকর্ম করে বেড়াতেন রাজ। দুইজন তরুণী ছিলেন সার্বক্ষণিক সঙ্গী। এদেরকে দিয়েই তিনি ব্ল্যাকমেইলিংয়ের কাজ করাতেন।

পাশ্চাত্য পোশাকে অভ্যস্ত এসব তরুণীরা বিভিন্ন উচ্চবিত্ত ও সরকারি কর্মকর্তাদের ফাঁদে ফেলে কাজ আদায় করতেন বলে জানা গেছে। এসব পদ্ধতি ঘুষের চেয়েও সহজ ছিল রাজের কাছে।

সূত্র থেকে জানা যায়, একাধিক নারী-পুরুষ একসঙ্গে বিকৃত যৌনাচারে ব্যবহার্য সরঞ্জামাদি দিয়ে সজ্জিত একটি ঘর পাওয়া যায় রাজের বাসায়। এই ঘরটিতে রয়েছে বিশেষ বিছানা। এই বাসাতে পর্নো ভিডিও বানানো হত বলেও জানা গেছে।

এর আগে, বুধবার (৪ আগস্ট) রাত ৮টার দিকে র‍্যাবের একটি দল বনানীর জি ব্লকের ৭ নম্বর রোডের ৪১ নম্বর বাসায় অভিযান শুরু করে। র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের উপ-পরিচালক মেজর হুসাইন রইসুল আজম মনি সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

র‍্যাবের অভিযানে ওই বাসা থেকে বিপুল পরিমাণে বিদেশি মদ, ইয়াবা বড়ি, সেক্স টয় উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল কে এম আজাদ বলেন, রাত সাড়ে ৮টার দিকে বনানীর ৭ নম্বর সড়কে নজরুল ইসলাম রাজের কার্যালয়ে অভিযান শুরু করে র‌্যাবের একটি দল। পরে তাকে আটক করা হয়। তার কার্যালয় থেকে বিপুল পরিমাণে বিদেশি মদ, ইয়াবা বড়ি, সেক্স টয় উদ্ধার করা হয়। তিনি আরও জানান, রাত পৌনে ১২টায় তাকে র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

জানা গেছে, রাজের সঙ্গে পরীমনির ঘনিষ্ঠতা ছিল। প্রায়ই পরীমনির বাসায় তারা মদের আড্ডা জমাতেন। রাজ প্রযোজিত চলচ্চিত্রতেও পরী অভিনয় করেছেন। তিনি রাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার।

এর আগে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে আটক করে র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়। পরীমনিকে আটকের পরই রাজের বাসায় অভিযান শুরু করে র‌্যাব। এরপর রাত পৌনে ১২টায় রাজকেও র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

র‍্যাব আরও জানায়, নজরুল রাজের সমন্বয়ে চক্রের সদস্যরা লেটনাইট পার্টির নামে মদ-মাদক ও নাচের আসর বসাত। সেখানে আসা উচ্চবিত্তের সন্তানদের মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ ও স্থির ছবি তুলে ব্ল্যাকমেইলিং করে মোটা অংকের টাকা আদায় করতেন তারা। ব্ল্যাকমেইলিং এই চক্রে জড়িত অন্যদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

রাজধানীর গুলশানের একটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট থেকে মুনিয়া নামে এক তরুণীর মরদেহ উদ্ধারের পর আলোচনায় আসেন চলচ্চিত্র প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ।