অসম ও অরুণাচল থেকে ধেয়ে আসছে বন্যার পানি

0
204

নিজস্ব প্রতিবেদক : অসম ও অরুণাচল থেকে ধেয়ে আসছে বন্যার পানি। তা সরাসরি চলে আসছে ভাটিতে দেশের ভেতর। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অসম, অরুণাচলের বন্যার পানি নেমে আসার কারণেই দেশে নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অসম অরুণাচলের বন্যার পনির ভাটিতে নেমে আসার কারণে উত্তর ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জেলাগুলোতে প্রবল বন্যার আশঙ্কাও করছেন তারা। এর সঙ্গে যোগ হচ্ছে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি। সোমবার থেকে ডালিয়া সীমান্তে তিস্তা নদীর পানি ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জানা গেছে, ভারতের গজল ডোবায় তিস্তার সব বাঁধ খুলে দেয়ায় তিস্তার পানি হুহু করে বাড়ছে। এ কারণেই নতুন করে এ অঞ্চলে প্রবল বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

কয়েকদিন ধরেই দেশের অন্যতম প্রধান নদী যমুনা বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছে, মূলত ভারি বর্ষণ আর উজান থেকে নেমে আসার কারণেই যমুনা নদীর পানি বাড়ছে। যদিও সোমবার এ নদীর পানি সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে স্থিতিশীল ছিল। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, যমুনা নদীর পানি বাহাদুরাবাদে ৩৬ সেন্টিমিটার, সারিয়াকন্দিতে ২৪ সেন্টিমিটার, কাজিপুরে ২০ সেন্টিমিটার এবং সিরাজগঞ্জে বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যার পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী সরদার উদয় রায়হান বলেন, ব্রহ্মপুত্র, গঙ্গা- পদ্মা, সুরমা কুশিয়ারা নদীর পানি সমতলে বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপরদিকে যমুনা নদীর পানি সমতলে স্থিতিশীল রয়েছে। তবে তিনি উল্লেখ করেন সমতলে এসব নদীর পানি আগামী ৪৮ ঘণ্টা বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, নদীর সমতলে তাদের ৯০টি স্টেশনের মধ্যে সোমবার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ৫৫ কেন্দ্রের। হ্রাস পেয়েছে ২৫টি স্টেশনের পানি। এর মধ্যে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে ১২টি স্টেশনের পানি।

এদিকে দেশে ওপর দিয়ে বিস্তার লাভ করা মৌসুমি বায়ু আরও অধিক সক্রিয় অবস্থায় রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। তারা জানায়, মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে আজ মঙ্গলবার, রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টির কারণে সিলেট বিভাগের পাহাড়ী এলাকার কোথাও কোথাও ভূমিধসের সম্ভাবনা রয়েছে বলে এতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এছাড়া ২৪ ঘণ্টার আবহাওয় পূর্বাভাসে বলা হয়েছে ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে। ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে। আবহাওয়ার সিনপটিক অবস্থা সম্পর্কে আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, মৌসুমি বায়ুর অক্ষ পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে অসম পর্যন্ত বিস্তৃত। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

জানা গেছে, ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ব্রহ্মপুত্র-বরাক নদীর উপত্যকায় প্রবল বৃষ্টিপাতের ফলে ওই এলাকায় ব্যাপক বন্যা দেখা দিয়েছে। এর প্রভাবে পাঁচ লাখ মানুষ এই বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই বন্যার পানি এখন ভাটিতে নেমে আসছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে বাংলাদেশের উত্তর এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় জেলাগুলোতে প্রবল বন্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ভারতের সরকারের তথ্যমতে, বন্যায় এ পর্যন্ত ২০ জন মারা গেছে। অরুণাচল প্রদেশে জারি করা হয়েছে লাল সতর্কতা। মণিপুর কার্যত অচল। নাগাল্যান্ডে ধসের কারণে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ আটকা পড়েছে। বিভিন্ন জায়গায় উদ্ধারকাজে সেনা ও বিমানবাহিনীর সদস্যদের কাজে লাগানো হচ্ছে। বন্যার কারণে ব্রহ্মপুত্র ও বরাক নদের পানি ফুঁসে উঠছে। এর আগে বরাক কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় জেলায় সিলেট সুনামগঞ্জসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় মানুষ বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে। এখন যমুনা পানি বৃদ্ধির কারণে উত্তরের জেলাগুলোতে নতুন করে প্লাবিত হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অসম অনুনাচলের বন্যার কারণে উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও উত্তরের জেলায় প্রবল বন্যায় আক্রান্ত হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here