অস্থির ও অবক্ষয়গ্রস্ত সমাজে ব্যক্তির বেঁচে থাকা

0
290

সালাম সালেহ উদদীন : সমাজ সুস্থ ও স্বাভাবিক ধারায় চলতে না পারার শত কারণ রয়েছে। অন্যতম প্রধান কারণ দেশের একশ্রেণির মানুষের নিষ্ঠুরতা অমানবিকতা, সীমাহীন লোভ, অসততা ও উচ্চাভিলাষ । তারা সাধারণ মানুষকে জিম্মি ও মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে রাতারাতি বিল গেটসের মতো বিত্তশালী হতে চায়। এরা কেবল মানুষেরই শত্রু নয়, দেশেরও শত্রু। স্বাধীনতার ৪৬ বছরেও দেশের সাধারণ মানুষ যে অসহায় শোষিত বঞ্চিত _ তা শুধু এদের কারণেই। এদের চিহ্নিত করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে না পারলে মানুষের মুক্তি নেই। মনে রাখতে হবে একেক সময় একেক ঢেউ এসে আছড়ে পড়ে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনে। ঢেউয়ের তোড়ে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে চায় আমাদের যাবতীয় গৌরব ও অর্জন। ফলে আমরা সামনের দিকে এগুনোর পরিবর্তে কেবল পিছিয়ে পড়ি। কর্মদক্ষতা ও কর্মকৌশল যদি না থাকে, যদি কেউ হন অভিজ্ঞতাশূন্য তবে তার দ্বারা ভালো কাজ করা সম্ভব নয়। ভালো কাজের জন্য সমাজে ভালো মানুষ তৈরি করতে হবে। সামাজিক অবক্ষয় রোধে ও স্থিতিশীলতার জন্য যা অপরিহার্য।
সালাম সালেহ উদদীন
কথায় বলে জীবন যেখানে থেমে যায়, মৃত্যু সেখানে কড়া নাড়ে। জীবনকে এক সময় মৃত্যুর কাছে সমর্পিত হতেই হয়। এই ক্ষণিকের জীবনকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য মানুষ কী না করে। নিকৃষ্ট পেশা থেকে উৎকৃষ্ট পেশায় মানুষ কেবল বেঁচে থাকার জন্য নিরন্তর কাজ করে যায়। জীবন যতদিন থাকে মানুষের স্বপ্ন ও আকাঙ্ক্ষাও ততদিন থাকে। টমাস মুলার বলেছেন_ ‘নদীর স্রোত আছে তাই নদী বেগবান। জীবনে দ্বন্দ্ব-সংঘাত-সংগ্রাম আছে তাই জীবন বৈচিত্র্যময়।’
স্বপ্নাচারী মানুষ স্বপ্নবিলাসী মন নিয়ে কত জায়গায় না ভ্রমণ করছে। কত ধরনের কাজই না করেছে, তবুও তার তৃষ্ণা মেটেনি। স্বপ্ন পূরণ হয়নি। কারণ জীবন মানেই হচ্ছে এক অনিশ্চিত ভ্রমণ। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে কী পেলাম সেটাই বড় প্রশ্ন নয়, বরং কী করেছি সেটাই বড় এবং প্রধান প্রশ্ন। যিনি গরিব তিনি ভাবেন কীভাবে বেঁচে থাকব, আর যিনি ধনী তিনি ভাবেন কীভাবে আরও ধনী হবো। ধনী আর গরিবের আকাঙ্ক্ষা ও স্বপ্ন এক নয়। একজনের আকাঙ্ক্ষা বেঁচে থাকার, অন্যজনের আরও ধনী হওয়ার এবং জীবনকে উপভোগ করার। তবে এ দেশের গরিব মানুষ কেবল বেঁচে থাকার জন্য যে কষ্ট ও সংগ্রাম করে তা নজিরবিহীন ও বিস্ময়কর।
একজন নির্মাণ শ্রমিক জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দশ-পনের তলায় ঝুলে কাজ করে কেউ কেউ মারাও যায়, বুট পলিশওয়ালা ১৬ ঘণ্টা একটা কাজ করে। এদেশের পোশাক শ্রমিকদেরও একই অবস্থা। ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাও এই কাতারেই। জীবন সংগ্রামের যেন শেষ নেই। মূলত জীবন হচ্ছে সাদা কাগজের পাতা। যে যেভাবে লিখে জীবন তার কাছে দুঃখের সুখের কিংবা উপভোগের হয়ে ওঠে। মানুষের জীবন এক চমৎকার উপভোগ্য উপকথা_ যা সৃষ্টিকর্তা নিজে লিখেছেন।
একজন বাঙালি পিতা তার স্ত্রী-সন্তানদের বাঁচিয়ে রাখার জন্য কতই না কষ্ট সংগ্রাম করে। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে অর্থ উপার্জন করে। স্বামী পরিত্যক্তা কিংবা বিধবা মহিলাদের জীবন সংগ্রাম আরো কঠিন। বাংলাদেশে যে কোনো শ্রমের মূল্য অত্যন্ত কম থাকায় এবং জীবন যাত্রার ব্যয় অত্যধিক হওয়ায় সাধারণ মানুষ মেরুদ- সোজা করে দাঁড়াতে পারে না। ভগ্ন স্বাস্থ্য নিয়ে ভঙ্গুর জীবনযাপন করে এবং স্ত্রী-সন্তানদের অন্ধকারে রেখে অথবা ভবিষ্যতের হাতে ছেড়ে দিয়ে একদিন মারা যায়। তখন হয়তো আকাশে-বাতাসে উচ্চারিত হয় ‘মরণের তুহুমম শ্যামসমান।’
মানুষই একমাত্র প্রাণী, যাকে জন্মের পর প্রতিপালন করে মানুষ করতে হয়। এই মানুষ করার দায় অভিভাবকদের। যে অভিভাবকই আজকাল অমানুষ হয়ে বসে আছে। তবে সবাই নয়_ বিবেকতাড়িত বুদ্ধিমান মানুষ সমাজে এখনো রয়েছে। তা না হলে সমাজ টিকে আছে কী করে। যারা এখনো সন্তানদের নীতি-নৈতিকতার গ-িতে আবদ্ধ রাখতে চান। সৎ ও আদর্শ হওয়ার শিক্ষা দেন।
একজন পিতা সারাজীবনের চেষ্টা সাধনায় ও শ্রমের মাধ্যমে যে সন্তানকে মানুষ করলেন সে সন্তান তাকে ছেড়ে চলে যায়, একজন স্বামী যে স্ত্রীর শত সাধ পূরণ করল জীবনবাজি রেখে, সে স্ত্রীও তাকে রেখে চলে যায়। দুঃসময়ে আত্মীয়-স্বজনরা মুখ ফিরিয়ে নেয়। পিতা-মাতাকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে সন্তানরা বিশ্ব দাপিয়ে বেড়ায়। এ সমাজে এখন প্রেম-প্রীতি, স্নেহ ও ভালোবাসার বন্ধনের আর কোনো মূল্য ও মর্যাদা নেই। অমানবিকতা, বাণিজ্যিক মানসিকতা ও নিষ্ঠুরতাই যেন সবাইকে পেয়ে বসেছে। তাই দেখা যায় সন্তান মাকে বাবাকে খুন করছে, খুন করছে ভাই, ভাইকে। দিনে দিনে মানুষ নিষ্ঠুর ও অমানবিক হয়ে যাচ্ছে। ক্ষেত্রবিশেষে হয়ে পড়েছে নির্লজ্জও। আমরা এতটাই অসহিষ্ণু যে, পঞ্চাশ-একশো টাকার জন্য মানুষ হত্যা করি। আমাদের যাপিত জীবনে এমন ঘটনা অহরহই ঘটছে। আমরা সংস্কৃতিগতভাবে এতটাই পিছিয়ে আছি যে, চারদিকে কেবল অসহিষ্ণুতার ও নিষ্ঠুরতার ছাপ। আমাদের চিত্ত সঙ্কীর্ণ এবং অপসংস্কৃতির গোড়ামিতে ঠাসা। আমরা দিনে দিনে উগ্র ও অপসংস্কৃতির ধারক-বাহক হয়ে উঠছি। চারদিকে কেবল অস্থিরতা ও নৈতিক অবক্ষয়ের চিত্র। এ অস্থিরতার ছাপ যাতায়াতে, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারে এবং মানুষের জীবনাচরণে পড়েছে ব্যাপকভাবে। তাই জীবন বাঁচিয়ে রাখার ক্ষেত্রে মানুষ আজ দিশাহারা। তাদের জীবন আজ বিপন্ন।
একজন মানুষের জীবনকে অর্থহীন কিংবা ব্যর্থ করে তোলার জন্য কেবল ব্যক্তি নিজে বা পরিবারই দায়ী নয়, সমাজ ও রাষ্ট্রও সমভাবে দায়ী। যে পরিবারে সে জন্ম নেয় এবং বেড়ে ওঠে, সে পরিবার তার জীবনের বিকাশ ও প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে থাকে উদাসীন। ফলে একজন ব্যক্তি সহজেই উচ্ছন্নে যায়। পাড়ায়, মহল্লায় সে যেসব দোস্ত-বান্ধবদের সঙ্গে চলাফেরা করে তারা তাকে আলোর পথ রেখে অন্ধকারে নিয়ে যায়। যে সমাজ ও রাষ্ট্রে সে বসবাস করে সেখানেও জীবনমান উন্নয়ন কিংবা জীবন বিকাশের সুযোগ নেই। এমন অবস্থায় ব্যক্তিজীবন যে হতাশায় নিমজ্জিত হবে মুখ থুবড়ে পড়বে এটাই স্বাভাবিক।
আমরা কথায় কথায় বলি জীবন তো একটাই, ভোগ, উপভোগ করে যাও। আমরা জীবনকে ভোগ-উপভোগ করতে গিয়ে জীবনের অপচয় করি। জীবন বিনাশের দিকে চলে যাই। পরিচর্যাহীন জীবন সামনের দিকে খুব বেশি দূর এগোতে পারে না। প্রকৃতপক্ষে সুশৃঙ্খল ও নিয়ন্ত্রিত জীবন এনে দেয় প্রকৃত জীবনের স্বাদ। যে জীবন হতাশাগ্রস্ত, এই জীবনে বাঁচার আগ্রহ থাকে না। স্নেহ প্রেম, ভালোবাসা, আত্মপ্রেম সবকিছুকে পেছনে ফেলে এ জীবন সমাপ্তির দিকে যায়। যাকে আমরা বলি জীবন সংগ্রামে পরাজিত মানুষ। এ পরাজিত মানুষের সংখ্যাই সমাজে বৃদ্ধি পাচ্ছে।
নিজের জীবনের ভার বহন করতে হয় নিজেকেই, নিজেকেই জীবন বিকশিত করতে হয়। জীবন সংগ্রামে পরাজিত মানুষ বেশিরভাগ সময় এ কঠিন সত্য উপলব্ধি করতে পারেন না। কারণ বাংলাদেশ এমন একটি রাষ্ট্র যেখানে নিজের চেষ্টা ও সংগ্রামে বেঁচে থাকতে হয়, নিজের ভাগ্য নিজেই গড়তে হয়। এখানে সমাজ, সরকার, রাষ্ট্রের বিশেষ কিছু করার নেই। অথচ একটি গণতান্ত্রিক ও কল্যাণমূলক রাষ্ট্রে জনগণের জীবনমান উন্নয়নের দায়িত্ব সরকারের ওপরই বর্তায়।
উন্নত দেশে বেকার ভাতা চালু থাকলেও বাংলাদেশে দিনে দিনে বেকারের সংখ্যা বাড়ছে। দেশে তো কর্মসংস্থান নেই-ই, এমনকি যারা ভিটে-মাটি বিক্রি করে বিদেশে পাড়ি জমিয়েছে নিজের ও পরিবারের সুখ-শান্তির প্রত্যাশায় তারাও আজ পথে বসার উপক্রম। অনেকেই ভিখারি হয়ে দেশে ফিরে আসছে। দেশে এসে কী করবে এমন ভাবনায় তাড়িত হয়ে অনেকেই ফিরতেও চাচ্ছে না। আবার অনেকে দুঃখ হতাশায় আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে। মানুষের জীবন কতটা তুচ্ছ ও মূল্যহীন তা এ ঘটনার দ্বারা প্রমাণিত ও প্রতিষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশে পণ্যের মূল্য দ্বিগুণ তিনগুণ হয়, কিন্তু মানুষের মূল্য বাড়ে না। কবি বলেছেন_ ‘সবার উপরে মানুষ সত্য তাহার উপরে নাই।’ অথচ সে মানুষই আজ পর্যুদস্ত ও বিপন্ন, জীবন সংগ্রামে পরাজিত। এ পরাজিত মানুষের সংখ্যা যদি দিনে দিনে বাড়তে থাকে, তবে দেশের আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি এক ভয়াবহ আকার নেবে। তখন সরকারের পক্ষেও সামাল দেয়া সম্ভব হবে না।
সমাজ সুস্থ ও স্বাভাবিক ধারায় চলতে না পারার শত কারণ রয়েছে। অন্যতম প্রধান কারণ দেশের একশ্রেণির মানুষের নিষ্ঠুরতা অমানবিকতা, সীমাহীন লোভ, অসততা ও উচ্চাভিলাষ । তারা সাধারণ মানুষকে জিম্মি ও মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে রাতারাতি বিল গেটসের মতো বিত্তশালী হতে চায়। এরা কেবল মানুষেরই শত্রু নয়, দেশেরও শত্রু। স্বাধীনতার ৪৬ বছরেও দেশের সাধারণ মানুষ যে অসহায় শোষিত বঞ্চিত _ তা শুধু এদের কারণেই। এদের চিহ্নিত করে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে না পারলে মানুষের মুক্তি নেই। মনে রাখতে হবে একেক সময় একেক ঢেউ এসে আছড়ে পড়ে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনে। ঢেউয়ের তোড়ে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে চায় আমাদের যাবতীয় গৌরব ও অর্জন। ফলে আমরা সামনের দিকে এগুনোর পরিবর্তে কেবল পিছিয়ে পড়ি। কর্মদক্ষতা ও কর্মকৌশল যদি না থাকে, যদি কেউ হন অভিজ্ঞতাশূন্য তবে তার দ্বারা ভালো কাজ করা সম্ভব নয়। ভালো কাজের জন্য সমাজে ভালো মানুষ তৈরি করতে হবে। সামাজিক অবক্ষয় রোধে ও স্থিতিশীলতার জন্য যা অপরিহার্য।
ফুলের সৌন্দর্যে আমরা মুগ্ধ হলেও ফুল একদিন ঝরে পড়ে, ছায়াও একসময় সরে যায়_ সময়ও চলে যায়। তাই সময়ের যথাযথ ব্যবহার করা উচিত, কারণ সময়ের অপর নাম সম্পদ। অথচ আমরা সময়কে আজও সম্পদে পরিণত করতে পারিনি। সময়কে সম্পদে পরিণত করতে পারলেই জীবন বদলে যাবে, ব্যক্তির রুচি ও মানসিকতার বদল ঘটবে। দেশও এগিয়ে যাবে। আমরা তেমনটাই চাই। এমন দিনের অপেক্ষায়ই আছি।

সালাম সালেহ উদদীন: কথাসাহিত্যিক, সাংবাদিক ও কলাম লেখক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here