‘অাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে চলচ্চিত্র নির্মাণে সহায়তা করা হবে’

0
227

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৫ গ্রহণ করছেন অভিনেতা শাকিব খান।
অাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে চলচ্চিত্র নির্মাণে সহায়তা করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্রে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৫’ প্রদান অনুষ্ঠানে এই কথা জানান তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, নানা সময়েই নানা রকম খবর আসে শিল্পীরা চিকিৎসা করাতে পারছেন না, টাকা-পয়সা নেই। যেখানে অনেক সন্তানই বাবা-মার খোঁজ খবর নেন না সেখানে একজন শিল্পীর কে খোঁজ নেবে। আর যেন কোনো শিল্পীকে কষ্ট পেতে না হয়, অর্থাভাবে, চিকিৎসার অভাবে মারা যেতে না হয় সে ব্যবস্থা আমি করে যেতে চাই।

তিনি বলেন, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অধীনে একটা ফান্ড আছে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনেও একটি ফান্ড রয়েছে। সে ফান্ডকে আরো বড় পরিসরে করতে চাই। যাতে কোনো শিল্পীকে কারো কাছে হাত পাততে না হয়।

তিনি আরও বলেন, যারা চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন তারা আরও উন্নতমানের সিনেমা নির্মাণ করবেন, যা আমাদের ঐতিহ্য, ইতিহাস ও সংস্কৃতি-কৃষ্টি সব কিছু ধারণ করতে পারে। দেশের মানুষ এবং আন্তর্জাতিকভাবে যেন আরও সুনাম অর্জন করতে পারে সেদিকে দৃষ্টি দেয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত রয়েছেন জাতীয় সংসদের তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতউল্লা ও তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ প্রমুখ।

তথ্য মন্ত্রণালয় গত ১৯ মে ২০১৫ সালের চলচ্চিত্র শিল্পে ২৫টি ক্যাটাগরিতে অসামান্য অবদান রাখার জন্য ৩১ জনের নাম ঘোষণা করে। নির্বাচিতরা হলেন-চিত্রনায়িকা শাবানা ও সংগীতজ্ঞ ফেরদৌসি রহমান। ‘বাপজানের বায়োস্কাপ’ ও ‘অনিল বাগচীর একদিন’ যুগ্মভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, ‘একাত্তরের গণহত্যা ও বধ্যভূমি’ শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্য চলচ্চিত্র, রিয়াজুল মওলা রিজু এবং মোরশেদুল ইসলাম যুগ্মভাবে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রধান চরিত্রে শাকিব খান ও মাহফুজ আহমেদ যুগ্মভাবে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা ও জয়া আহসান শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার লাভ করছেন।

এছাড়াও পুরস্কার পাচ্ছেন পার্শ্ব চরিত্রে শ্রেষ্ঠ অভিনেতা গাজী রাকায়েত ও শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী তমা মির্জা, খল চরিত্রে শ্রেষ্ঠ ইরেশ যাকের, শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী যারা যারিব । শিশুশিল্পী শাখায় বিশেষ পুরস্কার প্রমিয়া রহমান, শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালক সানী জুবায়ের, শ্রেষ্ঠ গায়ক যুগ্মভাবে সুবীর নন্দী ও এস আই টুটুল, শ্রেষ্ঠ গায়িকা প্রিয়াংকা গোপ, শ্রেষ্ঠ গীতিকার আমিরুল ইসলাম, শ্রেষ্ঠ সুরকার এস আই টুটুল, শ্রেষ্ঠ কাহিনিকার মাসুম রেজা, শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার যুগ্মভাবে মাসুম রেজা ও মোঃ রিয়াজুল মওলা রিজু, শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা হুমায়ুন আহমেদ, শ্রেষ্ঠ সম্পাদক মেহেদী রনি, শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক সামুরাই মারুফ, শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক মাহফুজুর রহমান খান, শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক রতন কুমার পাল, শ্রেষ্ঠ পোষাক ও সাজ-সজ্জা মুসকান সুমাইয়া, শ্রেষ্ঠ মেক-আপম্যান হিসেবে শফিক।