অ্যান্টিবায়োটিকের অযৌক্তিক ব্যবহার

0
254

সম্প্রতি ঢাকায় একটি সম্মেলনে বিশেষজ্ঞরা বাংলাদেশে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বৃদ্ধি ও রোগ নিরাময়ে ইহার কার্যকারিতা হারাইবার প্রবণতা নিয়া গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করিয়াছেন। সাধারণত ব্যাকটেরিয়া, প্যারাসাইট, ভাইরাস অথবা ছত্রাকজনিত কারণে সৃষ্ট রোগের চিকিত্সায় অ্যান্টিবায়োটিক ঔষধ প্রয়োগ করা হয়। এককালে অ্যান্টিবায়োটিকের আবিষ্কার রোগ নিরাময়ে বিস্ময়কর অবদান রাখিয়াছিল। কিন্তু উন্নতবিশ্ব কিংবা বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলি অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেয় নাই। উন্নয়নশীল দেশগুলিতে যেই সকল রোগের সংক্রমণ সবচাইতে বেশি সেই সকল ক্ষেত্রে অ্যান্টিবায়োটিকের রোগ মোকাবিলার ক্ষমতা ক্রমেই হ্রাস পাইতেছে। অ্যান্টিবায়োটিক কাজ না করিবার কারণ হিসাবে বলা হইতেছে, চিকিত্সকেরা এই ধরনের ঔষধ বেশি ব্যবহার করায় এবং রোগীরা ঔষধ ঠিকমতো না খাওয়ায় জীবাণু ঔষধ প্রতিরোধী হইয়া উঠিয়াছে। সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এইরূপ অসচেতনতা বা দায়িত্বহীনতা অব্যাহত থাকিলে ২০৫০ সনে সবচাইতে বেশি মানুষ মারা যাইবে মূলত অ্যান্টিবায়োটিক অকার্যকর হইবার কারণেই।

জানা যায়, দেশে অ্যান্টিবায়োটিকের বাজার প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার। ইহা ঔষুধ বাজারের প্রায় ১৬ শতাংশ। অ্যান্টিবায়োটিকের অযৌক্তিক ব্যবহারের কারণেই বস্তুত বাজার বড় হইতেছে। ঔষধ শিল্পখাতে স্থানীয়ভাবে অ্যান্টিবায়োটিক উত্পাদনের লক্ষ্যে কোনো গবেষণা ও উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয় না। ফলে রোগ নিরাময়ে ইহার অকার্যকারিতা অন্যতম জনস্বাস্থ্য সমস্যা হইয়া দেখা দিয়াছে। অ্যালার্জিজনিত সমস্যা ব্যতিরেকেও বিভিন্ন অ্যান্টিবায়োটিকের দীর্ঘদিন ব্যবহারের কারণে ভিন্ন ভিন্ন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তৈরি হয়। বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ও অযৌক্তিক ব্যবহারের বিষয়টি বিশেষ উদ্বেগের বিষয়। আইন অনুযায়ী, ব্যবস্থাপত্র ব্যতিরেকে কোনো অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার নিষিদ্ধ। অথচ, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতিরেকে রোগীরা নিজেরাই এই ঔষধ ব্যবহার করেন এবং পূর্বপরীক্ষা ও সংশ্লিষ্ট রোগজীবাণু শনাক্ত বা নির্দিষ্ট অ্যান্টিবায়োটিকের প্রতি এইগুলির সংবেদনশীলতা নির্ণয় না করিয়াই ডাক্তারেরা ব্যবস্থাপত্র লিখিয়া দেন। কোনো রকমের ব্যবস্থাপত্র ব্যতিরেকে বা হাতুড়ে ব্যবস্থাপত্রে, এমনকি ক্রেতার মৌখিক চাহিদাতেই অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রয় শহর ও গ্রামাঞ্চলে নিত্যদিনের ঘটনা। অনেক ক্ষেত্রে চিকিত্সকের ব্যবস্থাপত্র অনুসারে অ্যান্টিবায়োটিক খরিদ করা হইলেও প্রধানত অজ্ঞতার কারণে রোগীদের পক্ষে ব্যবহারবিধি মানিয়া চলা বা সম্পূর্ণ চিকিত্সাক্রম শেষ করা প্রায়শই সন্তোষজনক হয় না।

কেবল আমাদের দেশেই নহে, অ্যান্টিবায়োটিক অকার্যকর হওয়া এখন বৈশ্বিক জনস্বাস্থ্য সমস্যা। সমপ্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক প্রতিবেদনে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়, অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহারে জীবাণুগুলি ঔষধ প্রতিরোধী এবং ঔষধের বিরুদ্ধে লড়াই করিয়া টিকিয়া থাকিবার সক্ষমতা অর্জন করিয়াছে। এই অবস্থা হইতে উত্তরণ ঘটানো সম্ভব না হইলে অচিরেই খুব সাধারণ সংক্রমণ, সামান্য কাটাছেঁড়া হইতেও মানুষের মৃত্যুর আশঙ্কা প্রবল হইয়া উঠিতে পারে। বিশ্বের ১১৪টি দেশ হইতে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করিয়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অ্যান্টিবায়োটিকের ওপর প্রতিবেদনটি প্রকাশ করিয়াছে ২০১৪ সনে। বিশেষজ্ঞরা বলিতেছেন, কোনো কোনো দেশে অর্ধেক জনগোষ্ঠীর ওপর আর অ্যান্টিবায়োটিক কোনো কাজ করিবে না। তাই, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ, হাসপাতালে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ এবং রোগ প্রতিরোধে টিকা ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ। একদিকে যেমন আরো নূতন নূতন অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কার হওয়া প্রয়োজন, তেমনি প্রয়োজন সরকার ও সাধারণ মানুষের অ্যান্টিবায়োটিকের সুচিন্তিত ব্যবহার নিশ্চিত করা। তাই এখনই আমাদের সচেতন হইতে হইবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here