আইএফডিসির প্রতিনিধি দলের ঝিকরগাছায় গুটি ইউরিয়া ব্যবহৃত ক্ষেত পরিদর্শন

0
579

এম আর মাসুদ : গুটি ইউরিয়া ব্যবহারে অধিক ফলন ও ব্যয় সাশ্রয়ের কারণে যশোরের ঝিকরগাছায় কৃষকরা এই সার ব্যবহারে ঝুঁকে পড়েছেন। গত ৮ বছরে গুটি ইউরিয়া সারের ব্যবহার বেড়েছে শত গুণ। ৮ বছর আগে আইএফডিসির প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর গুটি ইউরিয়া সার ব্যবহারে কৃষকদের উদ্ভুদ্ধ করেছিল। গুটি ইউরিয়া ব্যবহৃত ক্ষেত পরিদর্শন, কৃষক ও সার প্রস্তুতকারী মিল মালিকের সাথে সাক্ষাত করেছেন আইএফডিসির উর্ধতন কর্মকর্তারা। ৮ বছর আগে ঝিকরগাছা উপজেলায় গুটি ইউরিয়া সার ব্যবহারের লক্ষ্যমাত্রা ছিল মাত্র একশ হেক্টর জমিতে। এবছর গুটি ইউরিয়া সার ব্যবহারের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫ হাজার একশ হেক্টর জমিতে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাব মতে গুটি ইউরিয়া সার ব্যবহার হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে। গত বছর এই সারের ব্যবহারের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪ হাজার ৭০০ হেক্টর জমি।

গত মঙ্গলবার দিনভর ঝিকরগাছার বোধখানা, বারবাকপুর, জাফরনগর ও ফতেপুর গ্রামের গুটি ইউরিয়া সার ব্যবহৃত ক্ষেত পরিদর্শন করেছেন আইএফডিসির উদ্ধর্তন প্রতিনিধি দল। প্রতিনিধি দলে ছিলেন আইএফডিসির ডাইরেক্টর স্কট হাডসন, আইএফডিসির গ্লোবাল ফিল্ড প্রোগ্রাম ডিরেক্টর জেজে রোব গ্রোর্ট, আইএফডিসির দক্ষিণ এশিয় ডেপুটি ডিরেক্টর আলেকজেন্ডার ফার্নেন্ড, আইএফডিসির অপারেশন ডিরেক্টর আজিজ বোলি, আইএফডিসির ডেপুটি ডিরেক্টর (অফিসিয়াল) ওমো কামারা ও অফিস সেক্রেটারি এলিজাবেদ লোচন, আইএফডিসির এশিয়া ডেপুটি ডিরেক্টর ইশরাত জাহান, প্রজেক্ট ম্যানেজার সৈয়দ আফজাল মাহমুদ হোসাইন, জুনিয়র হর্টিকালচারিস্ট বদিউজ্জামান, উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা আইয়ুব হোসেন, আইএফডিসির ফিল্ড কো অর্ডিনেটর মীর আব্দুল মান্নান ও শরিফুল আলম মনি প্রমূখ। এ সময় পরিদর্শন টিম গুটি ইউরিয়া ব্যবহারকারী কৃষক-কৃষাণীদের সাথে কথা বলেন ও ক্ষেত পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন টিমকে বোধখানা গ্রামের কৃষক আলি হোসেন, বারবাকপুর গ্রামের তরিকুল ইসলাম, ইয়াসমিন খাতুন ও নাসরিন নাহার জানান, গত ৪ বছর ধরে তাঁরা গুটি ইউরিয়া সার ও এনপিকের (ইউরিয়া, টিএসপি ও পটাশ) গুটি ব্যবহার করে আসছে। ব্লকের উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা আইয়ুব হোসেনের পরামর্শে তারা এই গুটি ব্যবহার করে ভালো ফলনের পাশাপাশি ব্যয় ও সাশ্রয় হয়েছে। কৃষাণী ইয়াসমিন খাতুন বলেন, তিনি এক বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছেন। আলু ক্ষেতে গুটি ইউরিয়া, সেক্র ফ্রেমন ফাঁদ ও কম্পোস্ট জৈব সার ব্যবহার করেছেন। এ অঞ্চলে ধান, কলা, পটল, পেঁপে, বেগুন, করলা, মরিচ, লাউ, মিষ্টি কুমড়া, আলুসহ প্রায় সকল ফসলে কৃষকরা গুটি ইউরিয়া ব্যবহার করেন। এই ব্লকের উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা আইয়ুব হোসেন জানান, গুটি ইউরিয়া ফসলে একবার দিলেই হয়। প্রতি বিঘা ফসলে ২৩ কেজি গুটি ইউরিয়া লাগে অথচ সারারণ ইউরিয়া লাগে ৪০ কেজি। এ অঞ্চলে গুটি ইউরিয়া ও ধান লাইন পদ্ধতিতে (সারিবদ্ধ) লাগানোর জন্য একটি শ্রমিক দল আছে। বোধখানা ব্লকের ৭০ ভাগ জমিতে গুটি ইউরিয়া ব্যবহার করা হয়। এবং সকল ফসলই লাইন পদ্ধতিতে (সারিবদ্ধ) লাগানো হয়। গুটি ইউরিয়া প্রস্তুতকারী মিল মালিক হাসানুজ্জামান ডালিম জানান, চলতি মৌসুমে তিনি এ অঞ্চলের কৃসকের কাছে ৪৮ টন গুটি ইউরিয়া ও ৩০ টন ৫০০ কেজি এনপিকে গুটি ইউরিয়া সার বিক্রি করেছেন। তিনি নিজেও ১৮/২০বিঘা ইরি-বোরো ধানের জমিতে এনপিকে গুটি ইউরিয়া ব্যবহার করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here