আইনি সুরক্ষা নিশ্চিত হোক

0
266

বাংলাদেশে স্বাস্থ্যসেবার প্রসার ঘটেছে, তাতে সন্দেহ নেই। সরকারি স্বাস্থ্যসেবা শহর-বন্দর ছাড়িয়ে গ্রাম পর্যায়ে বিস্তৃত। বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিক-প্যাথলজি সুবিধারও বিস্তৃতি ঘটছে। আশির দশকের শুরুতে প্রণীত জাতীয় ওষুধ নীতি বাস্তবায়নের কারণে জীবন রক্ষাকারীসহ প্রয়োজনীয় প্রায় সব ওষুধ দেশেই তৈরি হচ্ছে। কয়েকটি কোম্পানির প্রোডাক্ট উন্নত বিশ্বের বাজারেও জায়গা করে নিতে পারছে। স্বাস্থ্যসেবায় অগ্রগতির একটি প্রমাণ গড় আয়ু বৃদ্ধি। স্বল্পোন্নত দেশের চৌহদ্দি অতিক্রম করে কেবল নিম্নমধ্যম আয়ের দেশে আমাদের উত্তরণ ঘটেছে; কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য বলছে_ গড় আয়ু দাঁড়িয়েছে প্রায় ৭২ বছরে। এ অর্জন বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হচ্ছে। তবে স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে সমস্যাও কম নেই। দরিদ্র ও নিম্নবিত্ত জনগোষ্ঠী জটিল ও দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হলে চরম দুর্দশায় পড়ে। ক্যান্সার, কিডনি জটিলতা, হৃদরোগসহ অনেক ধরনের রোগের কারণে এমনকি মধ্যবিত্ত-উচ্চবিত্ত পরিবারও সর্বস্বান্ত হয়ে পড়ে। এ ছাড়াও আছে চিকিৎসায় অবহেলা, নিম্নমানের ওষুধ বাজারজাত করা, বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিক-প্যাথলজি কেন্দ্রে উচ্চ হারে চার্জ নির্ধারণ প্রভৃতি সমস্যা। এসবের প্রতিকারে আইন আছে, কখনও কখনও প্রয়োগও হয়। আবার যথাযথ প্রয়োগ না হওয়ার ঘটনাও কম নেই। সোমবার সমকালে ‘ড্রাগ আদালতে মামলা’ শিরোনামের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তদন্তের দুর্বলতায় রেহাই পেয়ে যায় অপরাধীরা। ভেজাল ও নকল ওষুধ উৎপাদন এবং এ ওষুুধ সেবনে কারও মৃত্যু হলে ড্রাগ নিয়ন্ত্রণ আইনে ১০ বছর জেল ও দুই লাখ টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। কিন্তু ওষুধ প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে মামলা দুর্বল করে ফেলা হয়। যার ফলে ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয় ভুক্তভোগীরা। এমনকি নিম্নমানের কিংবা ভেজাল ওষুধ সেবনে মৃত্যু হলেও সব ক্ষেত্রে দণ্ড নিশ্চিত হয় না। এ কারণেই দাবি উঠছে ভেজাল ও নকল ওষুধ উৎপাদনের জন্য দায়ীদের মৃত্যুদণ্ড প্রদানের বিধান রেখে নতুন আইন প্রণয়নের। একই দিনে (সোমবার) সমকালে আরেকটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে স্বাস্থ্যসেবা আইনের খসড়া বিষয়ে। আইন কমিশন নাগরিকদের স্বাস্থ্যসেবার অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ‘স্বাস্থ্যসেবা আইন-২০১৭’-এর খসড়া চূড়ান্ত করেছে। তাদের সুপারিশ হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত বিষয়াদি তদারকি করবে জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন এবং এ সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তি করবে ‘স্বাস্থ্যসেবা বিরোধ নিষ্পত্তি ট্রাইব্যুনাল’। এখন স্বাস্থ্য ও আইন মন্ত্রণালয় এসব সুপারিশ চূড়ান্ত করবে। এ খসড়ায় বিশেষভাবে হতদরিদ্র ও স্বল্প আয়ের জনগোষ্ঠীর চিকিৎসাসেবার অধিকারকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। আমরা চাই, চিকিৎসায় অবহেলা, রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি ও চার্জ আদায় এবং স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর ওষুধ বিক্রয়সহ সংশ্লিষ্ট যে কোনো অপরাধের কঠোর দণ্ডের বিধানসহ আইন এবং তার যথাযথ প্রয়োগ। সোমবার হাইকোর্ট মানসম্পন্ন ওষুধ উৎপাদনে চূড়ান্তভাবে ব্যর্থ হওয়া ২০টি কোম্পানির লাইসেন্স বাতিল করেছেন এবং ১৪টি কোম্পানির অ্যান্টিবায়োটিক উৎপাদন বন্ধ করতে বলেছেন। এমনটিই তো প্রত্যাশিত। আমরা আনন্দ-উজ্জ্বল পরমায়ু চাই, সবার সুস্বাস্থ্য চাই এবং এ জন্য আইনি সুরক্ষাও নিশ্চিত করা চাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here