আওয়ামী লীগের উপ-কমিটি গঠনে যত জটিলতা

0
17

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন উপকমিটির খসড়া তাালিকা জমা দেয়ার সময়সীমা ছিলো ১৫ সেপ্টেম্বর। সেই সময়সীমা পার হলেও অনেকেই সেই তালিকা প্রস্তুত করতে পারেননি। উপ-কমিটিগুলোর সদস্য সংখ্যা ৩৫ করার নির্দেশনা থাকলেও বেশ কয়েকটি উপকমিটিতে সংখ্যাটা বাড়িয়ে খসড়া জমা দেয়া হতে পারে। ফলে উপকমিটির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, দলের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিটি বিষয়ভিত্তিক সম্পাদক পদ ঘিরে একটি করে উপকমিটি গঠন করা হয়। এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক বিষয়ক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষা ও মানবসম্পদ উন্নয়ন, প্রচার ও প্রকাশনাসহ অর্ধেকের বেশি উপ-কমিটির খসড়া তলিকা জমা হয়েছে। তবে যেসব উপকমিটি এখনো জমা হয়নি সেগুলো সদস্য সংখ্যা নির্ধারিত সংখ্যার থেকে বেশি হতে পারে।

এছাড়া বর্তমানে দলটির ধর্ম সম্পাদক পদটি খালি থাকায় ধর্ম বিষয়ক উপ-কমিটি খসড়া এই মুহূর্তে করা সম্ভব হবে না। আর শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক পদে সিদ্দিকুর রহমানকে অতি সম্প্রতি মনোনীত করায় এই উপ কমিটি গঠনেও বিলম্ব হতে পারে।

বেশ কয়েকটি উপকমিটির সদস্য সচিব জানান, কেন্দ্র থেকে ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট খসড়া কমিটি জমা দেয়ার নির্দেশনা থাকলেও সেই সংখ্যাটা আরো বাড়তে পারে। কারণ বেশ কয়েকটির খসড়া কমিটি ৩৫ সদস্যের বেশি রেখেই জমা দেয়া হয়েছে। কারণ সাবেক ছাত্রনেতা ও ত্যাগীদের মূল্যানের স্বার্থে সংখ্যা বাড়ানোর চিন্তা করা হচ্ছে। এছাড়া বেশ কয়েকটি সম্পাদকের অধীনে অনেক ত্যাগী নেতা ও সাবেক ছাত্রনেতারা সারা বছর বিভিন্ন কার্যক্রমে সম্পৃক্ত থাকেন। তারা যেন বঞ্চিত না হয় সেদিকে নজর দিচ্ছেন বেশ কয়েকটি উপকমিটির সদস্য সচিবরা।

এরই মধ্যে দপ্তর সেলে জমা দেয়া হয়েছে প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির খসড়া তালিকা। তালিকাটি কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী ৩৫ সদস্যের মধ্যেই রাখা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে উপকমিটির সদস্যসচিব আব্দুস সোবহান গোলাপ বলেন, আমরা ৩৫ সদস্যের মধ্যে কমিটি জমা দিয়েছি। এটি দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা যাচাই বাছাই করবেন। এখানেকেউ বাদ পড়তে পারেন আবার নতুন কেউ যুক্ত হতে পারেন।

এখনো পর্যন্ত আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক উপকমিটি দলের দফতরে জমা দেয়া হয়নি। তবে খসড়া কমিটি চূড়ান্তের কাজ প্রায় শেষ। আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সসম্পাদক এবং উপ কমিটির সদস্য সচিব মৃণাল কান্তি দাস বলেন, আমরা উপ কমিটির খসড়ার কাজ চুড়ান্ত করেছি, তবে এখনো জমা দিতে পারিনি। আশা করি দু-একদিনের মধ্যেই জমা দেব। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ৩৫ জনের কথা বলা হয়েছে, সেভাবেই করা হবে। তবে যদি দল অনুকম্পা করে, তাহলে দু-একজন বাড়াতে পারবো।

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপ-কমিটি দলের দপ্তরে এখনো জমা পড়েনি। উপ-কমিটি গঠন করতে আরো কিছু দিন সময় লাগতে পারে। কারণ করোনা মহামারী, চলমান বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় যারা মাঠে ছিলো তাদের মূল্যায়ন করা হবে। ফলে এই উপ কমিটির সদস্য সংখ্যা ৩৫ এর বেশি হতে পারে।

এ প্রসঙ্গে সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দী বলেন, কমিটি আমরা আগেই করেছিলাম। এখন আবার নতুনভাবে করতে হচ্ছে। এজন্য এখনো জমা দিতে পারিনি, তবে সংক্ষিপ্ততম সময়ের মধ্যেই জমা দেব।

তিনি বলেন, বছর জুড়েই নানা দুর্যোগ মোকাবেলাসহ বিভিন্ন সেবামূলক কাজে আমাদের সম্পৃক্ত থাকতে হয়। ফলে স্বল্পসংখ্যক লোক দিয়ে এগুলো ভালোভাবে করা সম্ভব নয়। এ ছাড়া আমাদের উপকমিটির ত্রাণ ও দুর্যোগ এবং সমাজকল্যাণ এ দুটি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কাজ করতে হয়। ফলে কমিটির কলেবর বৃদ্ধি করার জন্য আমি অনুরোধ জানিয়েছি।

উল্লেখ্য, যে সব জেলা, মহানগর এবং সহযোগী সংগঠগুলোর সম্মেলন হয়েছে; কিন্তু পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি, তাদের আগামী ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দেয়ার জন্য নির্দেশনা দেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

দলের সর্বশেষ সম্পাদকমন্ডলীর সভায় তিনি বলেন, ৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দলের দপ্তর বিভাগে দলের সভাপতি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করে জমা প্রদানের আহ্বান করছি। যে সব জেলা, মহানগর ও সহযোগী সংগঠনের সম্মেলন হয়েছে, পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি; সেই কমিটি ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে জমা দেয়ার জন্য সংগঠনের সব শাখার প্রতি নির্দেশনা দিচ্ছি।