আকাশ সংস্কৃতির আগ্রাসন ও বর্তমান প্রজন্ম

0
223

সংস্কৃতি। যেকোনো জাতির পরিচয় তুলে ধরার জন্য বিশাল একটা পন্থা হলো সংস্কৃতি। সংস্কৃতি হলো রাষ্ট্র বা জাতির মেরুদণ্ড। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি জাতির নিজস্বতা রয়েছে। আর এই নিজস্বতা থেকে সংস্কৃতির উদ্ভব। একটা জাতির মধ্যে যুগ যুগ ধরে চলে আসা নানারকম নিয়ম বা প্রথাই সংস্কৃতি। সংস্কৃতি বলতে আমরা বুঝি মানুষের জীবনের সামগ্রিক রূপকে। বিশ্বে নানান জাতির রয়েছে নানান ভাষা, নানান ঐতিহ্য ওসংস্কৃতি। আজকাল সংস্কৃতি শব্দটির পাশে যোগ হচ্ছে আকাশ সংস্কৃতি। মূলত কৃত্রিম উপগ্রহের মাধ্যমে টিভি চ্যানেল সমূহের বিশ্বব্যাপী প্রচারকেই আকাশ সংস্কৃতি বলা চলে।

আমরা বাঙালি। আমাদের রয়েছে হাজার বছরের সমৃদ্ধ ইতিহাস। কিন্তু কালের স্রোতে আর বিদেশি সংস্কৃতির আগ্রাসনে আমরা হারিয়ে যেতে বসেছি আমাদের নানারকম ইতিহাস-ঐতিহ্য। কিন্তু যেকোনো জাতি নিজের অবস্থান বিশ্বে স্বতন্ত্রভাবে তুলে ধরতে চাইলে সংরক্ষণ করতে হবে নিজেদের সংস্কৃতি।

লোকমুখে একসময় প্রচলিত ছিল আমাদের গোয়াল ভরা গরু ছিল আর পুকুর ভরা মাছ ছিল। এইসব কথা আর এখন বাঙালির লোকমুখে শোনা যায় না। আমাদের বাঙালির একসময় জগত্খ্যাত বেনারসি শাড়ি ছিল। কিন্তু কালের স্রোতে তাও হারিয়ে গেছে। আমাদের নারায়ণগঞ্জকে বলা হতো প্রাচ্যের ডান্ডি। কিন্তু সবই আজ ইতিহাস। আমাদের একসময় তাঁতশিল্প, মৃিশল্প, বুননশিল্প, কামারশিল্প, হস্ত শিল্প, কুটির শিল্পসহ নানারকমের শিল্প ছিল কিন্তু আজ এগুলো প্রায় অতীত হয়ে যাচ্ছে। দেশের বাজার এখন বিদেশি পণ্যে সয়লাব। আর এতে করে হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে আমাদের দেশের মূল শিল্পগুলো। দেশের নির্দিষ্ট কিছু জায়গায় এগুলোর ব্যবহার বা উত্পাদন হলেও নতুন প্রজন্মের মধ্যে তার ব্যবহার লক্ষ করা যায় না। এভাবেই দেশের অনেক ঐতিহ্য বিলীন হয়ে যাচ্ছে দিনের পর দিন। এদেশের শীতল পাটি, নকশিকাঁথা, বালিশের কাভার, বেতের কাজ, হাতপাখা আরো কতকিছু ছিল আমাদের এই এলাকার ঐতিহ্য। কিন্তু এগুলোও আজ বিদেশি সংস্কৃতির আগ্রাসনে প্রায় হারিয়ে যেতে বসেছে।

আমাদের মহমনসিংহ অঞ্চলের ঘাটুগান, বৃহত্তর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জারি গান, সিলেটের মনিপুরী নাচ, উত্তরাঞ্চলের ভাওয়াইয়া গান আজ বিলুপ্তপ্রায়। লোকজ শিল্প ঠাঁই পাচ্ছে জাদুঘরে। আজকালকার প্রজন্ম বিদেশি ডিশএন্টেনা, ডিভিডি, ভিসিআর, আইফোনের প্রভাবে পশ্চিমা পপ গান, রকগান, হাওয়াইন গানের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠছে। আর এতে করেই ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে নিজস্ব লোকজ সংস্কৃতি।

আমাদের গৌরবের ২১শে ফেব্রুয়ারি, পহেলা বৈশাখ, মহান স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস ইত্যাদি মহান দিনগুলোর চেয়ে আজকালকার তরুণদের মধ্যে বেশি প্রাধান্য পায় ভ্যালেন্টাইন ডে, ফ্রেন্ডশিপ ডে, ফাদারডে, মাদারডে আরো কতকিছু। কিন্তু এইসব দিন কিন্তু আমাদের সংস্কৃতির আওতাভুক্ত নয়। নতুন প্রজন্ম এইগুলো এখন পালন করছে, এইগুলো হচ্ছে সংস্কৃতির আগ্রাসনের কারণে। মূলত ব্যবসায়িক চিন্তাধারা থেকে পশ্চিমাদের আবিষ্কৃত নানা ডে। তারা তাদের ব্যবসায়িক চিন্তাধারা পরিবর্তন করে এইসব ডে বের করেছে। কিন্তু পশ্চিমাদের বের করা এই সব ডে আমাদের দেশের রীতিনীতি বা ধর্মের অন্তর্ভুক্ত নয়। হঠাত্ করে নিজেদের মডার্ন বা আলট্রা মডার্ন হিসেবে তৈরি করতে গিয়ে নতুন প্রজন্ম আজ নিজেদের স্বকীয়তা ভুলে গিয়ে পশ্চিমাদের নানারকম সংস্কৃতির ভিতর ঢুকে পড়ছে। এ থেকে বেরিয়ে আসার পথ অবশ্যই বের করতে হবে।

লেখক :শিক্ষার্থী, ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here