আগুন লাগা ফাগুনের পলাশ

0
931
আগুন লাগা ফাগুনের পলাশ- ছবিটি তুলেছেন যশোর পরিসংখ্যান ব্যুরোর উপ-পরিচালক মুহাম্মদ মিঝানুর রহমান হাওলাদার।

ডি এইচ দিলসান :  আস্তে আস্তে শীতের রিক্ততা ভুলিয়ে আবহমান বাংলার প্রকৃতিতে আসতে শুরু করেছে ফাগুনের ছোঁয়া, আগুনরাঙা বসন্তের সুর। এই সময় বাংলাদেশের প্রকৃতি সাজে রাজকীয় সাজে। শীতকালে ঝরে পড়া পাতার ফাঁকা জায়গা পূরণ করতে গাছে গাছে আবার নতুন পাতা গজায়। গাছগুলো সবুজ পাতায় ছেয়ে যায়, পাতার ফাঁকে বসে কুহুকুহু গান ধরে কালো কোকিল। ফুলে ফুলে ভরে যায় গাছগাছালি। দুয়ারে দাঁড়িয়ে ফাগুন। বসন্ত জাগ্রত দ্বারে। এরই মধ্যে প্রকৃতিতে লেগেছে ফাগুনের রঙ। পলাশের ডালে ডালে আগুনঝরা উচ্ছ্বলতা।

পাতাহীন গাছের নগ্ন ডালে প্রকৃতি তার আপন লীলায় মত্ত হয়ে দৃষ্টিকটু গাছে উজ্জ্বল লাল বা গাড় কমলা রঙের এই পলাশ ফুটিয়ে গাছের প্রতি মানুষের আদর ভালোবাসা বাড়িয়ে তোলে। পাতাহীন গাছের সব ডালে যত্রতত্র হয়ে ফুটতে দেখা যায় পলাশকে।

আমায় গেঁথে দাওনা মাগো একটা পলাশ ফুলের মালা’, হলুদ গাঁদার ফুল; রাঙ্গা পলাশ ফুল এনে দে এনে দে নইলে বাঁধবোনা বাঁধবোনা চুল। এমন অজস্র গানের কথায় কিংবা কবিদের কবিতায় বারবার উঠে এসেছে বসন্তের এই প্রতীক।

তবে সৌন্দর্যের এই লীলাভূমি বাংলার দৃশ্যপট আস্তে আস্তে ম্লান হয়ে যাচ্ছে। কারণ অনেকটা হারিয়ে যাওয়ার পথে এই গাছটি। আগে গ্রাম গঞ্জের সবখানে এই ফুলের দেখা মিললেও এখন দেখা পাওয়া খুবই দুস্কর। অনেকের মতে এটি ফলজ বৃক্ষ নয় শুধু ফুল। ফুল ও জ্বালনি ছাড়া কোন কাজে আসেনা বলে এই গাছ লাগাতে মানুষের অনিহা।

বসন্তকে উপলব্ধি করা যায় রক্তিম পলাশ, শিমুল, কাঞ্চন, পারিজাত, মাধবী, গামারী আর মৃদুগন্ধের ছোট ছোট বরুণ ফুলে। এছাড়া গোলাপ, গাঁদা, ডালিয়াসহ হাজারো নামের বর্ণালী ফুলতো বসন্তের সাজ আভরণ হিসেবেই বিবেচ্য। তাই বাংলার প্রকৃতিতে আর দশটি ফুলের মত বেশ গুরুত্ব বহন করে পলাশ ফুল। তাইতো আবহমান বাংলার প্রকৃতির রুপ ও সংস্কৃতি বাচিঁয়ে রাখতে পলাশ ফুলের গাছ টিকে থাকার প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্ব দিয়েছেন সচেতন নাগরিকরা।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here