আজকের বাস্তবতা :কয়েকটি প্রসঙ্গ কিছু মন্তব্য

0
233

আবুল কাসেম ফজলুল হক : দেশজুড়ে ছাত্রলীগ, আওয়ামী যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের অন্তর্বিরোধ কোথাও কোথাও খুনাখুনিতে রূপ নিচ্ছে। আমার মনে হয়, আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কোনো দলই এখন জনগণের কাছে গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক দল বলে প্রতীয়মান হয় না। নিঃরাজনীতিকরণের ব্যাপার আছে। আসলে বাংলাদেশের বামপন্থি-ডানপন্থি কোনো দলের ভেতরে কি এখন রাজনীতি আছে? ক্ষমতার লড়াই আছে, রাজনীতি কোথায়?
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই এর রাজনৈতিক গুরুত্ব অপরিসীম। স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৮০-এর দশক থেকে, এনজিও ও সিএসও বিস্তারের সময় থেকে, রাজনীতি নিষ্প্রভ হয়ে চলছে। মৌলবাদ-বিরোধী আন্দোলন, নারীবাদী আন্দোলন, দুর্নীতি-বিরোধী আন্দোলন, গুরুত্বপূর্ণ সব কিছুর ওপর বিবিসি রেডিওর পরিচালনা ইত্যাদির মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের ডানপন্থি-বামপন্থি সব রাজনৈতিক দল ভেতর থেকে নিঃরাজনীতিকৃত হয়ে পড়েছে। এখন রাজনীতি মূলত ক্ষমতার লড়াই। ক্ষমতা উপভোগের জন্য ক্ষমতা নিয়ে লড়াই। বাংলাদেশের জাতীয় সংস্কৃতিকে বলা হয় জুলুম-জবরদস্তির সংস্কৃতি। এই বাস্তবতায়, জাতীয় পর্যায়ের ক্ষমতার লড়াইয়ে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথিত শিক্ষক রাজনীতি ও কথিত ছাত্র-রাজনীতির ভূমিকা একটুও কমেনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনেট গঠন ও উপাচার্য নিয়োগ নিয়ে যে কাণ্ডকারখানা চলছে, জাতীয় রাজনীতিতে তার প্রভাবকেও সামান্য ব্যাপার বলা যাবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি, বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে রাজনীতি, আর জাতীয় রাজনীতি একই চরিত্রের। বিশ্ববিদ্যালয় বলতে আমি এখানে কেবল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বুঝাচ্ছি। ঘটনার গতি কোন দিকে? ঘটনার ওপর কেবল অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ নয়, বাইরের নিয়ন্ত্রণও আছে। এমনকি বিদেশি নিয়ন্ত্রণও আছে। সারাদেশে যারা খবরের কাগজ পড়েন, টিভি দেখেন, যারা ফেসবুকে আছেন, অনলাইনে আছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তাদের উদ্বেগ লক্ষ করি। এই উদ্বেগ, মনে হয়, কেবল বর্তমান নিয়ে। অতীত-ভবিষ্যত্ বিবেচনায় ধরা হয় না। আমি যখন ছাত্র হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করি, তখন উপাচার্য ছিলেন অধ্যাপক মাহমুদ হোসেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, শিক্ষক, দেশের শিক্ষিত সমাজ—সব মহলেই তাঁকে অত্যন্ত শ্রদ্ধাভাজন দেখেছি। তিনি অনুষ্ঠানাদিতে কম যেতেন। কোনো অনুষ্ঠানে কোনো বিষয়ে কথা বললেই নানা কথার মধ্যে তিনি বলতেন, no knowledge is adequate without the knowledge of history.

বাংলাদেশে এই ইতিহাসবোধ হারিয়ে গেছে। এখানে ইতিহাসবিকৃতি আছে, ইতিহাসের চর্চা নেই। আমার পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসনকে ব্যর্থ করে আসছে যখন যে সরকার ক্ষমতায় থাকে সেই সরকার। দলীয়ভাবে সক্রিয় শিক্ষকদের দলের প্রতি বিবেক-বর্জিত আনুগত্য এবং স্বার্থসন্ধানে অন্ধ ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া দেখে অনেকেই তাদের ‘দলদাস’ বলে অভিহিত করেন। কথিত দলদাসদের মধ্যে শুভবুদ্ধি দুর্লভ। তাদের দৌরাত্ম্যের মধ্যে সাধারণ শিক্ষকদের শুভবুদ্ধিও নিষ্প্রভ।

বাংলাদেশের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়া গিয়ে নাগরিকত্ব গ্রহণের প্রবণতা প্রবল হচ্ছে। মন্ত্রিপরিষদে, জাতীয় সংসদে, প্রশাসন ব্যবস্থার উচ্চস্তরে, বিচারবিভাগে, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষকতায় যারা আছেন, তাদের অন্তত অর্ধেকের ছেলেমেয়ে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া গিয়ে নাগরিক হয়েছেন। এই সেদিন দেখলাম, নির্বাচন কমিশন সিভিল সোসাইটি অরগেনাইজেশনগুলোর বিশিষ্ট নাগরিকদের নিয়ে যে পরামর্শ সভা করেছেন, তাতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোট দানের ব্যবস্থা করার জন্য নির্বাচন কমিশনকে তাগিদ দেওয়া হয়েছে। প্রশ্ন হলো যারা বিদেশে গিয়ে নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন, বাংলাদেশের ভোটার তালিকায় তাদের নাম কি থাকা উচিত? যারা বিদেশে নাগরিকত্ব নিয়েছেন, যাদের স্ত্রী অথবা স্বামী বিদেশের নাগরিক, যাদের সন্তান বিদেশের নাগরিক, বাংলাদেশে গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় পদ লাভের সুযোগ কি তাদের থাকা উচিত। তাদের নেতৃত্বে বাংলাদেশ গড়ে উঠবে? কেউ হয়তো বলতে পারেন, বিয়ের প্রথাই বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে, কাজেই এসব নিয়ে চিন্তার দরকার কী? কেউ হয়তো প্রশ্ন করবেন, এখন বিশ্বায়নের যুগ, এখন বাংলাদেশের রাষ্ট্র সত্তা নিয়ে চিন্তার দরকার কী? কেউ হয়তো বলবেন, এখন উন্নয়নের যুগ, বাংলাদেশ উন্নয়নের ধারায় চলছে।

যারা এ-ধারায় চিন্তা ও কাজ করেন, বাংলাদেশের রাজনীতি সম্পূর্ণ তাদের কর্তৃত্বে আছে। বাংলাদেশের প্রধান দুই দল বাংলাদেশের রাজনীতিকে গড়ে তুলেছেন সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রসমূহের স্থানীয় দূতাবাসসমূহের অভিমুখী—ওয়াশিংটনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের স্টেট ডিপার্টমেন্টের অভিমুখী। কখনো কখনো মনে হয়, বাংলাদেশের রাজনীতির গতি নির্ধারণে ওয়াশিংটন ও দিল্লি নিয়ামক ভূমিকা পালন করছে। বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ভবিষ্যত্ কী?

গত প্রায় চার দশক ধরে সারা দুনিয়ায় আদর্শগত শূন্যতা বিরাজ করছে। গণতন্ত্রে গণতন্ত্র নেই, সমাজতন্ত্রে সমাজতন্ত্র নেই, জাতীয়তাবাদে জাতীয়তাবাদ নেই, বিশ্বায়নে আছে উপনিবেশবাদ, সাম্রাজ্যবাদ ও ফ্যাসিবাদের সমন্বিত যোগফল। আদর্শগত শূন্যতার এই বাস্তবতায় পুরাতন পরিত্যক্ত সব সংস্কার বিশ্বাসের ও ধর্মের পুনরুজ্জীবন ঘটছে। সাম্রাজ্যবাদী শক্তিসমূহের মুখপত্র বিবিসি রেডিও খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে উসকানি দিয়ে দিয়ে ধর্মীয় শক্তিকে ও পুরাতন পরিত্যক্ত সংস্কার বিশ্বাসকে জাগিয়ে তুলছে। এ অবস্থায় ১৯৮০-এর দশক থেকেই কেউ কেউ বলে আসছেন ইতিহাসের চাকা পেছন দিকে ঘুরছে। দুনিয়াব্যাপী ইতিহাসের চাকাকে সামনের দিকে ঘোরানোর জন্য নঞর্থক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে চালানো হচ্ছে মৌলবাদ বিরোধী আন্দোলন। মৌলবাদের ধারণাটিও উদ্ভাবিত হয়েছে এবং প্রচারিত হচ্ছে সাম্রাজ্যবাদী মহল থেকে। এই আন্দোলনের ফলে ধর্মীয় শক্তি প্রতিক্রিয়ায় মত্ত হয়েছে এবং তাতে ইতিহাসের পশ্চাত্গতি দ্রুততর হয়েছে। বাংলাদেশে রাজনৈতিক দলগুলোর বাইরেও প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। অদৃষ্টবাদ (Fatalism) ও জাতীয় হীনতাবোধ (National Ineriority Complex) দ্রুত বাড়ছে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে তেল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ লুটপাটের জন্য সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রগুলো সামরিক আক্রমণ হত্যাকাণ্ড ও যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। এর প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে তালেবান, আলকায়দা, আইএস ইত্যাদি সশস্ত্র মৌলবাদী সংগঠন বা জঙ্গিবাদী সংগঠন। জঙ্গিবাদীরা সক্রিয় আছে বিশ-পঁচিশটা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে—যেসব রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে জঙ্গিবাদ বিরোধী যুদ্ধের চুক্তিতে আবদ্ধ। বাংলাদেশও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে জঙ্গিবাদ বিরোধী যুদ্ধের চুক্তিতে আবদ্ধ। তার ফলে জঙ্গিবাদীরা বাংলাদেশেও বিস্তৃত হয়েছে এবং হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে। এর মধ্যে সরকার দমননীতিতে সাফল্যের পরিচয় দিচ্ছে; কিন্তু আর্থ-সামাজিক সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সমাধানের কথা ভাবছে না। সংস্কৃতির নামে যা চালানো হচ্ছে তাকে সংস্কৃতির মর্ম অনুপস্থিত।

এই জাতীয় বাস্তবতা ও বিশ্ববাস্তবতার মধ্যে মুক্তি লাভ করতে হলে উপযুক্ত রাজনীতি ও রাজনৈতিক নেতৃত্ব লাগবে। শিল্পী, সাহিত্যিক, চিন্তাবিদ লাগবে। হীন-স্বার্থান্বেষাদের নেতৃত্বে মুক্তি সম্ভব হবে না। হুজুগ ও ভাওতা প্রতারণার রাজনীতি দিয়ে হবে না। নৈতিক জাগরণ অপরিহার্য। গণজাগরণ অপরিহার্য। ঘুমন্ত, জনসাধারণ দিয়ে হবে না। জনগণের মধ্যে মহত্ মানবিক গুণাবলির জাগরণ ও সক্রিয়তা লাগবে।

বাংলাদেশে এখন কেবল জাতীয় সংসদের নির্বাচন নিয়ে চিন্তা ও চেষ্টা চলছে। নির্বাচনকেই বলা হচ্ছে গণতন্ত্র। নির্বাচন ভালোভাবে সম্পন্ন হোক এটা আমরা চাই, সারাদেশ চায়। এর সঙ্গে আমরা সংকট ও সম্ভাবনার গভীরতর উপলব্ধি ও গভীরতর চিন্তা-ভাবনাও চাই। মওলানা আকরম খাঁ এবং তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া যে রকম উদ্দেশ্যনিষ্ঠা নিয়ে জেল-জুলুম অতিক্রম করে কাজ করেছিলেন, প্রচার মাধ্যামের জগতে সেইরকম উদ্দেশ্যনিষ্ঠ ভাবুক ও কর্মী দরকার। আকরম খাঁর এবং মানিক মিয়ার উদ্দেশ্য এক ছিল না এখনকার উদ্দেশ্য হবে আরো ভিন্ন। কিন্তু উদ্দেশ্য নির্ণয় ও উদ্দেশ্যনিষ্ঠা লাগবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here