আজীবন যশোর-৪ নির্বাচনী এলাকাবাসীর পাশে থাকতে চান রাজীব

0
1407

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর-৪ নির্বাচনী এলাকা থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কে পাবেন দলীয় প্রতীক নৌকা। কার গ্রহনযোগ্যতাই বা কেমন। অথবা কার প্রতি রয়েছে আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার

আশির্বাদ। এসব প্রশ্নই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে এ নির্বাচনী এলাকার সাধারন মানুষের কাছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরাও শুরু করেছেন প্রচারনা। যে কারনে আলোচনায় মুখর হয়ে উঠছে হাট বাজারের চায়ের স্টল গুলো। তৃনমূলের এসব মানুষের আলোচনার তালিকায় রয়েছেন ’৯০ দশকের তুখোর এক ছাত্রনেতার নাম। তিনি এসএম আলমগীর হাসান রাজীব। এক যুগেরও বেশী সময় ধরে নানা ভাবে এ নির্বাচনী এলাকার মানুষের সেবা করে চলেছেন তিনি। রাজীব ১৯৯০ সালে খুলনা বিএল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ভর্তি হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে প্রবেশ করার পর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন তিনি। রাজনৈতিক দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়ে একই সংগঠনের পর্যায়ক্রমে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন রাজীব। এরপর মেধাবী এ ছাত্রনেতা খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়ে ওই অঞ্চলে বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। ২০০০ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত এ সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন তিনি। আর কেন্দীয় ছাত্রলীগের খাতায় তার নাম ছিল ২০০০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত। এরপর ছাত্রলীগ হয়ে জায়গা করে নেন আওয়ামীলীগে। ২০১২ সালে নির্বাচিত হন কেন্দীয় আওয়ামীলীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক। অত্যন্ত সাহসী ও আলোচিত ছাত্রনেতা এসএম আলমগীর হাসান রাজীব ২০০১ সালে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট ক্ষমতায় আসার পর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের রোষানলে পড়েন। শিকার হন মামলা-হামলার। এ সময় কথিত বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় জেলও খাটেন তিনি। শুধু যে রাজতৈক ভাবে সফল হয়েছেনÑতা নয়। এসএম আলমঘীর হাসান রাজীব লেখাপড়ায়ও সফল হয়েছেন। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রী অর্জন করেছেন তরুন এ আওয়ামীলীগ নেতা।
আলমগীর হাসান রাজীব বলেন‘যশোর-৪ নির্বাচনী এলাকার মানুষের পাশে ছিলাম,আছি থাকবো। তিনি বলেন আমার ব্যক্তিগত কোন চাওয়া-পাওয়া নেই। এ সময় বিভিন্ন রাস্তা-ঘাট,মসজিদ-মন্দিরসহ শিক্ষা ক্ষেত্রে নানা উন্নয়ন পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করেন এক সময়ের তুখোড় ছাত্রনেতা এসএম আলমগীর হাসান রাজীব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here