শুক্রবার থেকে ৭৩৩ টি মন্দিরে চলবে দেবি বন্দনা, পূজা পরিষদ ও এসপির ব্রিফিং

0
93

ডি এইচ দিলসান : চারিদিকে কাশ ফুলের উপস্থিতিই জানান দিচ্ছে দেবী দুর্গা মহালয়ার মধ্যদিয়ে মর্তলোকে আসছে। পঞ্জিকা অনুযায়ী, দেবি এবার আসবে ঘোড়ায় চড়ে, আর বিজয়া দশমিতে শ্বাশুরালয়ে ফিরে যাবে একই বাহনে। শুক্রবার মহা ষষ্ঠীপূজার মধ্যদিয়ে শুরু হচ্ছে দুর্গাপূজা। ঢাকঢোল আর কাঁসর বাদ্যে দেবীর বোধন পূজার মধ্যদিয়ে দুর্গাপূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রাক্কালে দক্ষিণায়নের নিদ্রিত দেবী দুর্গার নিদ্রা ভাঙার জন্য বন্দনা করা হবে। ষষ্ঠী তিথিতে মন্ডপে-মন্দিরে সন্ধ্যায় বিল্ব বৃক্ষ বা বেল গাছের পূজার মাধ্যমে দেবী দুর্গাকে আবাহন করা হবে।
এবার যশোর জেলায় ৭৩৩টি মন্দিরে চলবে দেবি বন্দনা। ইতমধ্যে জেলার ৭৩৩টি পূজা মন্ডপকেই নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার। ইতমধ্যে ৬শ’টি মন্ডপে সিসিটিভি স্থাপন করা হয়েছে। জেলা পুলিশের পক্ষে দেয়া হয়েছে দেড় হাজার চৌকস ফোর্স। টহলে রয়েছে আড়াইশ’ পেট্রোল ও মোবাইল টিম। আলেমসহ বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের নিয়ে করা হয়েছে সম্প্রীতি কমিটি। রয়েছে স্বেচ্ছাসেবক টিমও। পূজোকে কেন্দ্র করে পুলিশ ছাড়াও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও সজাগ। পুলিশ র‌্যাবের পাশাপাশি কঠোর নজরদারিতে রয়েছে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাও। খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুমও।
এদিকে শারদীয় দূর্গাপূজা উপলক্ষে যশোর জেলা পূজা পরিষদের উদ্যোগে সাংবাদিক সম্মেলনে নেতৃবিন্দরা বলেন যথাযোগ্য মর্যাদায় দূর্গাপূজা পালন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের হরিসভা মন্দিরে সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তৃতা পাঠ করেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তপন কুমার ঘোষ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পরিষদের সভাপতিদ দীপংদাশ রতন,উপস্থিত ছিলেন পরিষদের সহসভাপতি দুলাল সমাদ্দর,অ্যাডভোকেট প্রশান্ত দেবনাথ, যুগ্মসম্পাদক রতন আচার্য্য, প্রচার সম্পাদক প্রশান্ত সরকার,সহ প্রচার সম্পাদক বিকাশ চন্দ্র ঘোষ বাপী,দপ্তর সম্পাদক অজয় সিংহ রায়,সহদপ্তর সম্পাদক দুর্গা দেবনাথ,জনসংযোগ বিষয়ক সম্পাদক উৎপল ঘোষ,সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি গোবিন্দ ঘোষ,সহসভাপতি গৌতম কর্মকার,আমল ঘোষসহ আরো অনকে।
এদিকে পূজার আইনশৃংখলা প্রস্তুতি নিয়ে ব্রিফিং করেছেন যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার বিপিএম পিপিএম বার। ১৯ অক্টোবর তার কার্যালয়ে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে যশোর জেলার ৭৩৩টি পূজা মন্ডপকে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। সম্প্রীতি ও শান্তিপূর্ণ পূজা উদযাপন নিশ্চিত করতে মাঠ পর্যায়ে পুলিশ কর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। মন্ডপে মন্ডপে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার ব্যাপারে সরকার ও প্রশাসনের পক্ষেও নানামুখি উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
ইতিমধ্যে যশোরের ৬শ’টি মন্ডপে সিসিটিভি স্থাপন করা হয়েছে। জেলা পুলিশের পক্ষে দেয়া হয়েছে দেড় হাজার চৌকস ফোর্স। টহলে রয়েছে আড়াইশ’ পেট্রোল ও মোবাইল টিম। আলেমসহ বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের নিয়ে করা হয়েছে সম্প্রীতি কমিটি। রয়েছে স্বেচ্ছাসেবক টিমও।
তিনি জানিয়েছেন, যেকোনো অনাকাঙ্খিত ঘটনার ব্যাপারে জিরো টলারেন্স ভূমিকায় থাকবে পুলিশ। এ ব্যাপারে মাঠপর্যায়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে স্থানীয় পূজা উদযাপন কমিটির নেতাদের সাথে যোগাযোগ ও সমন্বয়ের মাধ্যমে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে।
পূজোকে কেন্দ্র করে পুলিশ ছাড়াও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও সজাগ। পুলিশ র‌্যাবের পাশাপাশি কঠোর নজরদারিতে রয়েছে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাও। যশোরে উৎসবের আমেজেই পূজা উদযাপিত হবে। যেকোনো অনাকাঙ্খিত ঘটনার ব্যাপারে যোগাযোগের জন্য উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে কন্ট্রোল রুমও খোলা হয়েছে।