আটকের পর জামিনে মুক্তি পেয়ে আবারো নেমে পড়েছে লোক ঠকানোর ধান্ধায়

0
478

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর) : গাছের পাতা ছিড়লে টাকা, ফুল ছিড়লে টাকা-এভাবে গত এক বছরে মেয়ের অসুস্থ্যতাজনিত দূর্বলতাকে পুঁজি করে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে কবিরাজ প্রতারক হাবিবুর রহমান। মেয়েকে পড়ালেখায় মনোযোগী করার তদ্বির আনতে গিয়ে ভন্ড কবিরাজ হাবিবেবের খপ্পরে পড়ে পথে বসে গেছি। গত এক বছর ধরে কবিরাজের টাকার চাহিদা মেটাতে গিয়ে প্রতিবেশী, আত্মীয় স্বজনসহ এনজিও-সমিতির কাছে ধার দেনায় জর্জরিত হয়ে গেছি। কখনো মৃত্যু’র ভয়, সম্পদের টোপ দিয়ে এই অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে ওই কবিরাজ। প্রতারণার শিকার মণিরামপুর উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামের গৃহবধূ তাসলিমা খাতুন কথাগুলো বলছিলেন আর শাড়ির আঁচল দিয়ে চোখের পানি মুছছিলেন। এই কবিরাজ কখনো নাগরাজ, কখনো জ্বিন বলে নিজেকে জাহির করেন তাদের কাছে। অথচ একমাত্র মেয়ে পড়াশুনায় মন বসে না। পড়াশুনায় যেন ভাল মন বসে-এমন আশায় বুক বেঁধে দেবর আব্দুল্লাহর দেয়া তথ্য মতে পার্শ্ববর্তী মাদরাসার ৭ম শ্রেণিতে পড়–য়া মেয়ে হাবিবা ইয়াসমিন (১৩) কে ওই কবিরাজের কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন মা তাসলিমা ও বাবা আবু বক্কর সিদ্দিক। 

সরেজমিন রবিবার ওই ভূক্তভোগী পরিবারের বাড়িতে গেলে মুহুর্তেই শতাধিক বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ হাজির হন সেখানে। এসময় তাসলিমা বলেন, গত রমজান মাসের কয়েকদিন পর মেয়েকে নিয়ে তিনি ও তার স্বামী ওই কবিরাজের বাড়িতে গেলে প্রথম দিনই কবিরাজ ৬ হাজার ১২১ টাকা হাতিয়ে নেয়। কবিরাজ হাবিবুর রহমান (৩২) উপজেলার ধলিগাতী গ্রামের কটাই মোড়লের ছেলে। তিনি আরো বলেন, প্রথম দিন তার স্বামীকে পান খেতে দিয়ে কবিরাজ বলেন, বাড়ি যেতে যেতে তার স্বামীর পাতলা পায়খানা হলে তাতে তারা যেন চিন্তিত না হয়। আর এরকমটি হলে বুঝতে হবে মেয়েটি ভালো হয়ে যাবে। এরপর বাড়ি আসার পর স্বামীর ওই উপস্বর্গ দেখা দিলে কবিরাজের প্রতি তাদের আস্থা ও বিশ্বাস জন্ম নেয়। এভাবেই শুরু। এরপর হঠাৎ একদিন মেয়ে অসুস্থ্য হলে কবিরাজকে খবর দেয়া হলে তিনি বাড়িতে এসে বোঝান তার মেয়ে মানুষের সন্তান নয়-সে নাগরানী। তাকে দ্রুত চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ্য করে তুলতে হবে। এজন্য এখনি ১৩ হাজার ২১ টাকা দিতে হবে। সাথে সাথেই তারা সরল বিশ্বাসে টাকা দেয় কবিরাজ হাবিবুরকে। এসময় কবিরাজ তাদেরকে বলেন, মেয়ে নাগরানী হওয়ায় তোমাদের জন্য সে প্রচুর ধন সম্পদ এনে দিবে। তারেকে এসব কথা অন্য কাউকে না বলতেও নিষেধ করে কবিরাজ হাবিবুর। বললে তার মেয়ে আর বাঁচবে না বলেও তাদের ভয় দেখায়। তার মেয়ে নাগরানী হওয়ায় বাড়িতে সাপের অবাধ বিচরণ দেখা যেতে পারে। শুধু তাই নয়, সাপ ও জ্বীনকে সন্তুষ্ট রাখতে বাড়ির সামনে থাকা জাম গাছের নিচে প্রতিদিন দুধ কলা ও বসত ঘরের প্রবেশ দ্বারের দু’ধারে দুইটি নীল কন্ঠক ও হাসনা হেনা ফুল গাছ রোপনের কথা বলেন কবিরাজ। সাথে সাথে সাবধান করে দেন-খবরদার কোন পশু পাখি কিংবা কোন মানুষ যেন গাছের পাতা, ফুল, ডাল যেন ছিড়ে। ছিড়লে তার মেয়ের চরম ক্ষতি হবে।

এমনকি মারাও যেতে পারে। জাম ও ফুল গাছ বেড়া দিয়ে ঘিরতেও নিষেধ করে কবিরাজ। এভাবে নীল কন্ঠক গাছ বড় হয়ে ফুল ধরা শুরু করে, হাসনা হেনা গাছও বড় হয়। হঠাৎ একদিন ৫ বছরের ইমন নামে তার এক আত্বীয়ের ছেলে জাম গাছের পাতা ছিড়ায় মেয়ে হাবিবা ইয়াসমিন অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকে। ফোনে কবিরাজকে জানালে তিনি বলেন, গাছের পাতা ছিড়ায় এমনটি হয়েছে। আর যে কারনে জ্বীনেরা ক্ষেপে গেছে-তাদের ঠান্ডা করতে এখনি ২১ হাজার ১২১ টাকা লাগবে। মেয়ের কথা চিন্তা করে কবিরাজের বিকাশ নম্বরে টাকা দেয়ার পরেই মেয়ে সুস্থ্য হয়ে উঠে। এতে কবিরাজের প্রতি তাদের বিশ্বাস আরো বেড়ে যায়। এরপর ছাগলে পাতা খেলে, দেবরের ছেলে নাহিদ ফুল ছিড়লে মেয়ের একই অবস্থা, কবিরাজের বিকাশ নম্বরে টাকা দিলেই সুস্থ্য। এভাবে গত এক বছরে তাদের কাছ থেকে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ হাতিয়ে নিয়েছে কবিরাজ হাবিব। মেয়ের অসুস্থ্যতাকে পুঁজি করে শুধু স্বামী আবু বক্করের কাছ থেকে নয়, তিনি (তাসলিমা) নিজেও গয়না বন্ধক রেখে, কখনো ধার দেনা করে স্বামীর অগোচরে প্রায় ৫০ হাজার দিয়েছেন। এসব অর্থ হাতানোর সময় তাসলিমাকে বলেছে টাকার কথা স্বামীকে এবং আবু বক্করকে বলেছে স্ত্রীকে বলা যাবে না, বললে তার মেয়ে মারা যাবে। এভাবে প্রায় এক বছর প্রতারিত করে আসছিল কবিরাজ হাবিব। এসময় সেখানে উপস্থিত সোহরাবের স্ত্রী আমেনাকেও জ্বীনের কথা বলে ৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। বিষয়টি ফাঁস হয়ে গেলে আবু বক্কর তার এক আত্বীয়ের মাধ্যমে বিষয়টি স্থানীয় আইন সহায়তা কেন্দ্র নামে এক বেসরকারি সংস্থাকে জানায়। সংস্থার সভাপতি আজিজুর রহমান জানান, গত ৭ মে সকালে অভিযোগ পেয়ে ওই দিন বিকেলে সংস্থার ১৮ জন সদস্য তিন ভাগে ভাগ হয়ে রোগী সেজে ওই কবিরাজের বাড়িতে যান। তাদের নারী সদস্য তাসলিমার স্বামী-সন্তান নেই। এসময় তাসলিমার মেয়ে অসুস্থ্য জানিয়ে কবিরাজের সাহায্য চান। কবিরাজ তাকে জানায়, তার মেয়ে জ্বীন ও মানুষ দ্বারা ক্ষতি হচ্ছে। এক কথা বলার পর কবিরাজকে ধরে এনে সন্ধ্যায় থানায় সোপর্দ করা হয়। এরপর আবু বক্কর বাদি হয়ে প্রতারণার অভিযোগে হাবিবুর রহামনে বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং- ৮ এবং তারিখ ০৮/০৫/১৭ ইং। সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পেয়ে হাবিব কবিরাজ আবারো লোক ঠকানোর ধান্ধায় নেমে পড়েছে। এসব অভিযোগ নিয়ে হাবিবুরের সাথে কথা হলে তিনি প্রতারণার বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, তার কাছে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কবিরাজি লাইসেন্স রয়েছে। এসময় বিকাশে ৩৬ হাজার টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করেন কবিরাজ। জানতে চাইলে ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান বলেন, প্রায় বছর দু’য়েক আগে হাবিব ব্যবসার কথা বলে ট্রেড লাইসেন্স নিয়েছিল। যা পরে আর নবায়ন করেনি। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাবিবের প্রতিবেশীরা জানায়, কয়েক বছর আগেও হাবিব পরের জমিতে কামলা দিত। অথচ এখন যেন সে আলা উদ্দীনের চেরাগ পেয়েছে। এখন তার ফ্লাট বাড়ি, পাকা রান্না ঘর, গোয়াল ঘর-সব খানেই আধুনিকতার ছোঁয়া।

মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই জহির রায়হান জানান, প্রাথমিক তদন্তে জানাগেছে, গত এক এক বছরে ভূক্তভোগী আবু বক্করের দেয়া বিকাশ নম্বর থেকে বিভিন্ন সময় কবিরাজের বিকাশ নম্বরে ৩৮ বারে প্রায় দুই লাখ টাকা দেয়া হয়েছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here