আত্মবিশ্বাস নিয়ে বার্মিংহামে বাংলাদেশ

0
284
আয়ারল্যান্ড থেকে ইংল্যান্ডের পথে বাংলাদেশ দল। বিমানে অধিনায়ক মাশরাফির পাশের আসনে সৌম্য l ছবি: ফেসবুক

ক্রীড়া ডেস্ক : আয়ারল্যান্ড থেকে তৃপ্তি নিয়েই ইংল্যান্ডে ফিরেছে বাংলাদেশ দল। তবে সামান্য একটু অতৃপ্তিও আছে সঙ্গে—ইশ্, আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি যদি বৃষ্টিতে পণ্ড না হতো! তাহলে হয়তো ত্রিদেশীয় সিরিজের ট্রফি জয়ের হিসাবটা অন্য রকম হতে পারত। ত্রিদেশীয় সিরিজে চ্যাম্পিয়নও হতে পারত মাশরাফির দল। তবে ডাবলিন থেকে কাল বার্মিংহামে যাওয়ার আগে এটুকু অতৃপ্তি নিয়ে পড়ে থাকেননি অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা। তাঁর তৃপ্তি অন্য জায়গায় এবং সেটাই আসল। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আগে দুটি ম্যাচ জিতে আত্মবিশ্বাস তো বাড়িয়ে নেওয়া গেল!

উইকেট হয়তো ভিন্ন হবে। তবে ইংল্যান্ড আর আয়ারল্যান্ডের জল-হাওয়া প্রায় একই রকম। আইরিশ কন্ডিশনে পাওয়া দুটি জয় চ্যাম্পিয়নস ট্রফির লড়াইয়ে নামার আগে বাংলাদেশকে বাড়তি প্রেরণা জোগাবে বলেই বিশ্বাস বাংলাদেশের অধিনায়কের। বিশেষ করে পরশু নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পাওয়া জয়টি। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে গ্রুপ পর্বে ইংল্যান্ড আর অস্ট্রেলিয়া ছাড়া বাংলাদেশের আরেক প্রতিপক্ষ এই নিউজিল্যান্ডই। দেশের বাইরে ১৭ ম্যাচ পর কিউইদের হারাতে পারা মাশরাফির জন্য বাড়তি তৃপ্তির, ‘এই ম্যাচটি আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কারণ আমরা জানতাম এটি জিতলেই আমরা র‍্যাঙ্কিংয়ের ছয়ে উঠে যাব। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির আগে এমন একটি ম্যাচ জিততে পারলে আমাদের জন্য ভালো হবে বলে ভেবেছিলাম। যা করতে চেয়েছি আমরা সেটা করতে পেরেছি। এ জন্য খুবই ভালো লাগছে।’

ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড—কঠিন তিন প্রতিপক্ষকে পেছনে ফেলে গ্রুপ পর্বের বৈতরণি পেরোতে পারবে বাংলাদেশ? প্রশ্নটি চ্যাম্পিয়নস ট্রফির গ্রুপিং হওয়ার পর থেকেই বাংলাদেশের ক্রিকেট মহলে উড়ছে। কী হবে আর কী হবে না, সেটা ভবিষ্যৎই বলবে। ত্রিদেশীয় সিরিজ মানসিক দিক থেকে বাংলাদেশকে চাঙা থাকার রসদ দিলেও মাশরাফি একটি বাস্তবতা মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘(চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে) ওদের বোলিং বিভাগ আরেকটু ভালো থাকবে। টিম সাউদি, ট্রেন্ট বোল্টরা আসবে। কেন উইলিয়ামসন আসবে, মার্টিন গাপটিল আসবে। তবে জয় সব সময়ই দলকে মানসিকভাবে চাঙা করে দেয়।’

ইংল্যান্ড খেলবে তাদের নিজেদের আঙিনায়। এর ওপর এক-দেড় বছর ধরে দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছে তারা। এইউন মরগানের দলকে হারানোটা যেকোনো দলের জন্যই কঠিন। দুবারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াও আছে ছন্দে। ত্রিদেশীয় সিরিজে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের পর গোটা দলের মধ্যেই এই আত্মবিশ্বাস জেগে ওঠাই স্বাভাবিক যে বাংলাদেশ গ্রুপে সংখ্যা পূরণ করতেই ইংল্যান্ডে যায়নি। জয়ের সম্ভাবনা তাদেরও আছে। অস্ট্রেলিয়া অবধ্য নয়, ইংল্যান্ড তো গত বিশ্বকাপেই বাংলাদেশের শক্তিমত্তার পরিচয় পেয়েছে। তবে মাশরাফি জয়ের প্রতিশ্রুতি দেননি, বলেছেন ওই আত্মবিশ্বাসের কথাই, ‘নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলার আগে আমাদের দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ আছে (ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে)। এ ছাড়া বড় দুটি ম্যাচ আছে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। জায়গাটা অনেক কঠিন। তবে একটি একটি করে জয় পেলে আত্মবিশ্বাস বাড়ে। আয়ারল্যান্ড থেকে ভালো আত্মবিশ্বাস নিয়ে ইংল্যান্ডে যাচ্ছি। আশা করি, এটাকে কাজে লাগাতে পারব।’

ত্রিদেশীয় সিরিজে দুটি ফিফটি পেয়েছেন তামিম ইকবাল। শেষ ম্যাচে ভালো ব্যাটিং করেছেন মুশফিকুর রহিম আর মাহমুদউল্লাহ। বোলারদের প্রস্তুতিটাও ভালোই হয়েছে। তবে দলের সেরা তারকা সাকিব আল হাসানের ফর্ম নিয়ে একটু দুশ্চিন্তা থেকে যায়। তিন ম্যাচে ৩৯ রান করেছেন তিনি, বল হাতে নিয়েছেন ৩ উইকেট। তবে মাশরাফি তাঁর ডেপুটিকে নিয়ে মোটেই উদ্বিগ্ন নন, ‘আমাদের দলের ব্যাটিংয়ের অভিজ্ঞতাটা অমূল্য। আমাদের আছে তামিম, সাকিব। সাকিব যদিও খুব ভালো ফর্মে নেই, কিন্তু আমি নিশ্চিত, সে স্বরূপে ফিরবে। তামিম, মুশফিকুর, মাহমুদউল্লাহ—সবাই খুব ভালো ফর্মে আছে। আশা করছি, আমরা আরও ভালো করব।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here