আদালতের সামনে থেকে যুবককে ধরে নিয়ে মোটা অংকের উৎকোচ নেওয়ার অভিযোগ

0
432

যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের বিরুদ্ধে আদালতে হাজিরা দিয়ে বাড়ি ফেরার কালে এক মাদক বিক্রেতাকে ধরে ৬৫ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহন পূর্বক জায়েজ করার জন্য ৩৪ পুলিশ আইনে আদালতে চালান দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছে,রোববার সকালে যশোরের শার্শা উপজেলার রুদ্রপুর গ্রামের নুর হোসেনের ছেলে আশরাফুল একটি মাদক মামলায় যশোর আদালতে হাজিরা দিতে আসে।

বেলা ১১ টার পর হাজিরা দিয়ে আদালত থেকে বের হওয়ার সাথেসাথে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) সাদা পোশাকে এএসআই ইলিয়াস হোসেনসহ একদল পুলিশ আশরাফুলকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। তকে জেলা গোয়েন্দা শাখায় নিয়ে মাদক দিয়ে চালান দেওয়ার ভয়ভীতি দেখানো হয়। আশরাফুল ইসলামের চাচা শ্বশুর সুমন জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি’র উক্ত এএসআইয়ের সাথে যোগাযোগ করলে তার কাছে ১লাখ টাকা দাবি করা হয়। টাকা না দিলে মাদক দিয়ে চালানের ভয়ভীতি দেখানো হয়। ইলিয়াস হোসেন সুমনের কাছে বলেছে, কর্তার চাহিদা মেটাতে না পারলে আশরাফুল ইসলামকে মাদক দিয়ে চালান দেওয়া ছাড়া আর কোন উপায় থাকবে না।

রোববার দুপুরের পর থেকে আশরাফুল ইসলামের চাচা শ্বশুর সুমন এএসআই ইলিয়াসের সাথে যোগাযোগ করলে তার কাছে ১ লাখ টাকা দাবি করে। টাকা ছাড়া আশরাফুলকে কেউ রক্ষা করতে পারবেনা বলে হুংকার জানান। সুমনের বড় ভাইয়ের জামায় আশরাফুলকে ছাড়ানোর জন্য হালের গরু বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন।

যে ভাবে হোক ছাড়ানোর জন্য সুমন বেনাপোল পৌর সভার মেয়র আশরাফুল ইসলামের স্মরনাপন্ন হন। মেয়রের পক্ষের শার্শা উপজেলার কায়বা ইউনিয়নের পরাজিত চেয়ারমান প্রার্থী আলাতাফ হোসেনের কাছে যান। আলতাফ হোসেন জেলা গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করলে তার কাছেও ১লাখ টাকা দাবি করা হয়। দর কষাকষির এক পর্যায় ৬৫ হাজার টাকা চুক্তি হয়। জেলা গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তা আলতাফ হোসেন ও সুমনকে জানান টাকা দেওয়ার পরও আশরাফুলকে আদালতে ৩৪ পুলিশ আইনে চালান দেওয়া হবে।

তার কারণ সাংবাদিকদের চোখ এড়াতে ও টাকা নেওয়া জায়েজ করতে এক প্রস্তাব দেন। প্রস্তাবে রাজী হয়ে সোমবার সকালে আলতাফ হোসেন ও সুমন জেলা গোয়েন্দা শাখা দপ্তরে ঢুকে ৬৫ হাজার টাকা গুনে দেন। টাকা পাওয়ার পর আশরাফুল ইসলামকে ৩৪ পুলিশ আইনে আটক দেখিয়ে আদালতে চালান দেন। আশরাফুল ইসলামকে আদালতের সামনে থেকে গ্রেফতারের পর থেকে ডিবি পুলিশ মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করার বিষয় আশরাফুল ইসলামের শ্বশুর বাড়ি ছাড়াও আশপাশের লোকজনে কানে পৌছান। গোপন থাকেনি টাকা দেওয়া বিষয়গুলো।তদন্ত করতে বেরিয়ে আসবে এ সত্যতা। এ ব্যাপারে জেলা গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here