আদ্ দ্বীন হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যু ঘটনা তদন্তে মাঠে নেমেছে স্বাস্থ্য বিভাগের তদন্ত কমিটি

0
63

স্টাফ রিপোর্টার : যশোর আদ্ দ্বীন হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে নেমেছে জেলার স্বাস্থ্য বিভাগ। ঘটনাতদন্তে গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গতকাল সরেজমিন আদ্ দ্বীন হাসপাতালের শিশু ও গাইনী ওয়ার্ড পরিদর্শন করেন। এসময় তদন্ত কমিটির সদস্যরা অভিযুক্ত ডাক্তার ও মারা যাওয়া রোগীর স্বজনদের সাথে কথা বলেন এবং ঘটনার পরম্পরা জানার চেষ্টা করেন।
খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে যশোর শহরতলীর রেলগেট পশ্চিমপাড়ার সোহেল রানার স্ত্রী বৃষ্টি বেগম গত বুকে ব্যাথা নিয়ে গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাত ৩টার দিকে রেল রোডস্থ আদ্ দ্বীন হাসপাতালের গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি হন। ভর্তির পর পরই হাসপাতালের গাইনী বিশেষজ্ঞ ডাক্তার শীলা পোদ্দার বৃষ্টি বেগমের বুকের ব্যথা প্রশমনের জন্য একটি ইনজেকশন পুশ করেন। কিন্তু ওই ইনজেকশনে রোগীর বুকের ব্যাথা দূরীভূত তো হয়ই নি বরং রোগী াচেতন হয়ে পড়েন। ৮ মাসের অন্ত:সত্বা বৃষ্টি বেগম হাসপাতালে ভর্তির ১৫ মিনিটের মাথায় অচেতন হয়ে পড়েন এবং পরবর্তীতে তার আর জ্ঞান ফেরেনি। এদিকে রোগী গর্ভবর্ত থাকায় এবং আদ দ্বীন হাসপাতালে প্রসূতি সেবার কার্ড থাকায় ডাক্তার শীলা পোদ্দার ওই অচেতন রোগীকে ডেলিভারী করাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। রোগীর পেশার উচ্চমাত্রায় থাকার কারনে ডাক্তার শীলা পোদ্দার তাকে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে নির্বারিত সময়ের দেড় মাস আগেই বাচ্চা ডেলিভারি করাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। রোগীর স্বজনরা এই বিষয়ে বারংবার বাঁধা দিলেও ডাক্তার শীলা পোদ্দার তা না শুনে অনেকটা এক গুয়েমীপনা করেই অচেতন অবস্থায় বৃষ্টি বেগমের সিজার করে বাচ্চা ডেলিভারি করেন। নির্ধারিত সময়ের আগে বাচ্চা ডেলিভারি করার কারনে বাচ্চা শারিরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে। অন্যদিকে অজ্ঞান থাকার কারনে প্রসূতি বৃষ্টি বেগম ওই দিন সন্ধ্যা পৌনে ৭টারা দিকে মারা যায়।এই মৃত্যুর জন্য রোগীর স্বজনরা ডাক্তার শীলা পোদ্দারের ভুল চিকিৎসাকে দায়ী করে তাৎক্ষনিক প্রতিবাদ জানায়। অপরদিকে মায়ের মৃত্যুর পরের দিন আদ্ দ্বীন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বাচ্চার চিকিৎসা বাবাদ ও বৃষ্টি বেগমের চিকিৎসা বাবাদ ৯০ হাজার টাকা দাবি করেন। এই বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ও জাতিয় দৈনিক পত্রিকায় একাধিক খবর প্রকাশিত হলে তা জেলার সিভিল সার্জনের নজরে পড়ে। তিনি ঘটনাটি মর্মান্তিক আখ্যায়িত করে তা তদন্তের জন্য তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দেন। জেলার ডেপুটি সিভিল সার্জনডাক্তার প্রতিভা ঘরাইকে প্রধান করে গঠিত ওই তদন্ত কমিটির বাকি সদস্যরা হলেন ডাক্তার সঞ্চিতা অধিকারী ও ডাক্তার মাশহুরুল হক। তদন্ত কমিটির সদস্যরা গতকাল সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং রোগীর স্বজন ও অভিযুক্ত ডাক্তার শীলা পোদ্দারের সাথে কথা বলেন। এসময় তদন্ত কমিটির সদস্যরা উভয় পক্ষের কাছ থেকে ঘটনার পরম্পরা শোনেন এবং এ বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবেন বলে জানান। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা করা হলে তদন্ত কমিটির প্রধান ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাক্তার প্রতিভা ঘরাই বলেন, জেলা সিভিল সার্জনের নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটি ঘটনাটির সরেজমিন তদন্ত করে একটি প্রতিবেদন সিভিল সার্জনের দপ্তরে জমা দিবে। তারপর পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে তা সিভিল সার্জনই ঠিক করবেন।