আধুনিক যুদ্ধে উপযুক্ত সিগন্যাল যোগাযোগ ও কম্পিউটার প্রযুক্তির প্রয়োগ যুদ্ধক্ষেত্রে এনেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন-সেনাপ্রধান

0
122

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, এসবিপি, ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি, পিএইচডি বলেছেন, আধুনিক যুদ্ধে উপযুক্ত সিগন্যাল যোগাযোগ ও কম্পিউটার প্রযুক্তির প্রয়োগ যুদ্ধক্ষেত্রে এনেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন। যুদ্ধের প্রচলিত মাত্রা জল, স্থল ও আকাশ ছাড়িয়ে এখন প্রসারিত হয়েছে ইলেকট্রনিক ও সাইবারস্পেসে। নব উন্মোচিত এই দিগন্তের নিয়ন্ত্রণই ভবিষ্যৎ যুদ্ধক্ষেত্রে নির্ধারণ করে দেবে যেকোনো প্রশিক্ষিত বাহিনীর সার্বিক সাফল্য। সিগন্যাল যোগাযোগ, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার, তথ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, সাইবার যুদ্ধ ও ইলেকট্রনিক যুদ্ধে শত্রুর উপর আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিজয় অর্জনে সহায়তা করাই সিগন্যালস কোরের মূল লক্ষ্য। আধুনিক যোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি সম্বন্ধে সঠিক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে এই কোর আরও সামনে এগিয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

যশোর সেনানিবাসে অবস্থিত ‘সিগন্যাল ট্রেনিং সেন্টার অ্যান্ড স্কুলের প্যারেড গ্রাউন্ডে মঙ্গলবার বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কোর অব সিগন্যালস্-এর ‘১০ম কর্নেল কমান্ড্যান্ট’ হিসেবে অভিষেক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ‘কর্নেল কমান্ড্যান্ট’ অভিষিক্ত হন। সামরিক রীতি ও ঐতিহ্য মেনে এ অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। অভিষেক অনুষ্ঠানে কোর অব সিগন্যালসের জ্যেষ্ঠতম অধিনায়ক এবং মাস্টার ওয়ারেন্ট অফিসার সেনাবাহিনী প্রধানকে গৌরবমন্ডিত ‘কর্নেল কমান্ড্যান্ট র‌্যাংক-ব্যাজ’ পরিয়ে দেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, সিগন্যালস্ কোর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি সামরিক ঐতিহ্য ও ইতিহাসসমৃদ্ধ কোর। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের বিজয় দিবসের প্রথম প্রহরে ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে মাত্র একটি সিগন্যাল রেজিমেন্ট নিয়ে যাত্রা শুরু করে আজ কোর অব সিগন্যালস্ উৎকর্ষতা ও আধুনিকায়নের মাধ্যমে অর্জন করেছে বিপুল খ্যাতি ও ঈর্ষনীয় সক্ষমতা। অনেক বাধা বিপত্তির মধ্যেও অদম্য সাহসিকতা, কর্তব্য পরায়ণতা ও পেশাগত উৎকর্ষতা প্রদর্শনের মাধ্যমে এই কোর আজকের এই গৌরবময় অবস্থানে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছে।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদকে ‘কর্নেল কমান্ড্যান্ট র‌্যাংক-ব্যাজ’ পরিয়ে দেন কোর অব সিগন্যালসের জ্যেষ্ঠতম অধিনায়ক এবং মাস্টার ওয়ারেন্ট অফিসার
সেনা প্রধান বলেন, বর্তমান সরকার প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগ খাতকে সবসময় অগ্রাধিকার দিয়ে আসছে। ভিশন ২০৩০-কে সামনে রেখে ইতোমধ্যে সিগন্যালস কোরে ৩টি সিগন্যাল ব্যাটালিয়ন ও ৩টি স্ট্যাটিক সিগন্যাল কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সংযোজন করা হয়েছে নতুন রেডিও রিলে সরঞ্জাম, রেডিও সেট, ডিজিটাল একচেঞ্জ, টেলিফোন এবং ইলেকট্রনিক ওয়ারফেয়ারের অত্যাধুনিক সরঞ্জামাদি। বঙ্গবন্ধু সাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে অপারেশনাল যোগাযোগের উন্নয়নে ডিস্যাট স্টেশন স্থাপনের কাজ ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। সাইবার ও ইলেকট্রনিক যুদ্ধ পরিচালনার মূলনীতি হিসেবে আইসিটি পলিসি এবং সাইবার ও ইলেকট্রনিক যুদ্ধের ডক্টিন প্রণয়নের কাজ চলমান রয়েছে। এসব কার্যক্রম সমগ্র দেশের তথ্য ও প্রযুক্তি উন্নয়ন ও সাইবার নিরাপত্তা উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর দেশ গঠন এবং দেশমাতৃকার সেবায় সিগন্যাল কোরের সদস্যরা গুরুদায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দেশের অভ্যন্তরে যেকোনো দুর্যোগময় মুহূর্তে জনগণের সেবায় তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে।

জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্র, মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট এবং নতুনভাবে সংযোজিত ই-পাসপোর্ট তৈরি এবং বিটিআরসি কর্তৃক বাস্তবায়িত সেন্ট্রাল বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন প্লাটফর্ম ও ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট রেজিস্টারসহ গুরুত্বপূর্ণ কাজে সিগন্যালস্ কোর প্রয়োজনীয় সহায়তা দিয়ে আসছে, যা ভবিষ্যতেও চলমান থাকবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
আন্তর্জাতিক পরিসরেও সিগন্যালস্ কোরের কন্টিনজেন্টসমূহ অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে বিশ্ব শান্তি রক্ষায় প্রশংসনীয় অবদান রেখে আসছে বলে সেনা প্রধান উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানস্থল প্যারেড স্কয়ারে পৌঁছালে সেনাবাহিনী প্রধানকে আনুষ্ঠানিক অভিবাদন জানানো হয় এবং কোর অব সিগন্যালস্-এর একটি চৌকষ দল তাঁকে ‘গার্ড অব অনার’ প্রদান করে।

অনুষ্ঠান শেষে সেনাবাহিনী প্রধান কোর অব সিগন্যালস্-এর বাৎসরিক অধিনায়ক সম্মেলন-২০২২-এ যোগ দেন। তিনি সম্মেলনে উপস্থিত সকল সিগন্যাল ইউনিটের অধিনায়ক এবং অন্যান্য কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন এবং কোর অব সিগন্যালস্-এর উন্নয়ন, পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি ও দেশে-বিদেশে পরিচালিত কার্যক্রম বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

এ সময় সেনাবাহিনী প্রধান কোর অব সিগন্যালস্-এর গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহ্য এবং দেশমাতৃকার সেবায় এই কোরের অবদানের কথা স্মরণ করেন এবং আধুনিক ও যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ সদা প্রস্তুত থাকতে কোর অব সিগন্যালস্-এর সকল সদস্যের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ ছাড়াও কোর অব সিগন্যালস্-এর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও ইউনিট প্রতিনিধিগণ এবং যশোর এরিয়ার বিভিন্ন পদবীর সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।