আপন জুয়েলার্সের অপকর্মের দায় বাজুস নেবে না

0
234

ঢকা প্রতিনিধি : বাংলাদেশের স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)আপন জুয়েলার্সের ‘অপকর্মের’ দায় নেবে না বলে জানিয়েছে সংগঠনের নেতারা। আপন আদালতে দোষী প্রমাণ হলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানিয়েছে তারা। আর আপন জুয়েলার্সের ঘটনায় অন্য ব্যবসায়ীদের হয়রানি না করারও দাবি জানিয়েছে বাজুস।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে ভিআইপি লাউঞ্জে এক সংবাদ সম্মেলনে বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়ালা এ কথা জানান।

গত ১৪ ও ১৫ মে আপনের পাঁচটি বিক্রয় কেন্দ্র থেকে সাড়ে ১৩ মণ স্বর্ণ ও ৪২৭ গ্রাম হীরা জব্দ করা হয়। এই অভিযানের পর জুয়েলারি সমিতি তীব্র নিন্দা জানায়। এই অভিযান হয়রানিমূলক দাবি করে তা বন্ধ না হলে কর্মসূচি দেয়ার হুঁশিয়ারিও দেয় তারা।

তবে আগের অবস্তান থেকে সরে এসে ‘একটি যুগোপযোগী ব্যবসাবান্ধব স্বর্ণ নীতিমালা না হওয়া পর্যন্ত জুয়েলারি ব্যবসায়ীদের হয়রানি না করার দাবিতে’ বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন ডাকে বাজুস।

সংবাদ সম্মেলনে স্বর্ণ আমদানির জন্য নীতিমালা দাবি করেও বলা হয়, নীতিমালা করলেও স্বর্ণ চোরাচালান বন্ধ হবে না। বাজুসের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক স্বর্ণ চোরাচালানের রুট হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। যে স্বর্ণগুলো আটক হচ্ছে সেগুলো পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের জন্য আনা হয়। ভারতের সোনার দাম ও আমদানি খরচ অনেক বেশি হওয়ায় বাংলাদেশের মাধ্যমে সোনা ভারতে যাচ্ছে। নীতিমালা করা হলে দেশের স্বর্ণ শিল্প লাভবান হবে। কিন্তু নীতিমালা হলেও স্বর্ণ চোরাচালান বন্ধ করা সম্ভব হবে না।’

একটি যুগোপযোগী ব্যবসাবান্ধব স্বর্ণ আমদানি নীতিমালা না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের কোনো জুয়েলারি ব্যবসায়ীকে হয়রানি না করার দাবি জানিয়ে দিলীপ কুমার আগারওয়ালা বলেন, ‘গোল্ড আমদানি করার কোনো সুযোগ সরকার দেয়নি। তবে আমরা বৈধভাবেই স্বর্ণের ব্যবসা করি।

পোদ্দারদের কাছ থেকে স্বর্ণ কিনে ব্যবসা করি। আমরা বৈধ স্বর্ণ নীতিমালা চাই।’ আগামী অর্থবছরের বাজেটে তাদের এই দাবি সম্পর্কে সরকার সুস্পষ্ট ঘোষণা আশা করে তিনি বলেন, তা না হলে বৃহত্তর কর্মসূচি দেওয়া হবে।

এলসির মাধ্যমে কেন স্বর্ণ আমদানি করা হয় না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বাজুসের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এলসির মাধ্যমে স্বর্ণ আমদানি করা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। সেজন্য তাঁতীবাজারের পোদ্দারদের কাছ থেকে এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিয়ে আসা স্বর্ণ কিনেই আমরা ব্যবসা করি।’ এই ব্যবসা বৈধ দাবি করে তিনি বলেন, তা না হলে সরকার ভ্যাট নেয় কী করে।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকরা আপন জুয়েলার্সের অবৈধ স্বর্ণ ও তার ছেলের অপকর্মের বিষয়ে জানতে চান। দিলীপ কুমার বলেন, তাদের দায় সমিতি বহন করবে না।

দিলীপ কুমার বলেন, ‘আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে যে চরম ঘৃণ্য কাজ করেছে তার নিন্দা জানাই। আপন জুয়েলার্সের স্বর্ণ বৈধ বা অবৈধ কি না সর্বোচ্চ আদালত তা নির্ধারণ করবে।

আপন জুয়েলার্স বাজুসের সদস্য, আপন জুয়েলার্সের কেউ দোষী প্রমাণিত হলে সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাজুসের সাবেক সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন। তিনি বলেন, বর্তমানে সোনা আমদানিতে প্রতি ভরিতে ৩ হাজার এবং ৪ শতাংশ হারে কর দিতে হয়। এটি কমিয়ে ৫০০ টাকায় নামিয়ে আনতে হবে। এলসি খোলার প্রক্রিয়া সহজ করতে হবে। ব্যবসায়ীদের কাছে সোনা সরবারহের জন্য গোল্ড এক্সচেঞ্জ বা গোল্ড ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সর্বোপরি আগামী অর্থবছরে যুগোপযোগী ব্যবসাবান্ধব নীতিমালা করতে হবে। নীতিমালা না হওয়া পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের হয়রানি বন্ধ করার দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বাজুসের সভাপতি গঙ্গা চরণ মালাকার, সিনিয়র সহসভাপতি এম এ হান্নন, সহ-সভাপতি রনজিত ঘোষ, কোষাধ্যক্ষ পবিত্র চন্দ্রসহ অন্য নেতারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here