আবর্জনা সাফ সময়ের দাবি

0
223

আবু সাঈদ খান : রাজনীতিতে সুবিধাবাদ, দুর্নীতি, কেলেঙ্কারির কথাবার্তা আগেও ছিল; তবে রাজনীতির দুর্বৃত্তায়ন বা দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতি কথাটি ইদানীং চালু হয়েছে। পাকিস্তান আমলে দেখেছি_ মুসলিম লীগের গুণ্ডা ছিল। তারা আড়ালে-আবডালে থাকত। হুট করে জনসভায় ঢুকে পচা ডিম বা ইটপাটকেল ছুড়ে সভা পণ্ড করে দিত। ধরা পড়ে নাজেহালও হতে হতো। আর এখন রাজনীতির ভেতরেই পেশিশক্তি ঢুকে গেছে। পেশিধররা নেতৃত্বে আসীন হচ্ছেন, মনোনয়ন বাগিয়ে স্থানীয় সরকারে যাচ্ছেন। এমনকি সংসদ সদস্যও হচ্ছেন।

সামরিক শাসনামলেই এই দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতির প্রসার ঘটেছে। জিয়াউর রহমান এসে রাজনীতিতে একাত্তরের পরিত্যক্ত মুসলিম লীগারও জামায়াতিদের পুনর্বাসন করেন। রাজাকার শাহ আজিজকে প্রধানমন্ত্রী বানান। এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত খুনের আসামি সদ্য প্রয়াত শফিউল আলম প্রধানকে জেল থেকে বের করে রাজনীতির মাঠে নামান। পাশাপাশি সামরিক-বেসামরিক আমলা ও ব্যবসায়ীদের রাজনীতিতে টেনে আনেন। কেউ বলতে পারেন_ আমলা ও ব্যবসায়ীদের কি রাজনীতি করার অধিকার নেই? নিশ্চয়ই আছে। তবে তাদের আসতে হবে রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে; হঠাৎ করে নেতা বনে যাওয়া ঠিক নয়।

জিয়ার জন্য সুবিধা ছিল_ মাঠের রাজনৈতিক দলগুলোকে তার সাজানো নির্বাচনে নিয়ে আসতে পারলেন। জিয়ার পর অপর সামরিক শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তা পারলেন না। বরং সব দল মিলে ‘স্বৈরাচারী এরশাদ হটাও’ আন্দোলন গড়ে তোলে। এরশাদ তখন ভর করলেন ‘হোন্ডা, গুণ্ডা ও মণ্ডা’র ওপর। এরশাদের আশীর্বাদে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক চিহ্নিত দাগি ও মাস্তান উপজেলা চেয়ারম্যান ও এমপি হলেন। সেই থেকে রাজনীতিতে ব্যাপকভাবে পেশিধরদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠিত হলো। তিন জোটের আন্দোলনে নব্বইয়ে এরশাদের পতন হলো। কিন্তু এরশাদের ‘পেশিশক্তিনির্ভর রাজনৈতিক প্রযুক্তি’র অবসান হলো না। উপরন্তু মূলধারার দলগুলো তা গ্রহণ করল। পেশিধরদের দলে ভেড়ানোর প্রতিযোগিতা শুরু হলো। এভাবেই এখন পেশিশক্তি রাজনীতিতে বড় ফ্যাক্টর। তাদের দাপট বেড়েই চলেছে। সেই সঙ্গে বেড়েছে রাজনৈতিক সংঘাত, সংঘর্ষ। এখন এক দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে আরেক দলের বাগ্যুদ্ধ হয় না, বাহাস হয় না। অস্ত্র হাতে কাজিয়া হয়। এর আগে আমরা নানা স্থানে বিএনপির ক্যাডারদের হাতে আওয়ামী লীগের লোক এবং আওয়ামী লীগের ক্যাডারদের হাতে বিএনপির লোক খুনের অভিযোগ শুনেছি। ইদানীং বিএনপি মাঠে সক্রিয় নয়। তাই এখন দেখছি_ আওয়ামী লীগের ভেতরেই খুনোখুনি হচ্ছে। দলটির সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অভ্যন্তরীণ কোন্দলে খুনের সংখ্যা অনেক; তা নতুন রেকর্ড করেছে।

এ প্রসঙ্গে আমি কেবল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি উপজেলার অভ্যন্তরীণ কোন্দলের উল্লেখ করতে চাই। ২০ মে সমকালের প্রতিবেদনে প্রকাশ_’দিনের আলোয় মুখে কালো কাপড় বেঁধে চালানো হয় সশস্ত্র হামলা; মূল লক্ষ্য ছিল ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর জামাতা ও ঈশ্বরদীর পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। হামলার নেতৃত্ব দেন আবার ভূমিমন্ত্রীরই ছেলে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শিরহান শরীফ তমাল ও সাধারণ সম্পাদক রাজীব সরকার।’ সমকালসহ একাধিক পত্রিকার প্রতিবেদনে জানা যায়, জামাই আবুল কালাম আজাদই ছিলেন মন্ত্রী সাহেবের ক্যাডার। নানা স্বার্থের বিরোধে মন্ত্রী তার ওপর নাখোশ হন। তাই ছেলে তমালকে রাজনীতিতে নামান এবং প্রভাব খাটিয়ে তাকে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি করেন। এরপর থেকে আধিপত্য ও ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুলাভাই-শ্যালকের দফায় দফায় সংঘর্ষ চলছে। মিন্টুর বাহিনীর হাতে তমালের সমর্থক এক যুবলীগ কর্মী এবং তমালের বাহিনীর হাতে মিন্টুর সমর্থক আরেক যুবলীগ কর্মী প্রাণ হারিয়েছেন। এটি দৃশ্যত দুলাভাই-শ্যালক দ্বন্দ্ব হলেও আসলে শ্বশুর-জামাই দ্বন্দ্বেরই প্রকাশ। ঈশ্বরদীর আওয়ামী লীগ রাজনীতি এখন এই পরিবারটির গৃহবিবাদে পরিণত হয়েছে। এটি কেবল ঈশ্বরদীর চিত্র নয়, বহু জেলা-উপজেলায় এর মিল খুঁজে পাওয়া যাবে।

আমরা জানি না_ এভাবে ঠিকাদারি-উন্নয়ন কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণের মধ্য দিয়ে ভূমিমন্ত্রীর পরিবার কত টাকা কামিয়েছে। তবে আমরা হঠাৎ ধনকুবের বনে যাওয়া ঝালকাঠির ভাণ্ডারিয়া-কাউখালীর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ বিএইচ হারুনের সম্পত্তির হিসাব জানি। তার পরিবার রাজধানীর বনানীর বহুল আলোচিত, অননুমোদিত বিলাসবহুল রেইনট্রি হোটেলের মালিক। ১৯ মের প্রথম আলোতে ‘সাংসদ হারুনের পাঁচ বছরে এত সম্পদ!’ শিরোনামে পত্রিকাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে_ ‘২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশনে দেওয়া বিএইচ হারুন হলফনামায় ৩৮ লাখ টাকা দেখান।… ২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনের আগে হলফনামায় বিএইচ হারুন দেখান_ তার নিজের ও স্ত্রীর শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ রয়েছে ১৫ কোটি টাকা। এ ছাড়া নগদ দুই কোটি ৯০ লাখ, ব্যাংকে ৬৭ লাখ এবং ব্যাংকে স্থায়ী আমানত তিন কোটি ৬৮ লাখ টাকা, গাজীপুরে ১৭ কাঠা, মিরপুরে ৫ কাঠা, বনানীতে সাড়ে ৬ কাঠা, বারিধারায় ৬ কাঠার একটি ও সাড়ে ৪ কাঠার আরেকটি প্লট রয়েছে তার।’ এর বাইরেও প্রায় ৫০ কোটি টাকা আমানত ও বিনিয়োগ; তবে ১৪ কোটি টাকা ব্যাংক ঋণ আছে। এ ছাড়া এমপি সাহেব আট কোম্পানিরও মালিক।

এমন আঙুল ফুলে কলাগাছ হওয়া হারুন আরও আছে। এঁরা ব্যবসা করেন, তবে রাজনীতিই তাদের বড় ব্যবসা। অনেকে ক্ষমতার ছোঁয়ায় রাতারাতি ধনপতি হয়েছেন। আলিশান বাড়িতে থাকছেন। অত্যাধুনিক গাড়ি চালাচ্ছেন। তাদের বাড়িঘর আছে দেশের বাইরেও_ কানাডার বেগম পাড়ায় কিংবা মালয়েশিয়ায় তাদের সেকেন্ড হোম। ব্যাংকে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা। আরও ধনী হওয়ার প্রতিযোগিতায় কেউ মাস্তান পুষছেন, কেউ ছেলে, ভাই বা জামাইকে দিয়ে মাস্তানি করাচ্ছেন। আবার মাস্তানরাও নেতা হচ্ছেন।

একদা রাজনীতি ছিল আত্মত্যাগ, জনসেবা, জেল খাটা। আমাদের রাজনীতির সে গৌরবোজ্জ্বল অতীত আছে। ব্রিটিশ ভারতে বিলাতফেরত চিত্তরঞ্জন রায় সুট-কোট ছেড়ে দেশি পোশাক ধরলেন। সব মোহ ত্যাগ করে ত্যাগের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে দেশবন্ধু হয়ে উঠলেন। শেরেবাংলা বড় উকিল ছিলেন। ঢাকাতে তার কোনো সুরম্য বাড়ি ছিল না, সাধারণ বাড়িতেই থাকতেন। সোহরাওয়ার্দী আইন ব্যবসায় অনেক টাকা আয় করতেন। কিন্তু দলের পেছনেই তা ব্যয় করতেন। মওলানা ভাসানী টাঙ্গাইলের সন্তোষে ছনের ঘরে থাকতেন। ভক্ত-অনুরাগীদের সহযোগিতায় ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধুর বাড়ি হয়েছিল। তখন অবশ্য আজকের অভিজাত ধানমণ্ডি ছিল না। সেখানে ছিল আসলেই ধানক্ষেত। বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে গেলেই তার সাধারণ জীবনযাপন সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। আর সে সময়ের কমিউনিস্ট নেতারা ছিলেন সর্বস্বত্যাগী। কারও টিনের ছোট বাক্সই ছিল একমাত্র সম্পদ।

আমি মনে করি না যে, রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন কেবল আওয়ামী লীগের ব্যাপার; বিএনপি, জাপায়ও একই চিত্র। তবে ক্ষমতাসীন দলে সমস্যা বেশি। এখানে নানা দল থেকে সুবিধাবাদীরা ঢুকে পড়ে। ইতিপূর্বে কুষ্টিয়া, রাজশাহী, পাবনাসহ বিভিন্ন জেলায় জামায়াত-শিবিরের কর্মীদের মিষ্টি খাইয়ে, ফুলের মালা পরিয়ে আওয়ামী লীগে বরণ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে দলীয় নেতাদের বারবার সতর্ক করেছেন। কয়েকদিন আগে দলের বর্ধিত সভায় তিনি অন্য দল থেকে আবর্জনা না টানার নির্দেশ দিয়েছেন। স্পষ্ট করেই বলেছেন, দলে আবর্জনা টানবেন না।

আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল, বঙ্গবন্ধু-তাজউদ্দীনের হাতে গড়া দল। এ দলে অনেক ত্যাগী নেতাকর্মী আছে। তবে প্রকৃতির নিয়মে আগাছা-পরগাছাও জন্মেছে। কারণ গাছের পাশে পরগাছা গজিয়ে ওঠাই প্রকৃতির নিয়ম। এ প্রসঙ্গে আমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা বলতে চাই। তিনি কারাগারে থাকাকালে সেখানে বাগান করতেন। নিজেই বাগানের পরিচর্যা করতেন। তিনি এ সম্পর্কে লিখেছেন, ‘বাজে গাছগুলো আমি নিজেই তুলে ফেলি। আগাছাগুলো আমার বড় ভয় হয়, এগুলো না তুললে আমার গাছগুলো ধ্বংস হয়ে যাবে। যেমন আমার দেশের পরগাছা রাজনীতিবিদ_ যারা সত্যিকার দেশপ্রেমিক তাদের ধ্বংস করে এবং করতে চেষ্টা করে। তাই পরগাছায় আমার বড় ভয়। আমি লেগেই থাকি।’ (শেখ মুজিবুর রহমান, কারাগারের রোজনামচা; পৃষ্ঠা ১১৭)। বঙ্গবন্ধু কারাগারে বাগান করেছিলেন। আর বাইরে তার আর একটি সাজানো বাগান_ আওয়ামী লীগ। যেখানে এখন পরগাছায় আসল গাছগুলো ধ্বংস করতে চাইছে। আমরা আশা করতে চাই, নিশ্চয়ই বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসূরিরা সব পরগাছা উপড়ে ফেলবে। কেবল আওয়ামী লীগের ভেতরের নয়, রাজনৈতিক অঙ্গনের সব পরগাছা-আগাছা সাফ করা এখন সময়ের দাবি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here