আবহাওয়ার শাশ্বত সতর্কবার্তা

0
371

‘বোমা সাইক্লোন’ নামে অভিহিত তুষার ঝড়ের তাণ্ডবে স্থবির হইয়া পড়িয়াছে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় উপকূলের আটটি রাজ্য। প্রায় বন্ধ হইয়া গিয়াছে বিমান ও সড়ক যোগাযোগ। সরকারি-বেসরকারি অফিস ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির চিত্রও ভিন্ন নহে। কোথাও কোথাও জারি করা হইয়াছে জরুরি অবস্থাও। গত বৃহস্পতিবার হইতে শুরু হওয়া এই তীব্র তুষার ঝড় ও শৈত্য প্রবাহে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে এখন পর্যন্ত ২৩ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়াছে। তবে পুরু তুষার স্তরের নিচে চাপা পড়িয়া বিপর্যস্ত হইয়া যাওয়া যোগাযোগ ব্যবস্থা পুরোপুরি চালু হওয়ার পরই মৃতের প্রকৃত সংখ্যা জানা সম্ভব হইবে বলিয়া সংশ্লিষ্ট অঙ্গরাজ্য এবং বিভিন্ন সিটি প্রশাসনের পক্ষ হইতে গণমাধ্যমকে জানানো হইয়াছে। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় আবহাওয়া দপ্তরের শুক্রবার রাতের বুলেটিনেও এই মর্মে সতর্কবার্তা প্রচার করা হয় যে, রবিবারেও ভার্জিনিয়া, ডেলাওয়্যার, পেনসিলভেনিয়া, নিউ জার্সি, নিউ ইয়র্ক, কানেকটিকাট, ম্যাসেচুসেটস, রোড আইল্যান্ড এবং নিউ হ্যামশায়ার রাজ্যের অধিকাংশ এলাকাতেই তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে ২০ ডিগ্রি হইতে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়া আসিবে। সেই সঙ্গে সোমবারও নিউ ইয়র্ক সিটি এবং ওয়াশিংটন ডিসিসহ বিস্তীর্ণ এলাকায় তুষারপাত অব্যাহত থাকার আশঙ্কা ব্যক্ত করা হইয়াছে। এককথায়, একদিকে তীব্রগতির দীর্ঘস্থায়ী তুষার ঝড়, অন্যদিকে জলোচ্ছ্বাস মিলিয়া অভাবনীয় এক বিপর্যয়কর পরিস্থিতির মুখোমুখি হইতে হইয়াছে দেশটির বিপুলসংখ্যক জনসাধারণকে।
বার্তা সংস্থা থমসন রয়টার্স জানাইয়াছে, যুক্তরাষ্ট্রে গত ৩০ বত্সরের মধ্যে সর্বোচ্চ তুষারপাত রেকর্ড করা হইয়াছে এই সময়ে। লক্ষণীয় যে, যুক্তরাষ্ট্র যখন তুষারঝড়ে জবুথবু, অষ্ট্রেলিয়ার গুরুত্বপূর্ণ নগরী সিডনি তখন দগ্ধ হইতেছে নজিরবিহীন তাপদাহে। গত রবিবার বিকালে সেখানে ৪৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি তাপমাত্রা রেকর্ড করা হইয়াছে—যাহা গত প্রায় ৮০ বত্সরের মধ্যে সর্বোচ্চ। তবে পৃথিবীর আবহাওয়াগত এই বৈপরিত্য এবং অস্থিরতাকে একেবারে অপ্রত্যাশিত কিংবা আকস্মিক বলা যাইবে না। গত কয়েক দশকের নিরিখে বিচার করিলে তাহার আচরণে কিছুটা অস্বাভাবিকতা হয়ত নজরে পড়িলেও পড়িতে পারে। তবে এই কথা অনস্বীকার্য যে, শত সহস্র বত্সর ধরিয়া আবহাওয়া ক্রমাগত রূপবদল করিয়াছে। কখনো-বা অন্তহীন তুষারে ঢাকা পড়িয়া গিয়াছে জীবনের স্পন্দন, আবার কখনো আগ্নেয় লাভাস্রোতে দগ্ধ হইয়া গিয়াছে সব। আর ইহার অভিঘাতে পৃথিবীতে ঘটিয়া গিয়াছে বিস্ময়কর সব পরিবর্তন। বিলুপ্ত হইয়া গিয়াছে ডাইনোসরের মতো বিশালকায় প্রাণীকুল। অন্যদিকে, আবহাওয়ার অব্যাহত আনুকূল্যে অভূতপূর্ব বিকাশ সাধিত হইয়াছে মানবসভ্যতার।
আবহাওয়াগত পরিবর্তনের এই ধারায় আমাদের ধরিত্রী যে একটি নূতন পর্যায়ে আসিয়া উপনীত হইয়াছে তাহাতে সন্দেহ নাই। অতএব, আমাদের যেমন সম্ভাব্য যেকোনো পরিবর্তনের সহিত খাপ খাওয়াইয়া টিকিয়া থাকিবার জন্য তৈরি থাকিতে হইবে, তেমনি জীবনাচরণের ক্ষেত্রে হইতে হইবে অধিকতর সতর্ক এবং সংযতও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here