আমরা আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটে নাই: জিএম কাদের

0
70

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেছেন, আপনারা অনেক সময় আওয়ামী লীগের সম্বন্ধে ভালো ভালো কথা বলেন। আমরাও আওয়ামী লীগের সঙ্গে আন্ডারস্ট্যান্ডিং করে নির্বাচন করেছি। আমাদের জন্য কাজ করেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। আর আমরা তাদের জন্য কাজ করেছি। এমন বন্ধুত্ব আপনি কি একদিনে ছুঁড়ে ফেলতে পারবেন? সেই বন্ধুত্ব তো আমাদের ছিল। এখনো আছে কিছুটা। কিন্তু তারপরেও দেশ ও জনগণের স্বার্থে সত্যিকার কথা আমরা তুলে ধরতে চাই।

শুক্রবার রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

জিএম কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগের সঙ্গে এখন জোটে নাই। সুতরাং ভাঙ্গার কোন প্রশ্নই আসে না। আমরা বিরোধী দলে যেদিন থেকে কাজ করছি সেদিন থেকেই আমরা সরকারি দল বা আওয়ামী লীগের জোটে নেই। আমি বলতে চাই, আওয়ামী লীগ যদি ভালো কাজ করে অতীতে যেমন তাদের সঙ্গে ছিলাম ভবিষ্যতেও থাকবো।
আর তাদের উপর যদি আমরা আস্থা হারিয়ে ফেলি এবং জনগন যদি তাদের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলে, তাহলে আমরা ভবিষ্যতে তাদের সঙ্গে নাও থাকতে পারি।
ইভিএম প্রসঙ্গে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, আমরা অতীতেও বারবার বলেছি, আমরা অবাধ এবং সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। আর ইভিএম এর মাধ্যমে সেটা সম্ভব নয়। ইভিএমের নির্বাচন হবে পাতানো নির্বাচন। সরকার যাকে চাইবেন তাকে পাস করিয়ে দিতে পারবেন। তাই আমি এটাকে বলেছি শান্তিপূর্ণ কারচুপি একটা মেশিন হলো ইভিএম। তাই আমরা মনে করি এমন নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না।

নির্বাচন বর্জনের বিষয়ে জিএম কাদের বলেন, নির্বাচন বর্জনের বিষয়ে আমরা এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেইনি। নির্বাচনের সিদ্ধান্ত হলো অতি কঠিন সিদ্ধান্ত। রাজনৈতিক পরিস্থিতি আপনাকে দেখতে হবে, এই দেশের জনগণকে বাঁচাতে হবে, নিজেকে বাঁচাতে হবে, তার জন্য আমরা ভবিষ্যতে অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেব। জনগণ যেটা চায় আমাদের নেতাকর্মীরা যেটা চায় সেদিকেই সিদ্ধান্ত নেব আমরা।

দলের শৃংখলার প্রসঙ্গে সংসদের এই বিরোধী দলীয় উপনেতা বলেন, রাজনীতির মাধ্যমে জনগণের ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে হয়। এটা হল রাজনীতির মূল উদ্দেশ্য। আর আমাদের দলের মধ্যে যারা দলীয় নীতির বাহিরে যারা যাবেন, তিনি যতো বড় নেতাই হন, যত প্রভাবশালী লোকই হন, যত বিত্তশালী হন, তার যে ধরনের ক্ষমতা থাকুক আমরা সেটাকে তোয়াক্কা করব না। আমাদের একটাই লক্ষ্য দেশ ও জাতির কল্যাণে নিজেদেরকে নিবেদিত করা। এতে কেউ বাধা সৃষ্টি করলে সেই বাধা উড়িয়ে আমরা সামনে এগিয়ে দেবো ইনশাআল্লাহ।

জাতীয় হিন্দু প্রতিনিধি সম্মেলন উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সভাপতি বিধান বিহারী গোস্বামী। এসময় আর- উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, আলমগীর শিকদার লোটন, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব অ্যাড. গোবান্দ চন্দ্র প্রামানিক, নির্বাহী সভাপতি অ্যাড. দীনবন্ধু রায়, যুগ্ম মহাসচিব সুজন দে, সাংগঠনিক সম্পাদক সুশান্ত কুমার চক্রবর্তী, জাতীয় ছাত্র সমাজের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আল মামুন।