‘আমার ছবি রিলিজের সময় বাংলাদেশ দু’ভাগে ভাগ হয়ে যায়

0
317

জলসা ডেক্স : প্রত্যেক ছবিতেই নিজেকে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে ছুড়ে দেন বলে জানালেন পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। এবারও দিয়েছেন।

বাংলাদেশ ও ভারতে ২৭ অক্টোবর একযোগে মুক্তি পেয়েছে ফারুকীর আলোচিত সিনেমা ‘ডুব’। ‘ডুব’ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে কলকাতার প্রভাবশালী দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকাকে দেওয়া এক সাক্ষৎকারে একথা বলেছেন তিনি।

মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বলেন, “আমার প্রথম ছবি ‘ব্যাচেলর’ থেকে এখনও অবধি দেখেছি ছবি মুক্তির সময় বাংলাদেশ দু’ভাগে ভাগ হয়ে যায়। এর কারণ, প্রায় প্রত্যেক ছবিতেই আমি নিজেকে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে ছুড়ে দিই।”

এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘এক দল মানুষ যারা পুরনো থার্মোমিটারে আমাকে মাপতে চান, তারা এর বিপক্ষে বলতে শুরু করেন। আরেক দল, যারা সব সময়েই নতুন রাস্তার যাত্রী হতে চায়, তারা এর পক্ষে বলতে শুরু করেন। আর এই পক্ষে-বিপক্ষে আলোচনার মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশ-এর সিনেমা নতুন বাঁকে এগোতে থাকে।’

সাক্ষাৎকারে ফারুকী বলেন, ‘জানি না, আমি ব্র্যান্ড কি না। তবে এটুকু বলতে পারি, ফারুকীর ছবি দেখলে একটা সিগ্নেচার মার্কের টের পাওয়া যায়। আরও নানান ঢঙের ছবির মধ্যে দিয়ে, নানান ঘরানার ছবির মধ্যে এই সিগ্নেচারটাকে নিয়েই একটা ভাঙা-গড়ার খেলা খেলতে চাই।’

তার আগের সিনেমাগুলো নিয়ে এই পরিচালক বলেন, “এটা সত্যি যে ‘থার্ড পার্সন সিঙ্গুলার নম্বর’ আমাকে আন্তর্জাতিক স্তরে একটা জায়গা তৈরি করে দিয়েছে। ছবিটা নিয়ে প্রচুর বিতর্কও হয়। কিন্তু ‘টেলিভিশন’ আমাকে ফেস্টিভ্যাল সার্কিটে একটা আলাদা পরিচিতি দেয়। ‘পিঁপড়াবিদ্যা’ও অনেক ফেস্টিভ্যাল ঘুরেছে। ‘ডুব’ও দক্ষিণ এশিয়ার ছবি হিসেবে ফেস্টিভ্যাল সার্কিটে  প্রচুর প্রশংসিত হয়েছে। সে দিক থেকে আমার দর্শক তো বেড়েছে বলব।’

‘ডুব’ নিয়ে চ্যালেঞ্জ ছিল জানিয়ে ফারুকী বলেন, ‘ছবিটা তৈরির পর এই যে বিতর্ক, এই যে রিলিজ না হতে দেওয়ার একটা প্রচেষ্টা, ফিকশন না ফ্যাক্ট— এই নিয়ে বিস্তর আলোচনা, এগুলো আমার কাছে এক সময় পীড়াদায়ক ঠেকছিল। তাই ছবিটি নির্মাণের সময় আমরা গোলাপে বিছানো পথ যে পাইনি, তা বোঝাই যায়।’

তিনি বলেন, “ডুব তারকভস্কির দেশ মস্কোতে ‘কমারজ্যান্ট জুরি’ পুরস্কার জিতে এসেছে। এর থেকেও বড় মাপের পুরস্কার আমি পেয়েছি। কিন্তু আমার প্রিয় পরিচালক, যাকে এক সময় অনুপ্রেরণা হিসেবে মেনেছি, তার দেশ থেকে একটা পুরস্কার জেতা অবশ্যই স্পেশাল।’

‘ডুব’ বিতর্ক নিয়ে পরিচালক ফারুকী বলেন, ‘এর পেছনে একটা বিরাট প্রোপাগান্ডা কাজ করছে। কিন্তু আমি এখন আর পেছন ফিরে তাকাতে চাই না। এই নিয়ে কথাও বলতে চাই না। এখন শুধুই কবিতাটার দিকে তাকাতে চাই। আর দর্শকের প্রতিক্রিয়া জানতে চাই, রিভিউ পড়তে চাই। আর বারবার ওই নৈশঃব্দটাকে অনুভব করতে চাই।’

দর্শকদের উদ্দেশে এই নির্মাতা বলেন, “এই ছবিটি (ডুব) দেখতে আসার আগে হুমায়ুন আহমেদকে মাথা থেকে সরিয়ে ফেলুন। দেখার পর যদি কিছু মনে হয় তাতে আমার কিছু করার নেই। কিন্তু হুমায়ুনকে মাথায় করে ‘ডুব’ দেখতে এলে অনেক কিছু মিস করবেন। অনেক নীরব মুহূর্ত মিস করবেন, অনেক অসহায়ত্ব মিস করবেন।’

এ প্রসঙ্গে ফারুকী আরও বলেন, “ডুব এক বাবা ও মেয়ের ভালবাসার গল্প। আর সেই গল্প দেখতেই দর্শক হলে আসুক আমি সেটাই চাই।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here