আম চাষে লাভবান ঝিকরগাছার তুফান

0
402

এম আর মাসুদ: থোকায় থোকায় আম। আমের ভারে গাছের ডাল মাটিতেও পড়েছে। গাছের ডাল সোজা রাখতে প্রায় সব গাছে প্যালা দিতে হয়েছে। আমের ওজন হয়েছে অনেক বেশী। এক একটি আম ৬/৭’শ গ্রাম করে ওজন হয়েছে। সবসময় আম বাগান পরিচর্যায় বাস্ত থাকেন তোফাজ্জেল হোসেন তুফান। আম চাষে লাভবানও হয়েছেন তিনি।
তোফাজ্জেল হোসেন তুফান যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ইউনিয়নের বারবাকপুর গ্রামের মৃত শেখ আব্দুল ওহাবের ছেলে। বারবাকপুর গ্রামের পশ্চিমপাড়া মাঠে রাস্তার পাশে তুফানের আম বাগান। চলতি মৌসুমে তিনি ৪-৫ লক্ষ টাকার আম বিক্রি করবেন। ইতোমধ্যে লক্ষ তিনেক টাকার আম বিক্রি করেছেন। তুফানের ১৩ বিঘা জমিতে রয়েছে নানা জাতের আমের বাগান। যার মধ্যে ফলন হচ্ছে ৯ বিঘা জমির আম গাছে। সে ২০০৪ সালে ৩ বিঘা, ২০০৬ সালে ৩ বিঘা, ২০১০ সালে ৩ বিঘা ও ২০১৬ সালে আরো ৪ বিঘা জমিতে আমের বাগান করেছেন। এসব আমের মধ্যে হিমসাগর, রুপালী, ল্যাংড়া, মল্লিকা, গোবিন্দভোগ, হাড়িভাঙ্গা, রাজশাহী ও বোম্বাই জাত উল্লেখযোগ্য। আগের নয় বিঘা জমিতে আম চাষে তুফানের খরচ হয়েছিল দেড় লক্ষ টাকা। ২০১৬ সালে ৪ বিঘা জমির জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হর্টিকালচার বিভাগ হাড়িভাঙ্গা ও রাজশাহী জাতের ৫০ টি আমের চারা দিয়েছিল। এ বাদে ওই ৪ বিঘা জমিতে খরচ হয়েছে ৬০ হাজার টাকা। তোফাজ্জেল হোসেন তুফান জানান, ফলন্ত ৬ বিঘা জমিতে তিনি আমের সাথে সাথী ফসল হিসেবে বোম্বাই ও মোজাফ্ফর জাতের লিচু চাষ করেছেন। এ বছর ওই জমি থেকে ৫০ হাজার টাকার লিচু বিক্রি করেছেন। তিনি এবছর গোবিন্দভোগ, হিমসাগর ও ল্যাংড়া আম বিক্রি করেছেন ৩ লক্ষ টাকার। ওই ব্লকের উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা আইয়ুব হোসেনরে পরামর্শে তিনি আম ভাঙ্গার পর গাছের গোড়া রিং করে খুঁচে আষাড় ও ভাদ্র মাসে সার দেন। প্রতি মাসে এক বার করে ছত্রাকমুক্ত করতে কীটনাশক স্প্রে করেন। আম রুপালী গাছের আম ভাঙ্গার পর ডালপালা কাটেন ও ডোগা ছাটায় করেন। তিনি আম বাজারজাত করতে কোনরকম ফরমালিন বা ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করেন না। তবে বাজার সিন্ডিকেটের কারণে আমের নায্য মূল্য থেকে চাষীরা বঞ্চিত হন বলে তিনি দাবি করেন। তাছাড়া, এলাকাতে হিমাগার না থাকায় চাষীরা আম সংরক্ষণ করতে না পারায় অনেক সময় পানির দরে আম বিক্রি করতে হয়। তিনি এলাকাতে একটি হিমাগার নির্মাণের দাবি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here