আর্ট ফ্লিমের নতুন দিগন্ত উন্মোচন করতে চান যশোরের ছেলে আরাফাত

0
135

আগামী ২শরা ফেব্রুয়ারি মনিহার সিনেমা হলে প্রদর্শীত হবে তার পরিচালিত ৪টি সিনেমা

ডি এইচ দিলসান : যশোরের ছেলে আরাফাতুর রহমান। সাম্প্রতী তিনি আর্ট ফ্লিম নির্মানে বেশ সাড়া ফেলেছেন। ইতমধ্যে তিনি এক এক করে ১৩টি সিনেমা সফলভাবে নির্মান করেছেন। যার বেশির ভাগই কলতাতে নির্মিত। তিনি স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশে ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজে ভর্তি হয়ে ডিরেকশনে স্পেশালাইজেশন নিয়ে অনার্স সম্পন্ন করেন। এই সময়কালে তিনি তার দক্ষতাকে শানিত করেন এবং স্টুডেন্ট, ইন্ডিপেন্ডেন্ট এবং বাণিজ্যিক প্রযোজনায় কাজ করে মূল্যবান অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। কয়েকটি পুরস্কার-বিজয়ী স্বতন্ত্র শর্টফিল্ম এবং ডকুমেন্টারি নির্মানের পরে তিনি ডিপ্লোমার জন্য বাংলাদেশ ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউটে নথি ভুক্ত হন। এরপর তিনি ইনস্টিটিউট অফ ফাইন আর্টস, কলকাতা, যেখানে তিনি চলচ্চিত্র নির্মাণে ডিপ্লোমা করেন। তার সর্বশেষ স্বাধীন চলচ্চিত্র হল “ণাঋ”। এর আগে তিনি জন্মজালা, বিবর্তন, ও দ্যা ব্লাক নাইট, আই এম হাংরি, নবলোক, সাঙ্গু পাড়ের মর্ম কথাসহ মোট ১৩টি সিনেমা তৈরি করেছেন। ইতমধ্যে সিনেমা পরিচালনা করে পুনে রাইজিং ইন্টারন্যাশনাল ফ্লিম ফেস্টিবল ২০১৫ তে তার বিবর্তন সিনেমা নিয়ে বেস্ট ফ্লিম এওয়ার্ড অর্জন করে। এছাড়া অফিসিয়াল সিলেকশন পান কলকাতা সিনেফ্রেম ইন্টারন্যাশনাল সর্ট ফ্লিম ২০১৫, ৫ম পুনে সর্ট ফ্লিম ফেস্টিবল ২০১৫, বসুধা আর্টস ফেস্টিবল ২০১৬, ২১তম কলকাতা আন্তর্জাতিক ফ্লিম ফেস্টিবল ২০১৫, ৪র্থ মাই মুম্বাই সর্ট ফ্লিম ফেস্টিবল ২০১৫, ১২তম কলকাতা সর্ট ফ্লিম ফেস্টিবল ২০১৫, ক্যামেলন ইন্টারন্যাশনাল ফ্লিম ফেস্টিবল ২০১৫ এবং স্মিথা পাতিল ডকুমেন্টারি এন্ড সর্ট ফ্লিম ফেস্টিবল ২০১৫ অর্জন করেন। আগামী ২শরা ফেব্রুয়ারি যশোরের ছেলে পরিচালক আরাফাতুর রহমানের নির্মিত ৪টি সিনেমা প্রদর্শীত হবে মনিহার সিনেমা হলে। ওই দিন সন্ধা ৬টা থেকে তার একক চলচিত্র প্রদর্শনী হবে। প্রদর্শনী হওয়া সিনেমা গুলো হল জন্মজালা, বিবর্তন, ণাঝ ও দ্যা ব্লাক নাইট।
সিনেমার ব্যাপারে আরাফাতুর রহমান বলেন, অঅমার সিনেমা মূল ধারার নয়, দৈঘ্য যাই হোক তার মাঝেই আমি দর্শকদের একটি ম্যাসেজ দেওয়ার চেষ্টা করেছি। ছবি গুলো নিয়ে দেশের বাইরে অনেক গুলো প্রদর্শনীতে গিয়েছি, এখন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের কাছে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছি, এটাই আমার কাজের স্বার্থকতা।
তিনি বলেন, আমি ২০০৮ সাল থেকে ফ্লিমের কাজে হাত দেয়, তখন থেকে আমি ফ্লিম নিয়েই আছি। জন্মজ্বালা, যা বাংলাদেশের থ্যালাসেমিয়া রোগের প্রাদুর্ভাবের কারন ও নানামুখি প্রতিকারের কারন নিয়ে করা। বিবর্তন ছবিটি কালের পরিবর্তনের সাথে সাথে সমাজ ও মানুষের পরিবর্ত তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।
তিনি বলেন আমি আর্ট ফ্লিমের নতুন দিগন্ত উন্ম্চেন করেত চাই আর সে লক্ষে ছুটে চলেছি নিরন্তন।