আলী যাকেরের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

0
213

বিনোদন ডেস্ক : অভিনেতা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আলী যাকের পাড়ি জমালেন না ফেরার দেশে। শুক্রবার ভোর ৬টা ৪০ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন আলী যাকের। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এক শোকবার্তায় শেখ হাসিনা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধ, দেশের শিল্পকলা ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে আলী যাকেরের অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে। মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান তিনি।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ জানান, গত ১৫ নভেম্বর আলী যাকেরকে বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানকার সিসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

এই নাট্যব্যক্তিত্বের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, দেশের গুণী ও বর্ষীয়ান অভিনেতা আলী যাকের মুক্তিযুদ্ধের পরে আরণ্যক নাট্যদলে যোগদানের মাধ্যমে অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত হন। মঞ্চের পাশাপাশি টেলিভিশন নাটকে অভিনয়কারী জনপ্রিয় এ অভিনেতা সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করতেন। দেশের শিল্প ও সংস্কৃতির উৎকর্ষ সাধনে আমৃত্যু একনিষ্ঠ অবদান রেখেছেন তিনি।

আলী যাকেরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি।

তার মৃত্যুতে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের মধ্যে শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমেদ, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরির্তন মন্ত্রী মো. শাহাবউদ্দিন, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, শ্রম প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান। এছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম শোক প্রকাশ করেছেন।

পৃথক শোকবার্তায় তারা বলেন, বরেণ্য অভিনেতা আলী যাকের ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। তিনি ছিলেন একাধারে অভিনেতা, পরিচালক, নির্দেশক, কলামিস্ট, নাট্য সংগঠক ও স্বনামধন্য বিজ্ঞাপন সংস্থার কর্ণধার। টেলিভিশন ও মঞ্চ নাটকে সমান জনপ্রিয়। বিভিন্ন টিভি নাটকে তার অভিনয়ের মুন্সিয়ানা দর্শকের হৃদয় ছুঁয়েছে। এ শক্তিমান অভিনেতার মৃত্যুতে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে যে ক্ষতি হলো তা সহজে পূরণ হওয়ার নয়। তিনি তার অভিনয় ও সৃজনশীল কর্মের মধ্য দিয়ে দেশের অগণিত দর্শকের হৃদয়ে চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

প্রায় চার বছর ধরে ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করছিলেন তিনি। এছাড়া করোনা পজিটিভও ছিলেন। নাট্যজন আলী যাকেরের জন্ম ১৯৪৪ সালের ৬ নভেম্বর চট্টগ্রামের রতনপুর ইউনিয়নে। ছোট পর্দায় ও মঞ্চে সমানভাবে জনপ্রিয় ছিলেন তিনি।