আশুরা মানে শোক আর কারবালা নয়, আশুরা মানে বিজয়ের দিন, যশোরে পবিত্র আশরা পালিত

0
63

ডি এইচ দিলসান : আশুরা মানে শোক নয়, আশুরা মানে শুধু কারবালা নয়, আশুরা মানে বিজয়ের দিন, আশুরা মানেই কারবালার মর্মান্তিক ঘটনা নয়, আশুরার ঐতিহ্য আবহমানকাল থেকেই চলে এসেছে। এর ঐতিহ্যের স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে সেই সুপ্রাচীনকাল থেকে। ইসলামের আবির্ভাবেরও বহু আগে থেকে। এমনকি আশুরার রোজার প্রচলন ছিল ইসলামপূর্ব জাহেলি যুগেও! আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, জাহেলি যুগে মক্কার কুরাইশ বংশের লোকেরা আশুরার রোজা রাখত এবং রাসুল (সা.)-ও আশুরার রোজা রাখতেন। কাজেই আশুরার সুমহান ঐতিহ্যকে ‘কারবালা দিবসে’র ফ্রেমে বন্দি করা শুধুই সত্যের অপলাপ নয়; একই সঙ্গে দুরভিসন্ধিমূলকও!
প্রতিটি ইবাদত আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য হওয়ার অন্যতম দুটি শর্ত রয়েছে। এক. আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে ইবাদত করা, দুই. ওই ইবাদত রাসুল (সা.)-এর আনীত শরিয়ত এবং বর্ণিত পথ ও পন্থা অনুসারে হওয়া। আশুরার দিবসে রোজা রাখা ছাড়া অন্য কোনো রীতিনীতি, সংস্কৃতি ও ইবাদত ইসলাম অনুমোদন করে না। তাই শুধু রোজা রাখার মাধ্যমেই দিনটিকে পালন করতে হবে।
‘আশুরা’ শব্দটি আরবি। ‘আশারা’ অর্থ দশ। শরিয়তের পরিভাষায় মহররমের দশম দিবসকে ‘আশুরা’ বলে অভিহিত করা হয়। হিজরি বর্ষের সূচনা হয় এই মহররম মাসের মাধ্যমে। ‘মহররম’ শব্দের অর্থ পবিত্রতম ও মর্যাদাপূর্ণ। ইসলামপূর্ব জাহেলি যুগে এ মাসকে বিশেষ মর্যাদা ও সম্মানের চোখে দেখা হতো। এর পবিত্রতা ও মর্যাদার কথা বিবেচনা করেই যুদ্ধপ্রিয় আরবরা এ মাসে সব ধরনের যুদ্ধবিগ্রহ থেকে বিরত থাকত। তাই এ মাসের নামকরণ করা হয়েছে ‘মহররম’ বা ‘মর্যাদাপূর্ণ’ বলে। এ মাসের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো, হাদিস শরিফে এ মাসকে ‘আল্লাহর মাস’ হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে। এ মাস সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে বর্ণিত হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই আকাশমন্ডলী ও পৃথিবী সৃষ্টির দিন থেকেই আল্লাহর বিধান ও গণনায় মাসের সংখ্যা ১২টি। এর মধ্যে চারটি নিষিদ্ধ ও সম্মানিত মাস। এটাই সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান। সুতরাং এসব মাসে তোমরা নিজেদের প্রতি অবিচার কোরো না।’ (সুরা : তাওবা, আয়াত : ৩৬) হাদিস শরিফে এসেছে, এ চারটি মাস হলো—জিলকদ, জিলহজ, মহররম ও রজব। কাজেই সৃষ্টির সূচনা থেকেই এ মাসটি বিশেষ গুরুত্ব ও তাৎপর্য বহন করে আসছে। তাইতো আমরা দেখতে পাই, পৃথিবীর ইতিহাসের অসংখ্য কালজয়ী ঘটনার জ্বলন্ত সাক্ষী পুণ্যময় এ মাস। কারবালার ঐতিহাসিক ট্র্যাজেডিও আশুরার দিনে সংঘটিত হওয়ায় পৃথিবীর ইতিহাসে এক নতুন মাত্রা যুক্ত হয়েছে। রচিত হয়েছে শোকাভিভূত এক নতুন অধ্যায়।
এছাড়া এই দিনে ঘটে যাওয়া গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাগুলো পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।
এই দিনটিতে পৃথিবী সৃষ্টি হয়েছে এবং এই দিনেই পৃথিবী ধ্বংস হবে, মহান আল্লাহ এই দিনে প্রথম মানব আদি পিতা আদম (আ.)কে সৃষ্টি করেন এবং স্বর্গ বা জান্নাতে স্থান দেন। পরবর্তীতে এই দিনেই আদম-হাওয়া (আ.)কে পৃথিবীতে প্রেরণ করেন। আবার এই তারিখেই তাঁরা আল্লাহর ক্ষমাও লাভ করেন, আশুরার এই দিনে হযরত ইদ্রিস (আ.)কে আকাশে উত্তোলন করে নেন মহান আল্লাহ। এই দিনে হযরত নূহ (আ.)কে প্লাবন থেকে পরিত্রাণ দেওয়া হয় এবং পৃথিবীকে নতুনভাবে সাজিয়ে তোলার সুযোগ পান তিনি। আশুরার এই দিনে আল্লাহর কৃপায় হযরত ইব্রাহিম (আ.) নমরুদের অগ্নিকান্ড থেকে নিষ্কৃতি পান। মহররমের ১০ তারিখে হযরত আইয়ুব (আ.) কুষ্ঠরোগে ১৮ বছর ভোগার পর এ রোগ থেকে মুক্ত লাভ করেন। হযরত ইদ্রিস (আ.)কে জান্নাত থেকে দুনিয়ায় পাঠানোর পর গুনাহ-অপরাধের জন্য কান্নাকাটি করলে আল্লাহপাক আবার তাঁকে জান্নাতে ফেরত নেন এই দিনে। মহররমের এই দিনে হযরত ইউনুস (আ.) ৪০ দিন মাছের পেট থেকে পর পরিত্রাণ পান। মহান আল্লাহ এই দিনে হযরত দাউদ (আ.)-এর সমস্ত গুনাহ মাফ করে দেন। রাজ্যহারা হয়ে আল্লাহর দয়ায় এই দিনে হযরত সোলাইমান (আ.) স্বীয় বাদশাহী ফেরত পান। কুমারী মাতা হযরত মরিয়ম (আ.)-এর গর্ভ হতে হযরত ঈসা (আ.) পৃথিবীতে আগমন করেন এই দিনে। আশুরার এ দিনে হযরত ইউসুফ (আ.) তাঁর পিতা ইয়াকুব (আ.)-এর সঙ্গে সুদীর্ঘ ৪০ বছর পর সাক্ষাৎ লাভ করেন। এই দিনে হযরত ঈসা (আ.)কে আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে আসমানে তুলে নেন। প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এই দিনে মক্কা থেকে হিজরত করে মদীনা শরীফে তাশরীফ নেন। এই দিনেই মুসা আ. বনি ইসরাইল বাসীদের নিয়ে নীল নদী পাড়ি দেন এবং মুসা আ.কে তারা করা ফেরাউন দল বল সহ নীল নদীতে ডুবে মরে। এই দিনেই নবী পরিবারের আখেরী নিশান হযরত হুসাইন আ. তার দুধের শিশু সহ এজিদের হাতে নিমর্মভাবে শহীদ হন। ইউনুস আ. মাছের পেট থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন। এমনিভাবে সৃষ্টির সূচনালগ্ন থেকে বিভিন্ন বড় বড় ঘটনা গটেছে এই দিনে।
আশুরার সুমহান মর্যাদাপূর্ণ পবিত্র দিনে মুসলিম সমাজে কিছু নিষিদ্ধ কর্মকান্ড ও কুসংস্কারের প্রচলন হয়েছে, যে গুলো ইসলামে নিশিদ্ধ করা হয়েছে। সেসব থেকে বেঁচে থাকা মুসলমানের জন্য অপরিহার্য। মহররম আসার সঙ্গে সঙ্গে হুসাইন (রা.)-এর শাহাদাতের ওপর মাতম-বিলাপ শুরু করা ও নিজ দেহে ছুরিকাঘাত করা গর্হিত অপরাধ। রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘শোকে বিহ্বল হয়ে যে ব্যক্তি গাল চাপড়ায়, কাপড় ছেঁড়ে ও জাহেলি যুগের মতো আচরণ করে সে আমাদের দলভুক্ত নয়।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১২৯৭)
এ ছাড়া কালো পতাকা উত্তোলন, রাত জাগা, দুলদুল কবর ইত্যাদির আকৃতি বানানো, সাজসজ্জা ও আরাম-আয়েশ ত্যাগ করা, মর্সিয়া করা, পুঁথি পাঠ করা, হালুয়া-রুটি হৈ-হুল্লোড় করা, শোকযাত্রা বের করা, আতশবাজি ও আলোকসজ্জা করা বিদআত। এসবের মধ্যে এমন কাজও রয়েছে, যেগুলোতে শিরকের আশঙ্কা থাকে। অতএব এসব কর্মকান্ড পরিত্যাগ করা ওয়াজিব। কেউ কেউ আশুরাকে কেন্দ্র করে অসংখ্য কল্পিত ঘটনা ও বিশেষ বিশেষ পন্থায় ইবাদতের উপদেশ দিয়ে থাকেন যা কোরআন হাদিস দ্বারা প্রমাণিত নয়। সুতরাং তাও নিন্দনীয় ও বর্জনীয়।
এদিকে বরাবরের ন্যায় সমগ্র বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে শিয়া মতাদর্শীরা যশোরের শোকাবহ পরিবেশে ধর্মীয় ভাব-গাম্ভীর্য্যরে মধ্যে দিয়ে ইমাম হোসেন (আঃ) এর শাহাদাতবার্ষিকীতে তাজিয়া মিছিল করা হয়। মঙ্গলবার শহরের ঈদগা মোড় থেকে বিশাল তাজিয়া মিছিলটি বের হয়। মিছিলটি দড়াটানা, চিত্রামোড়, চৌরাসস্থা, আরএন রোড, মণিহার হয়ে মুড়ালি ইমামবাড়িতে গিয়ে শেষ হয়। ১০ মহররম কারবালার যুদ্ধে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর দৌহিত্র ইমাম হোসেনের মৃত্যুর দিনটি বিশ্বব্যাপী পালন করে থাকেন শিয়া মতাদর্শীরা। কারবালার বিয়োগাত্মক সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে যশোরে এই তাজিয়া মিছিল বের করা হয়। মিছিলে বিপুল সংখ্যক মানুষ বুুক চাপড়ে, ‘হায় হোসেন, হায় হোসেন’ মাতমে ফোরাত তীরের সেই ঘটনাকে স্মরণ করেন। মিছিলে অংশগ্রহণকারী অধিকাংশ নারী-পুরুষকে কালো পোশাকে দেখা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here