আসছে কঠোর লকডাউন তাই স্বাস্থ্যবিধী ভুলে বাজারে ক্রেতাদের ভিড়, বেশি কিনছেন নিত্যপণ্য

0
60

ডি এইচ দিলসান : নতুন করে সার্টডাউনের খবরে শনিবার যশোরের বাজারগুলোতে ক্রেতাদেও উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা গেছে। স্বাস্থ্য বিধীর ধার না ধেরে বেশি পরিমান বা পন্য কেনায় মসগুল ছিলেন যশোরের ক্রেতা সাধারন। যশোরের বড় বাজার, রেল বাজার, চুয়াডাঙ্গা বাসস্টান্ড, সহ সুপার সপ গুলো ঘুরে এমন চিত্র লক্ষ করা গেছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে দেশে আগামী সোমবার থেকে টানা সাত দিন কঠোর লকডাউন চলবে। গতশুক্রবার রাতে তথ্য বিবরণীতে এ কথা জানানো হয়। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকা, জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হওয়ার কথা বলেন। গতকালের ঘোষণায় নিত্যপণ্যের দোকান বা বাজার খোলা না বন্ধ থাকবে, সে ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। এই ঘোষণার কারণেই বাজারে ভিড় কিছুটা বেড়েছে বলে মনে করছেন ক্রেতা ও বিক্রেতারা ।
বিক্রেতারা বলছেন, সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় এমনিতেই বাজারে ভিড় থাকে। কিন্তু শনিবার ক্রেতাদের আনাগোনা বাজারে দোকানে বেশি ছিল।
একাধিক ব্যবসায়ী জানান, বেলা ১২টার দিকে টাউন হল বাজারে যেমন ভিড় ছিল, দুপুরের দিকে সচরাচর তেমন থাকে না। বাজারে আসা ক্রেতাদের অনেকেই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, লবণ, আলু ও পেঁয়াজ প্রয়োজনের চেয়ে একটু বেশি করে কেনেন। ক্রেতারা বলেন, বাজার খোলা থাকলেও বিধিনিষেধের মধ্যে যাতে ঘরের বাইরে আসতে না হয়, সে কারণে সংসারের প্রয়োজনীয় পণ্যগুলো কিনছেন।
কথা হলো যশোরের বড় বাজারে কালিবাড়ি মোড়ে বস্তা ভর্তি বাজার নিয়ে টানা রোদে দাড়িয়ে থাকা মুরব্বি সালেহা বেগমের সাথে। তিনি বলেন, বাড়িতে বাজার করার মত কেউ নেই, তাই লকডাউনে বের হতে পারবো না বলে বেশি করে বাজার করলাম। কিন্তু তিনি বলেন, প্রায় আধা ঘন্টা দাড়িয়ে আছি, একটাও রিক্সা পাচ্ছি না, গরমে আর দাড়াতেও পারছি না।